এমপি রুহুল আমিনের দুর্নীতি তদন্তে দুদক

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ০১ অক্টোবর ২০১৮, ২২:০১

কুড়িগ্রাম-৪ আসনের এমপি রুহুল আমিনের বিরুদ্ধে বিদ্যুৎ গ্রাহক এবং শিক্ষক-কর্মচারী নিয়োগ বাণিজ্য করে ২০ কোটি টাকা আত্মসাৎসহ নানা দুর্নীতির অভিযোগের তদন্ত শুরু করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

সোমবার রংপুর দুদকের উপ-পরিচালক শেখ মো. ফানাফিল্যার নেতৃত্বে এই তদন্ত শুরু হয়েছে।

রংপুর দুদক অফিস জানায়, কুিড়গ্রাম-৪ আসনের এমপি রুহুল আমিনের বিরুদ্ধে বিদ্যুৎ ও শিক্ষা খাতে ২০ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ রয়েছে। এছাড়া টিআর, কাবিটায় টন প্রতি ৫ হাজার টাকা এবং নগদ প্রকল্পে তিনি প্রতি লাখে ২০ হাজার টাকা করে নিতেন সংশ্লিষ্ট লোকদের নিকট হতে। তিনি ঘুষ ছাড়া কোনো প্রকল্পই কাউকে বরাদ্দ দেননি।

অভিযোগ রয়েছে এমপি রুহুল আমিন ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে ১৭টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা কমিটির সভাপতি হন। আর বাকি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে তার স্বজন ও নিজস্ব লোকজনদের সভাপতি বানিয়ে নিয়োগ বাণিজ্য করেছেন। ২০১৪-১৬ সালের মধ্যে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ দিয়ে ১০ কোটি টাকার নিয়োগ বাণিজ্য করেছেন। এছাড়া ২০১৭ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত তিন বছরে পল্লী বিদ্যুতের নতুন সংযোগ পাওয়া প্রায় ১৭ হাজার গ্রাহকের কাছ থেকে অবৈধভাবে ১০ কোটি টাকা আদায় করেন।

তার এলাকায় টিআর, কাবিখা প্রকল্পের কোনো কাজই হয়নি। তিনি কুড়িগ্রাম শহরের  যাদুরচর হাইস্কুল সড়কে ৪ তলা আলিশান বাড়ি নির্মাণ করছেন। এছাড়া রংপুর শহরে জমি ক্রয় এবং রৌমারীর বেহুলার চরে অর্ধকোটি টাকা মূল্যের ১২ বিঘা আবাদী জমি ক্রয় করেছেন।

বিভিন্ন ব্যাংকে নামে বেনামে তার কয়েকশত কোটি টাকা রয়েছে। এমপি কোটায় শুল্কমুক্ত পাজারো গাড়ি তিনি জনৈক আবুল কালামের কাছে দেড় কোটি টাকায় বিক্রি করেছেন। এসব অভিযোগগুলো আমলে নিয়ে তদন্তে নেমেছে দুদক।

রংপুর দুদকের উপ-সহকারী পরিচালক প্রবীর কুমার দাস বলেন, উপ পরিচালকের নেতৃত্বে এমপি রুহুল আমিনের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ তদন্ত শুরু হয়েছে। অনুসন্ধান শেষে অভিযোগের সত্যতা অনুযায়ী মামলা করা হবে।

এ বিষয়ে এমপি রুহুল আমিনের মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

ঢাকাটাইমস/০১অক্টোবর/প্রতিনিধি/ইএস

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :