রিকশাযাত্রী সেই নারীর দুঃখ প্রকাশ

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:৩৫ | প্রকাশিত : ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:২০

রাজধানীর রাস্তায় মারমুখী ভঙ্গিতে একজন নারী এক রিকশাচালককে মারছে- এমন একটি ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল হওয়ার পর নিজের কাজের জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছেন সেই নারী। বলেছেন ‘আমি এর জন্য লজ্জিত।’

ওই নারীর নাম সুইটি আক্তার শিনু। তিনি ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের মহিলা-সম্পাদিকা।

যে ভাইরাল ভিডিওটি নিয়ে নানারকম আলোচনা-সমালোচনা শুরু হয়েছে, সেটির বিষয়ে সুইটি আক্তার বিবিসি বাংলার সাথে কথা বলেছেন।

তিনি বলেছেন, মিরপুরের রূপনগর আবাসিক এলাকায় ঘটনাটি ঘটেছে।

ওই ঘটনা নিয়ে তিনি এখন "লজ্জিত" বলেও জানান। বলেন, "আমি একদম স্যরি, যেহেতু আমার ভুল হয়ে গেছে। আমার এটা করা উচিত হয়নি। আমি স্যরি বলতেছি।"
এদিকে ঘটনার পর আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ওই ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক মো. মকবুল হোসেন।

মকবুল বলেন, "যে ভিডিওটা ভাইরাল হইছে সেইটা আমরা দেখছি। এরপর তাৎক্ষণিকভাবে বসে সবাই সিদ্ধান্ত নিয়েছি তাকে দল কমিটি থেকে বহিষ্কার করার।

দল থেকে বহিষ্কারের বিষয়ে সুইটি বলেন, "আমার ভুল হইছে। আমার দল ঠিক করেছে।" তার দাবি, "দলের বাইরের কিছু লোক ভিডিও করে তাকে অপব্যবহার করছে।"

এই ভিডিও ভাইরাল হওয়া সম্পর্কে সুইটি আক্তার বলেন, "এই ইলেকশনকে কেন্দ্র করে এইগুলা করতেছে। বেশি আমাদের বিপক্ষের লোকগুলা লেখালেখি করতেছে।"

কেন মারধর করলেন এমন প্রশ্নে সুইটি বলেন, সামাজিক মাধ্যমে বিশেষ করে ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে যেটুকু দেখা গেছে তার আগে কিছু ঘটনা ঘটেছে তা লোকজনের নজরে আসেনি। 

"বাসায় আমার বাচ্চা আছে এবং চুলায় রান্না চাপানো আছে- এটা বলার পরও রিকশাচালক তার কথা না শুনে ধীরে ধীরে চালাচ্ছিলেন এবং ভাঙ্গা জায়গা দিয়ে রিকশা চালাচ্ছিলেন।’
এরপর তিনি "রিকশা থেকে পড়ে যান" বলে জানান সুইটি। তবে অন্য রিকশায় উঠে যেতে পারতেন-সে প্রশ্ন করা হলে সুইটি করেন, "এমনটা করা হয়নি।"

"এই ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর এ নিয়ে পারিবারিক এবং সামাজিকভাবে তিনি লজ্জার মুখে পড়েছেন", মানসিক পীড়া অনুভব করছেন। বলেন, "বলে বোঝাতে পারবো না গতকাল (মঙ্গলবার) থেকে আমি কিসের মধ্যে আছি।"

ঢাকাটাইমস/১৩ডিসেম্বর/ইএস

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজধানী বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :