শোচনীয় হারে শুরু বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি সিরিজ

ক্রীড়া প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৫:১৮ | প্রকাশিত : ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৫:০৯

লক্ষ্যটা ছিল মাত্র ১৩০ রানের। সেটা ৫৫ বল আর ৮ উইকেটে রাতে রেখেই টপকে গেল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। টেস্ট ও ওয়ানডে সিরিজ জিতে নেয়া বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি সিরিজ শুরু হল শোচনীয় হারে।

সোমবার সিলেট আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন বাংলাদেশের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। কিন্তু তিনি ছাড়া টপঅর্ডার ব্যাটসম্যানদের কেউই জ্বলে উঠতে পারেননি। বিপর্যয়ের মুখে বাংলাদেশকে একাই টানেন অধিনায়ক। সাকিবের হাফসেঞ্চুরিতে ভর করেই লড়াই করার মত পুঁজি পায় বাংলাদেশ। কিন্তু ১২৯ রানটা যে উইকেটে যথেষ্ট নয়, সেটা চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

টেস্ট আর ওয়ানডে সিরিজ হারের ঝালটাই যেন টি-টোয়েন্টিতে মেটালেন ক্যারিবীয় ব্যাটসম্যানরা। সহজ লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ওপেনিং জুটিতে উড়ন্ত সূচনা এনে দেন এভিন লুইস আর শাই হোপ। মাত্র ৩.১ ওভারেই ৫১ রান তুলে ফেলেন তারা। লুইসকে (১৯) ফিরিয়ে এই জুটি ভাঙেন সাইফউদ্দিন। কিন্তু হোপকে থামানো যায়নি। বাংলাদেশী বোলারদের কচুকাটা করেছেন তিনি। মাত্র ১৬ বলেই তুলে নিয়েছেন ফিফটি। ছক্কাই মেরেছেন ৬টি, চার ৩টি। শেষ পর্যন্ত ২৩ বলে ৫৫ রান করে মাহমুদউল্লাহর বলে আউট হয়েছেন। কিন্তু ততক্ষণে ক্ষতি যা হবার হয়ে গেছে বাংলাদেশের।

হোপ যখন ফিরেছেন, ওয়েস্ট ইন্ডিজের দলীয় রান তখন ৯৮। মাত্র ৭.৪ ওভারে! নিকোলাস পুরানকে নিয়ে বাকি রান কাজটা সেরে ফেলেছেন কেমো পল। তৃতীয় উইকেটে ১৯ বলে ৩২ রানের জুটি গড়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে এনে দিয়েছেন ৮ উইকেটের বড় জয়। পল ২৮ আর পুরান ২৩ রানে অপরাজিত ছিলেন।

বাংলাদেশের শুরুটাই ছিল বিবর্ণ। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারেই শেলডন কোট্রেলের বলে কার্লোস ব্র্যাথওয়েটের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন তামিম ইকবাল (৫)। তৃতীয় ওভারে তামিমের পথ অনুসরণ করেন লিটনও (৬)। ওশানে থমাসের বলে মরাতে গিয়ে সেই ব্র্যাথওয়েটের হাতেই ধরা পড়েন তিনি।

তিনে নামা সৌম্য সরকার টিকেছেন মাত্র ৪ বল। কোট্রেলের দ্বিতীয় শিকার হয়ে ৫ রান করে আউট হয়েছেন তিনি। ভরসার প্রতীক মুশফিকুর রহিম ব্যক্তিগত ৫ রানে দুর্ভাগ্যজনকভাবে রানআউটে কাটা পড়েন। ৪৮ রানেই ৪ উইকেট হারিয়ে ধুঁকতে থাকে বাংলাদেশ।

পঞ্চম উইকেটে মাহমুদউল্লাহকে নিয়ে ইনিংস মেরামত করার চেষ্টা করছিলেন সাকিব। কিন্তু মাহমুদউল্লাহও বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। দলীয় ৭৩ রানে কোট্রেলের তৃতীয় শিকার হয়ে ফিরে গেছেন তিনি। ফেরার আগে ১৯ বলে ১২ রান করেছেন এই ডানহাতি।

সাতে ব্যাট করতে নামা আরিফুল কিছুক্ষণ সঙ্গ দিয়েছেন সাকিবকে। ভালোই খেলছিলেন। কিন্তু ব্যক্তিগত ১৭ রানে ফাবিয়ান অ্যালেনের বলে মারতে গিয়ে সীমানায় পুরানের হাতে ধরা পড়েন তিনি। এরপর দ্রুতই মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনকে (১) হারায় বাংলাদেশ।

একপ্রান্ত ধরে খেলতে থাকা সাকিব চেষ্টা করছিলেন স্কোরবোর্ডে কিছু রান জমা করার। কোট্রেলের করা ১৮তম ওভারের দ্বিতীয় বলটা ছক্কায় পরিণত করেন। তৃতীয় বলে মারতে গিয়ে বল ‍উড়িয়ে দেন আকাশে। তার ক্যাচটি লুফে নেন কোট্রেল নিজেই। ৪৩ বলে ৮ বাউন্ডারি আর ২ ছক্কায় ৬১ রান করে থামেন সাকিব।

১২২ রানে অষ্টম ব্যাটসম্যান হিসেবে সাকিব ফেরার পর আর ৭ রান যোগ করে ১২৯ রানে অলআউট হয় বাংলাদেশ। তখনও ৬ বল বাকি ছিল ইনিংসের। ক্যারিবীয়দের পক্ষে ২৮ রান খরচায় ৪ উইকেট দখল করেন পেসার কোট্রেল। এছাড়া কেমো পল নেন ২টি উইকেট।

(ঢাকাটাইমস/১৭ ডিসেম্বর/এবিএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

খেলাধুলা বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত