সেনাবাহিনী গ্রেপ্তার করতে পারবে: সিইসি

নিজস্ব প্রতিবেদক
| আপডেট : ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৯:০০ | প্রকাশিত : ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৮:৩৭

আসন্ন জাতীয় নির্বাচন উপলক্ষে ২৪ ডিসেম্বর থেকে মাঠে থাকবে সেনাবাহিনী। নির্বাচনের সার্বিক নিরাপত্তা রক্ষায় স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে কাজ করার পাশাপাশি জরুরি প্রয়োজনে ম্যাজিস্ট্রেটের সহায়তায় তারা গ্রেপ্তার করতে পারবে।

শনিবার বিকালে নির্বাচন কমিশনের সভা শেষে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা এসব কথা বলেন। ইসির মিডিয়া সেন্টারে ব্রিফিংয়ে চার নির্বাচন কমিশনার ও ইসি সচিব উপস্থিত ছিলেন।

সেনাবাহিনীর গ্রেপ্তার প্রসঙ্গে সিইসি বলেন, ‘যদি ম্যাজিস্ট্রেট থাকে বা কোনও একটি এলাকা/কেন্দ্রে এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয় যে, ইমিডিয়েট হস্তক্ষেপ করার দরকার হয় তাহলে তারা গ্রেপ্তার করতে পারে। এটা আইনেই বলা আছে। সিআরপিসিতে আইনে যেভাবে আছে, সেভাবেই তারা দায়িত্ব পালন করবে।

. কামালের ওপর হামলা ফৌজদারি অপরাধ

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেনের গাড়িবহরে হামলার ঘটনায় ফৌজদারি অপরাধ হয়েছে বলে মন্তব্য করে সিইসি নুরুল হুদা বলেন, ‘ড. কামাল একজন সিনিয়র সিটিজেন। তার ওপর হামলার এই ঘটনা দুঃখজনক।’

বিএনপিসহ ঐক্যফ্রন্টের নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার হয়রানির বিষয়ে তিনি বলেন, ‘কাউকে অহেতুক হয়রানি ও গ্রেপ্তারি না করতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও আইজিপিকে আগামীকাল (রবিবার) চিঠি দেওয়া হবে। তবে কেউ ফৌজদারি অপরাধ করলে ইসির কিছু করার থাকবে না।’

ভোটকেন্দ্র থেকে সরাসরি সম্প্রচার নয়

সিইসি বলেন, ‘ভোটের দিন কেন্দ্রে শৃঙ্খলা রাখার স্বার্থে ভোটকক্ষ থেকে সরাসরি সম্প্রচার করতে না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন। ভোটকক্ষের ভেতর থেকে কোনোভাবে সরাসরি সম্প্রচার করা যাবে না। টেলিভিশন, অনলাইন, মোবাইল বা ক্যামেরায় হোক- সরাসরি সম্প্রচার করা যাবে না। তবে ভোটকক্ষের মধ্যে ছবি বা ভিডিও করতে কোনো বাধা নেই। শুধু সরাসরি সম্প্রচার না করার অনুরোধ করা হচ্ছে ‘

‘ভোটকক্ষের ভেতরে সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার, পোলিং অফিসার ও প্রার্থীর এজেন্টরা থাকেন; সেই সঙ্গে একদল সাংবাদিক সরাসরি সম্প্রচারে গেলে ভোট দেওয়ার কাজ বাধাগ্রস্থ হবে। এসব বিবেচনা করেই আমরা এ সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

ভোটের আগে ইন্টারনেটের গতি কমানো, মোবাইল ব্যাংকিং বন্ধ রাখা ও অভ্যন্তরীণ ব্যাংক লেনদেনের বিষয়ে যে প্রস্তাব এসেছিল সে বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি বলে জানান সিইসি।

এছাড়া ভোটকেন্দ্রে সাংবাদিকদের মোবাইল ফোনের ব্যবহার প্রসঙ্গে সিইসি বলেন, ‘সাংবাদিকদের মোবাইল ফোন ব্যবহার ও মোবাইলের মাধ্যমে ছবি তুলতে বাধা নেই। তবে ভোটকক্ষের ভেতরে কথা বলা যাবে না। ছবি তোলা শেষ করে বাইরে এসে কথা বলতে হবে।’

ঢাকাটাইমস/১৫ডিসেম্বর/ডিএম

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :