রাঙামাটি আসনে ফল বাতিলের দাবি উষাতনের

রাঙামাটি প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ০১ জানুয়ারি ২০১৯, ২০:৩৭

নির্বাচনে নজিরবিহীন কারচুপি, ভোটকেন্দ্র দখল, ভোটারদের বাধা প্রদান, মারধরসহ নানান অভিযোগ এনে ঘোষিত ফলাফল প্রত্যাখ্যান ও তা বাতিলের দাবি করেছেন  রাঙামাটির ২৯৯ আসনের জনসংহতি সমিতির সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থী  উষাতন তালুকদার। দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি এই আসন থেকে বিজয়ী হয়েছিলেন।

মঙ্গলবার রাঙামাটি শহরের একটি রেস্টুরেন্টে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এই দাবি করেন উষাতন। এসময় নির্বাচনকালীন আটককৃতদের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেন তিনি। না হলে পার্বত্য চট্টগ্রামে যেকোনো অনাকাক্সিক্ষত পরিস্থিতির জন্য নির্বাচন কমিশন দায়ী থাকবে বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন সন্তু লারমার নেতৃত্বাধীন জনসংহতির এ শীর্ষ নেতা।

এ সময়  জনসংহতি সমিতির কেন্দ্রীয় নেতা সৌখিন চাকমা, সাথোয়াই মারমা, তার নির্বাচনী প্রধান এজেন্ট উদয়ন ত্রিপুরা, সমিতির জেলা সহ-সভাপতি কিশোর কুমার চাকমা, সাধারণ সম্পাদক নিলোৎপল খীসা, পার্বত্য চট্টগ্রাম মহিলা সমিতির  জড়িতা চাকমাসহ অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সন্মেলনে উষাতন তালুকদার অভিযোগ করে বলেন, নির্বাচনের দিনে প্রশাসন, নির্বাচন কমিশন, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী, নিরাপত্তা বাহিনী, তাতিন্দ্র লাল ও সুদর্শন চাকমার  নেতৃত্বাধীন সংস্কারপন্থীদের সহায়তায় রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা ব্যবহার করেন আওয়ামী লীগের কর্মীরা। তারা লংগদুর ১৭টি, বাঘাইছড়ির ১৭টি, কাপ্তাইয়ের ৬টি, কাউখালী ১৩টি, নানিয়ারচর উপজেলার দুটিসহ ৫৮টি ভোটকেন্দ্র থেকে পোলিং এজেন্টদের বের করে দেয়। এই অনিয়ম ও কারচুপির বিষয়ে প্রশাসনকে জানানো হলেও কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। নির্বাচনের দিনে লংগদু উপজেলা ও বাঘাইছড়িতে তার প্রায় ৭০ জন কর্মী আহত হয়েছেন বলে দাবি করেন।

নজিরবিহীন ভোট ডাকাতির নির্বাচন কখনো গ্রহণযোগ্য হতে পারে না মন্তব্য করে উষাতন বলেন, ‘রাঙামাটি জেলাবাসীর সংবিধানস্বীকৃত ভোটাধিকার জোর করে কেড়ে নেয়া হয়েছে। এ ফলাফল রাঙামাটিবাসী কখনও গ্রহণ করবে না।’

(ঢাকাটাইমস/১জানুয়ারি/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :