স্যানিটেশনে ভারতের চেয়ে বাংলাদেশ এগিয়ে

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১৫ অক্টোবর ২০১৬, ১২:৫৫ | প্রকাশিত : ১৫ অক্টোবর ২০১৬, ১২:৩৯

দক্ষিণ এশিয়ায় স্যানিটেশন ব্যবস্থায় শ্রীলঙ্কার পরই বাংলাদেশের অবস্থান বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন। তিনি বলেছেন, সারা দেশে স্বাস্থ্য সচেতনতার ব্যাপক প্রচার ও সচেতনা বৃদ্ধির মাধ্যমেই আমরা এই অবস্থান অর্জন করতে পেরেছি।

সকালে রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে ‘বিশ্ব হাত ধোয়া দিবস’ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

দক্ষিণ এশিয়ায় সবচেয়ে বড় এবং শক্তিশালী দেশ হলেও স্যানিটেশন ব্যবস্থায়  ভারত বাংলাদেশের চেয়ে পিছিয়ে। সেখানে অনেক জায়গায় পাকা টয়লেট নেই।

এলজিআরডিমন্ত্রী বলেন, ‘নিকট অতীতে ডায়রিয়া হলেই কলেরা মহামারি আকারে দেখা দিত। ডাক্তারের কাছে নেয়ার আগেই কলেরা রোগীরা মারা যেত। কিন্তু সচেতনতা বৃদ্ধি, শতভাগ স্যানিটেশন করার ফলে এই প্রকোপ কমানো সম্ভব হয়েছে।’

জাতিসংঘের উদ্যোগে ১৫ অক্টোবর সারা বিশ্বেই হাত ধোয়া দিবস পালন করা হচ্ছে। বাংলাদেশে দিবসের এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় হচ্ছে ‘হাত ধোয়ার অভ্যাস গড়ি’।

স্থানীয় সরকার বিভাগ আয়োজিত অনুষ্ঠানে ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন বলেন, বাংলাদেশের আকার অনেক ছোট। অল্প জায়গায় আমরা ব্যাপক জনসংখ্যা বসবাস করি। তারপরও স্বাস্থ্যসম্মত ব্যবস্থা করতে সক্ষম হয়েছি। শতকরা ৯০ ভাগ লোকের সুপেয় পানির ব্যবস্থা করতে পেরেছি।

ভূগর্ভস্থ পানির ব্যবহার কমানোর ওপর জোর দিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘আমরা বেশিরভাগ ভূগর্ভস্থ পানি দিয়ে সকলের সুপেয় পানির ব্যবস্থা করছি। মাত্র ২০ ভাগ ভূ-উপরিভাগের পানি ব্যবস্থা করছি। এতে করে আস্তে আস্তে আমাদের পানির স্তর নিচের দিকে নেমে যাচ্ছে। দেশের মাটি অনুর্বর হচ্ছে। এই অবস্থা চলতে থাকলে এক সময় দেশ মরুভূমিতে পরিণত হবে। সুতরাং এখন থেকেই ভূগর্ভস্থ পানির ব্যবহার কমিয়ে আনতে হবে।’

তিনি বলেন, ভূ-উপরিভাগের পানি পরিশোধন করে সুপেয় পানির ব্যবস্থা করতে হবে। জনসংখ্যার চাপে যে সমস্ত নদী ভরাট হয়ে যাচ্ছে, সেগুলো খনন করে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করতে হবে।

নানা পরিকল্পনা গ্রহণের কারণে গড় আয়ু বেড়েছে উল্লেখ করে স্থানীয় সরকারমন্ত্রী বলেন, স্বাস্থ্য সচেতনতার মাধ্যমে আমাদের গড় আয়ু ৪০ বছর থেকে বেড়ে ৭০ হয়েছে। বেশ কিছু পদক্ষেপের কারণেই আজ আমাদের গড় আয়ু ৩০ বছর বৃদ্ধি পেয়েছে।

এসময় তিনি শিক্ষকদের শিশুদের স্বাস্থ্য সম্মতভাবে চলাচলের জন্য উদ্বুদ্ধ করতে আহ্বান জানান। এরপর মন্ত্রী বেলুন উড়িয়ে ‘বিশ্ব হাত ধোয়া দিবসের’ উদ্বোধন করেন।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন, স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব মো. আব্দুল মালেক, স্থানীয় সরকার বিভাগের অতিরিক্ত সচিব বেগম নাছরিন আক্তার, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী মো. ওয়ালী উল্লাহ প্রমুখ।

(ঢাকাটাইমস/১৫অক্টোবর/জিএম/এমআর)

সংবাদটি শেয়ার করুন

স্বাস্থ্য বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত