না.গঞ্জে শামীমের আশ্বাসে ফিরে গেল শিক্ষার্থীরা

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ০৩ আগস্ট ২০১৮, ১৯:২৫

স্থানীয় সাংসদ শামীম ওসমানের আশ্বাসে নারায়ণগঞ্জ শহরের চাষাঢ়ায় আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা তাদের কর্মসূচি সাময়িক প্রত্যাহার করেছে ফিরে গেছে। শামীম ওসমান তাদের বলেছেন, রবিবারের মধ্যে সব ঠিক না হলে তিনি নিজে তাদের সঙ্গে মাঠে থাকবেন।

আজ শুক্রবার (৩ আগস্ট) বেলা দুইটায় চাষাঢ়ায় অবস্থানকারী শিক্ষার্থীদের মাঝে গিয়ে তিনি এই আশ্বাস দেন।

গত রবিবার রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কের এমইএসে বাসচাপায় ফুটপাতে দাঁড়িয়ে থাকা শহীদ রমিজউদ্দিন স্কুল ও কলেজের দুই শিক্ষার্থী নিহত ও আরও কয়েকজন আহত হয়। এর জেরে রাস্তায় আন্দোলনে নামে শিক্ষার্থীরা। গত পাঁচ দিন ধরে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় চলছে ওই আন্দোলন।

নারায়ণগঞ্জে এক দিন মানববন্ধন ও পরের টানা দুই দিন সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত চাষাঢ়ায় অবস্থান করে নারায়ণগঞ্জের সঙ্গে রাজধানীর যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয় আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। তাতে অংশ নেয় নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কয়েক হাজার শিক্ষার্থী। এ ছাড়া সিদ্ধিরগঞ্জের শিমরাইল ও সাইনবোর্ড এলাকাতেও ছিল শিক্ষার্থীদের অবস্থান।

গত দুই দিন শিক্ষার্থীরা রাস্তায় রাস্তায় গাড়ির লাইসেন্স পরীক্ষা করে। যেখানে বাদ পড়েনি সরকারদলীয় এমপি, রাজনীতিক, পুলিশ, সাংবাদিকও।

আজ শুক্রবার (৩ আগস্ট) দুপুর থেকে আবার চাষাঢ়ায় অবস্থান নেয় বেশ কিছু শিক্ষার্থী। তারা জব্দ করে বেশ কয়েকটি গাড়ির চাবি, যাদের লাইসেন্স ছিল না।

বেলা দুইটায় শামীম ওসমান আসেন চাষাঢ়া এলাকায়। সেখানে তখন চলছিল এক গ্রুপ শিক্ষার্থীর অবস্থান।

শামীম ওসমান উপস্থিত শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে বলেন, ‘ট্রাফিক সিস্টেম নিয়ন্ত্রণে আমি নিজেও অনেকবার মাঠে নেমেছিলাম। আমি মাঠে নামলে কিন্তু যানজট থাকে না। পুলিশ ও ট্রাফিকদের তাদের দায়িত্ব পালন করতে দাও। আজ শুক্রবার ও কাল শনিবার তোমরা দেখো। রবিবারের মধ্যে যদি তোমরা যেভাবে চাও সেভাবে ট্রাফিক সিস্টেম ঠিক না হয় তাহলে আমি নিজে রবিবার থেকে মাঠে থাকব।’

শামীম ওসমান আরও বলেন, ‘আমি তোমাদের গত দুই দিনের আন্দোলনের ছবিগুলো দেখেছি। সেখানে তোমাদের মাঝে ঢুকে গেছে এমন কিছু মামলার আসামি আছে যারা শিবির ও জঙ্গিবাদের সঙ্গে জড়িত। তোমাদের মধ্যে এরা কোনো অঘটন ঘটিয়ে দিতে পারে। এসব বিষয় উদ্বেগের। তোমাদের মধ্যে অনেকেই ছিল যারা ছাত্র নয়, তোমরা নিজেরাও খেয়াল করলে দেখতে পাবে।’

এরপর শামীম ওসমান সেখানে উপস্থিত ফতুল্লা মডেল থানার ওসি শাহ মোহাম্মদ মঞ্জুর কাদের ও নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার কামরুল ইসলামকে উদ্দেশ করে বলেন, ‘আপনারা ট্রাফিক সিস্টেম ঠিক করুন। যদি তা না পারেন তাহলে নারায়ণগঞ্জ থেকে অন্য জায়গায় চলে যান। আমার কাউকে দরকার নেই। এই ছাত্ররা থাকলেই আমার চলবে।’

আওয়ামী লীগের এই সাংসদ বলেন, ‘আমি তো কাউকে বলিনি আমি বললে হাজার হাজার ছেলেমেয়ে আসবে। যদি রবিবারের মধ্যে সব ঠিক না হয় তাহলে আমি শিক্ষার্থীদের নিয়ে মাঠে থাকব, সবাইকে নিয়ে কাজ করব।’

আগামী রবিবার তাদের দাবিগুলো নিয়ে সব ছাত্রছাত্রীকে তার কাছে যেতে বলে প্রভাবশালী এই স্থানীয় নেতা বলেন, ‘মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি রিয়াদ তোমাদের সহযোগিতা করবে। তারপর দাবিগুলো নিয়ে আমি কাজ করব। তোমরা আমাদের দেশের যেমন সম্পদ, তোমাদের পরিবারেরও সম্পদ। বাসায় ফিরে যাও, মা-বাবার দোয়া নাও। এই দুই দিন তোমরাও থাকো, দেখো পুলিশ সঠিকভাবে তাদের দায়িত্ব পালন করে কি না।’

এ সময় শিক্ষার্থীরা ফুটওভার ব্রিজের দাবি করলে শামীম ওসমান বলেন, ‘আমি ছাত্রছাত্রীদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে সিটি করপোরেশনকে এখানে একটি ফুটওভার ব্রিজ করে দেয়ার দাবি জানাচ্ছি।’

পরে সকাল থেকে আটক করা যানবাহনের চাবিগুলো সদর মডেল থানার ওসির হাতে শিক্ষার্থীদের তুলে দিতে আহ্বান জানান শামীম ওসমান। সেই আহ্বানে সাড়া দিয়ে শিক্ষার্থীরা জব্দ করা চাবিগুলো হস্তান্তর করে ওসির কাছে।

(ঢাকাটাইমস/৩আগস্ট/মোআ) 

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :