মানসিক ভারসাম্যহীন প্রসূতি মায়ের দায়িত্ব নিলেন ইউএনও

এরশাদ সাগর, বোয়ালমারী (ফরিদপুর)
 | প্রকাশিত : ২৫ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৮:৪৬

ফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মুহাম্মাদ জাকির হোসেনের মহানুভবতায় একজন মানসিক ভারসাম্যহীন প্রসূতি মায়ের সুচিকিৎসার ব্যবস্থা হয়েছে। হাসপাতালে তার নরমাল বা সিজারের মাধ্যমে সন্তান প্রসবের ব্যবস্থাসহ অভিভাবকের দায়িত্বও নিয়েছেন ইউএনও।  

উপজোলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. তাপস বিশ্বাস মঙ্গলবার বিকালে বলেন, ‘অভিভাবকহীন ওই মানসিক ভারসাম্যহীন প্রসূতি মা হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। তার অনেক আগেই নরমাল ডেলিভারির সময় শেষ হয়ে গেছে। এখন বাচ্চা পেটে নড়াচড়া করছে। আজ সন্ধ্যা  পর্যন্ত নরমাল ডেলিভারির জন্য দেখব। নরমালে না হলে রাতে সিজার করব। ইউএনও আমাকে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন।’  

পৌর সদরের দক্ষিণ শিবপুর এলাকা থেকে গত সোমবার ওই মাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্রা হাসপাতালে ভর্তি করেন কয়েকজন তরুণ সংস্কৃতিকর্মী। তারা সকলেই  বেকার ও ছাত্র। চিকিৎসক দ্রুত সিজারের পরামর্শ দিলেও হাসপাতালে সে ব্যবস্থা না থাকায় বিপাকে পড়ে যান সংস্কৃতিকর্মীরা। তারা যোগাযোগ করে উপজেলার এক ক্লিনিক মালিককে প্রসূতি মায়ের সিজারে রাজি করাতে পারলেও ডাক্তার ও ওষুধের খরচ সরবরাহ করতে বলেন।
ছাত্ররা অন্য ডাক্তারদের কাছেও ছুটে যান। কেউ সিজার করতে রাজি না হলেও এগিয়ে আসেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. তাপস বিশ্বাস। তিনি বিনা পয়সায় সিজারে রাজি হয়ে বলেন, ‘কিন্তু কাউকে না কাউকে অভিভাবকের দায়িত্ব নিতে হবে। তা না হলে আইনগত সমস্যায় পড়তে হবে।’
অবশেষে বিভিন্ন মাধ্যমে ওই ছাত্ররা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার দ্বারস্ত হন। তিনি বিষয়টি শুনেই মানসিক ভারসাম্যহীন প্রসূতি মায়ের দায়িত্ব নেন এবং ডা. তাপস বিশ্বাসকে সিজারসহ যাবতীয় ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ জানান।

উদ্ধারকারী ছাত্র গাজী রাহাতুজ্জামান সেতু বলেন, ‘বেশ কিছুদিন ধরে আমাদের মহল্লার বিভিন্ন রাস্তায় মানসিক ভারসাম্যহীন ওই প্রসূতি মাকে ঘোরাঘুরি করতে দেখেছি। সোমবার সকালে আর্তনাদ শুনে মানবিক মূল্যেবোধ থেকে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করি। তার চিকিৎসায় বিভিন্ন জায়গায় আমরা কয়েকজন দৌড়াদৌড়ি করি। অবশেষে ইউএনও দায়িত্ব নেন। আমরাও তার সাহায্য-সহযোগিতায় রয়েছি।’

ইউএনও মুহাম্মাদ জাকির হোসেন বলেন, ‘যেহেতু কোনো অভিভাবক নেই, তাই আমিই তার অভিভাবক।’

(ঢাকাটাইমস/২৫ডিসেম্বর/প্রতিবেদক/এআর)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :