হলুদ রং ও দুর্গন্ধ পাঙ্গাস রপ্তানির অন্তরায়

বাকৃবি প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৪ অক্টোবর ২০১৮, ১৪:৫৯

বাংলাদেশে চাষকৃত মাছের মধ্যে পাঙ্গাস উল্লেখযোগ্য হারে চাষ হয়ে আসছে। দিনদিন বাড়ছে এ মাছের চাষ। দেশের মোট চাষকৃত মাছের শতকরা ১৬ ভাগ আসে এই পাঙ্গাস উৎপাদন থেকে। স্থানীয় চাহিদার পাশাপাশি দেশের বাইরে পাঙ্গাসের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। তবে হলুদ রং ও দুর্গন্ধের জন্য এ মাছ রপ্তানি সম্ভব হচ্ছে না বলে মত দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

সাধারণত ইউরোপ-আমেরিকার বাজারে সাদা মাংসের পাঙ্গাস বেশি প্রচলিত। কিন্তু দেশে পানির গুণাগুণের সঠিক ব্যবস্থাপনার অভাবে যেমন দুর্গন্ধযুক্ত পাঙ্গাস উৎপাদন হচ্ছে। তেমনি পাঙ্গাসের মাংসের রং হলুদ হচ্ছে।  পাঙ্গাসের মাংসের এই হলুদ রং এবং দুর্গন্ধের কারণে বিদেশের বাজার ধরতে পারছে।

যেখানে ভিয়েতনাম সাদা মাংসের পাঙ্গাস রপ্তানির মাধ্যমে ইউরোপ-আমেরিকার বাজারে তাদের শক্ত অবস্থান তৈরি করে নিয়েছে।

রবিবার বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বাকৃবি) মাৎস্যবিজ্ঞান অনুষদের সম্মেলন কক্ষে ‘পাঙ্গাস মাছের দুর্গন্ধ এবং মাংসের হলুদ রং এর বাহ্যিক কারণসমূহ” শীর্ষক এক সেমিনারে এসব কথা বলেন বক্তারা।

উক্ত সেমিনারে একোয়াকালচার বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ড. সাজ্জাদ হোসেন সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাকৃবি প্রাক্তন উপাচার্য অধ্যাপক ড. আনোয়ারুল ইসলাম। এছাড়াও সেমিনারে মাৎস্যবিজ্ঞান অনুষদের শিক্ষকবৃন্দ, পিএইচডি গবেষক, মাস্টার্সে অধ্যায়নরত শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন পিএইচডি গবেষক শেখ রাজিবুল ইসলাম। তিনি ব্যাংফিশ প্রজেক্ট এর মাধ্যমে পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, বাকৃবি এবং ডেনমার্কের কোপেনহেগেন বিশ্ববিদ্যালয়ের পূর্ণ সহযোগিতায় পাঙ্গাস মাছের মান উন্নয়নের ওপর তার গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছেন।

বাকৃবি এ্যাকোয়াকালচার বিভাগের অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ মাহফুজুল হক ও কোপেনহেগেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক ড. নিল ও জি জরজেনসন এর তত্ত্বাবধানে শেখ রাজিবুল ইসলাম গত ৩ বছর ধরে এ গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছেন।

সেমিনারে শেখ রাজিবুল ইসলাম বলেন, বাংলাদেশের পাঙ্গাস মাছের ওপর গবেষণা করে দেখা গেছে মাছের দুর্গন্ধের পেছনে মূলত পুকুরের পানির গুনগত মান এবং মাছের মাংসের হলুদ রং এর জন্য দায়ী মাছের খাদ্যের উপকরণ।

মাছের খাবারের মধ্যে থাকা জিয়াজেনথেন এবং লুটেইন নামক দুটি রাসায়নিক উপাদান মূলত হলুদ রংয়ের জন্য দায়ী। এ তথ্যের ভিত্তিতে বাকৃবিতে গবেষণা পুকুরে পানির সঠিক মান নিয়ন্ত্রণ এবং বিভিন্ন রকমের খাদ্য উপকরণ ব্যবহার করে একটি গবেষণা করা হয়।

গবেষণার ফলাফলের ভিত্তিতে খুব শীঘ্রই গুণগতমান সমৃদ্ধ পাঙ্গাস মাছ উৎপাদন এবং বহির্বিশ্বে রপ্তানি সম্ভব হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

ঢাকাটাইমস/১৪অক্টোবর/প্রতিনিধি/ওআর

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

শিক্ষা বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :