অনেক আশার সফরে ঢাকায় জিনপিং

নিজস্ব প্রতিবেদক ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১৪ অক্টোবর ২০১৬, ১৫:৪৬ | প্রকাশিত : ১৪ অক্টোবর ২০১৬, ১২:০৬

দুই দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে তিন দশক পর প্রথম কোনো চীনা রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে ঢাকায় আসলেন প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং। বেলা ১১টা ৫০ এ এয়ার চায়নার বিশেষ এক বিমানে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে জিনপিংকে বহনকারী বিমানটি। বাংলাদেশ আকাশ সীমায় আসার পর থেকেই এই বিমানটিকে পাহারা দিয়ে নিয়ে আসে বিমানবাহিনীর বেশ কয়েকটি বিমান।

এর আগে থেকেই বিমানবন্দরে তাকে স্বাগত জানাতে অপেক্ষা করছিলেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ। উপস্থিত ছিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী, অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, জনপ্রশাসনমন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, পরিকল্পনামন্ত্রী আ ফ ম মোস্তফা কামাল এবং প্রধানমন্ত্রীর পররাষ্ট্র বিষয়ক উপদেষ্টা গওহর রিজভীও। ছিলেন সেনা প্রধান জেনারেল আবু বেলাল মোহাম্মদ শফিউল হক, বিমান বাহিনীর প্রধান মার্শাল আবু এসরার এবং নৌ বাহিনীর এডমিরাল প্রধান নিজাম উদ্দিন আহমেদ।

বেলা ১২টা তিন এ তিনি বিমান থেকে নেমে আসেন। এরপর একটি শিশু জিনপিং এর হাতে ফুলের তোড়া তুলে দেন। আর রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ তার সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। এরপর দুই রাষ্ট্রপ্রধান হেঁটে সামনে এগিয়ে যান।

পরে তিন বাহিনীর প্রধান চীনা নেতাকে গার্ড অব অনার দেয়। ২১ বার তোপধ্বনি ও বিমানবন্দরের আনুষ্ঠানিকতা শেষে চীনা প্রেসিডেন্ট মোটর শোভাযাত্রাসহ হোটেল লা মেরিডিয়ানে নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর চীনা নেতার সঙ্গে মন্ত্রিসভার উপস্থিত সদস্যদের পরিচয় করিয়ে দেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ।

চীনা নেতার এই সফর উপলক্ষে বিমানবন্দর সড়কে যান চলাচল নিয়ন্ত্রিত থাকবে কাল সকাল ১০ টা পর্যন্ত।

চীনা প্রেসিডেন্টের ঢাকা সফরকালে তার ১৩ সদস্যের সফরসঙ্গীর পাশাপাশি ৩৩ সদস্যের সরকারি কর্মকর্তা এবং ৩৪ সদস্যের নিরাপত্তা কর্মকর্তা ও মিডিয়াকর্মী থাকছেন।

চীনা প্রেসিডেন্টের সফর উপলক্ষে বিমানবন্দর থেকে বঙ্গভবন পর্যন্ত সড়ক ও সড়ক দ্বীপ বাংলাদেশ ও চীনের জাতীয় পতাকা, চীনের রাষ্ট্র প্রধান শি জিনপিং, রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি দিয়ে সাজানো হয়েছে।

এই সফরে মোট ২৫টি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক সই হবে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী। কত টাকার চুক্তি হবে সে বিষয়ে সরকারের পক্ষ থেকে কিছু বলা না হলেও চার হাজার কোটি ডলারের ঋণচুক্তির সম্ভবানার কথা প্রকাশ হয়েছে গণমাধ্যমে। এখন পর্যন্ত এত বিপুল পরিমাণ আর্থিক চুক্তি হয়নি কোনো দেশের সঙ্গে।

এই সফরে বাণিজ্য, বিনিয়োগ,  জ্বালানি, তথ্য যোগাযোগ প্রযুক্তি, ভৌত অবকাঠামো, সড়ক-সেতা, রেল, জলপথ, কৃষি, দুর্যোগ মোকাবেলা, জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ে দুই দেশের মধ্যে সহযোগিতার নতুন ক্ষেত্র সংযোজনের আশা করছে সরকার।

বেলা তিনটার দিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে তার দপ্তরে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে বৈঠক করবেন শি জিনপিং। সেখানে দুই দেশের মধ্যে চুক্তি ও সমঝোতা স্মারকগুলো সই হতে পারে।

বিকাছে বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে বৈঠক করার কথা রয়েছে চীনা প্রেসিডেন্টের।

সন্ধা সাড়ে ছয়টায় চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের সঙ্গে বৈঠক করবেন। বৈঠক শেষে রাষ্ট্রপতির দেয়া নৈশভোজে যোগ দেবেন তিনি।

এর আগে স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী বিকেল চারটায় হোটেল লা মেরিডিয়ানে চীনা প্রেসিডেন্টের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন।

জিনপিং এর আগে প্রথম চীনা রাষ্ট্রপ্রধান হিসাবে ১৯৮৬ সালে বাংলাদেশ সফরে আসেন লি শিয়ান ইয়ান।

ঢাকাটাইমস/১৪অক্টোবর/ডব্লিউবি

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত