সরকারে ফিরছে আ.লীগ, ইকোনোমিস্ট উইংয়ের পূর্বাভাস

ঢাকা টাইমস ডেস্ক
| আপডেট : ১২ ডিসেম্বর ২০১৮, ২২:২৭ | প্রকাশিত : ১২ ডিসেম্বর ২০১৮, ২০:০৬
ফাইল ছবি

আগামী ৩০ ডিসেম্বরের ভোটে জিতে আওয়ামী লীগ আবার সরকার গঠন করতে পারে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে বিশ্বের প্রভাবশালী একটি থিংকট্যাংক।

ইকোনমিস্ট গ্রুপের গবেষণা উইং ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিট-ইআইইউ চলতি মাসের শুরুতে বাংলাদেশ বিষয়ে প্রকাশিত সর্বশেষ কান্ট্রি ব্রিফিংয়ে এই তথ্য জানিয়েছে।

প্রতিবেদনটি এমন সময় প্রকাশ হলো যখন বাংলাদেশে পুরোদমে নির্বাচনী প্রচার শুরু হয়ে গেছে। আর দশম সংসদ নির্বাচন বর্জন করা বিএনপি এবং তার পুরনো ও নতুন শরিকরাও প্রার্থী দিয়ে জনগণের কাছে যাচ্ছে ভোট চাইতে।

২০০৮ সাল থেকে ক্ষমতায় থাকা আওয়ামী লীগ এবং বিএনপি ও তার শরিক- দুই পক্ষই নিশ্চিত জয়ের দাবি করছে। 

স্থানীয় বিভিন্ন জরিপে জনপ্রিয়তার দিক দিয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার অনেক এগিয়ে থাকার তথ্য তুলে ধরে ইআইইউ বলছে, ‘তার ব্যক্তিগত ভাবমূর্তি নির্বাচনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।’

৪ ডিসেম্বর প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নির্বাচনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় থাকবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনিই এখন দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেতা।

লন্ডনভিত্তিক ইআইইউ বিশ্বব্যাপী জরিপ কার্যক্রম পরিচালনা করে। বিগত ৬০ বছর ধরে প্রতিষ্ঠানটি বিভিন্ন দেশের ব্যবসার উন্নয়ন, অর্থনীতি এবং রাজনীতির প্রবণতা, সরকারের নীতি নির্ধারণ বিষয়ে কাজ করে যাচ্ছে।

চলতি বছরের ১০ এপ্রিল থেকে ২১ মের মধ্যে পরিচালিত এই জরিপে বলা হয়, দেশের ৬৬ ভাগ মানুষ সমর্থন আছে শেখ হাসিনার প্রতি আর ৬৪ শতাংশ মানুষের পছন্দ আওয়ামী লীগ। ৬২ শতাংশ নাগরিক মনে করেন অর্থনৈতিক অগ্রযাত্রায় দেশ সঠিক পথে আছে। অর্থনৈতিক উন্নয়নে সন্তুষ্ট ৬৯ শতাংশ নাগরিক।

গবেষণা প্রতিবেদনের নোটে বলা হয়, নিরাপত্তা পরিস্থিতি নিয়েও দেশের ৬৮ শতাংশ নাগরিক সন্তুষ্ট। জনস্বাস্থ্য খাতে সরকারি সেবায় সন্তুষ্ট ৬৭ শতাংশ, বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করায় সন্তুষ্ট ৬৪ শতাংশ এবং সড়ক অবকাঠামো উন্নয়নে সন্তুষ্ট ৬১ শতাংশ নাগরিক।

ইন্ডিপেন্ডেন্ট-আরডিসি পরিচালিত গবেষণা অনুসারে, বাংলাদেশে সবচেয়ে জনপ্রিয় নেতা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ৭২.৩ শতাংশ উত্তরদাতা শেখ হাসিনা সম্পর্কে ভালো মত দিয়েছেন, আর বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার পক্ষে বলেছেন ২৬.৬ শতাংশ উত্তরদাতা।

যুব সমাজের মধ্যে আওয়ামী লীগের জনপ্রিয়তা এখনও অনেক বেশি। ১৮ থেকে ২৯ বছর বয়সীদের ৫৫.৪ শতাংশ উত্তরদাতা ক্ষমতাসীনদের পক্ষে বলেছেন, বিএনপির পক্ষে বলেছেন ২০.৮ শতাংশ।

পূর্বাভাসে বলা হয়, অর্থনৈতিক উন্নয়নে বড় অবদান রাখার জন্য বাংলাদেশের মানুষ আবার আওয়ামী লীগকে নির্বাচিত করবে। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক এই অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকবে এবং ২০১৮-১৯ থেকে ২০২২-২৩ অর্থবছরে বাংলাদেশের জিডিপি বেড়ে গড়ে ৭.৭ করে থাকবে। ব্যক্তিগত উদ্যোগ এবং সার্বিক বিনিয়োগে স্থিতাবস্থা থাকবে।

ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিট মনে করছে, আওয়ামী লীগ সরকারের অধীনে আর্থ-সামাজিক ক্ষেত্রে অসাধারণ অগ্রগতির পাশাপাশি ভোটের মাঠে একটি কার্যকর বিরোধী শক্তির অনুপস্থিতির কারণে বিএনপি বা জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচনে বড় কোনো চ্যালেঞ্জ গড়ে তুলতে পারবে না।

সংস্থাটির ধারণা, আসন্ন নির্বাচনে জয় পেলে আওয়ামী লীগ বঙ্গোপসাগরের তীরে কৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ ভৌগলিক অবস্থানে থাকা বাংলাদেশ প্রতিবেশী ভারত, চীন ও জাপানের কাছ থেকে আরও অর্থনৈতিক সহযোগিতা আদায় করে নিতে পারবে।

কান্ট্রি ব্রিফিংয়ের পূর্বাভাস অনুযায়ী, রোহিঙ্গা শরণার্থীদের বিষয়টি বাংলাদেশের জন্য আগামীতে বড় একটি সমস্যা হিসেবেই থেকে যাবে। আর এ সংকটকে কেন্দ্র করে মিয়ানমারের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্কোন্নয়নের কোনো সম্ভাবনাও দেখছে না ইআইইউ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত