দুদকের মামলার জালে মতলবের ছয় নেতা

শওকত আলী, চাঁদপুর
 | প্রকাশিত : ২২ জানুয়ারি ২০১৯, ১২:৩৩

দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার ছয় নেতার বিরুদ্ধে ৫৩০ কোটি টাকা দুর্নীতির মামলা হয়েছে। গত ২৭ ডিসেম্বর এই মামলা করা হয়। মামলাটির তদন্ত চলছে। তাই অভিযোগকারীদের নাম গোপন রাখা হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়।

মামলার অভিযোগের তথ্যমতে, চাঁদপুর জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান ও মতলব উত্তর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম হাওলাদার ১০০ কোটি টাকা, মোহনপুর ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ নেতা বোরহান খালাশী ১০০-১২০ কোটি টাকা, মোহনপুর গ্রামের আহার মিয়া খালাশী ১০০-১২০ কোটি টাকা, ফরাজীকান্দি ইউপির চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন দানেশ ৪০-৫০ কোটি টাকা, মোহনপুর ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি শাহীন খালাশী ৭০-৮০ কোটি টাকা ও ছেঙ্গারচর পৌরসভার প্যানেল মেয়র রুহুল আমিন মোল্লা ৫০-৬০ কোটি টাকা দুর্নীতি করেছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, অভিযুক্ত ব্যক্তিরা রাজনৈতিকভাবে প্রভাবশালী। মামলার এজাহারে যেসব বিষয় এসেছে, তাতেও তার প্রতিফলন রয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ করা হয়েছে, তার মধ্যে আছে মতলব উত্তর উপজেলার ষাটনল, বাহাদুরপুর, দশআনি, মোহনপুর, এখলাছপুর, জহিরাবাদ ও আমিরাবাদ এলাকায় নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করা। এ কারণে হাজার হাজার ফসলি জমি ও শত শত বসতবাড়ি নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে। অভিযুক্ত ব্যক্তিরা অবৈধভাবে নদী থেকে বালু উত্তোলনের মাধ্যমে শত শত কোটি টাকার মালিক হয়েছেন। তাদের কেউ কেউ উপজেলার ছেঙ্গারচর বাজারে খাসজমি দখল করে দোকান বানিয়ে বিক্রি করেছেন। এর মাধ্যমে কোটি কোটি টাকার মালিক হন। কেউ কেউ ইয়াবার মতো মাদকের ব্যবসার সঙ্গে জড়িত বলেও অভিযোগ করা হয়।

এদিকে বোরহান খালাশী বাহেরচর এলাকায় কৃষকদের জমি দখলেও জড়িত অভিযুক্তদের কেউ কেউ। তাদের মধ্যে জাহাঙ্গীর আলম হাওলাদার একটি বিদ্যালয়ের শিক্ষক। তিনি এখন কোটি কোটি টাকার মালিক। অভিযুক্ত ব্যক্তিরা নামে-বেনামে রাজধানীর টিকাটুলী, শান্তিনগর ও ডেমরা এলাকায় একাধিক বাড়ি ও ফ্ল্যাট কিনেছেন।

যে ছয়জনের নামে দুদকে দুর্নীতির মামলা হয়েছে, এ বিষয়ে জানতে ঢাকা টাইমস তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে। তারা দুর্নীতির অভিযোগ অস্বীকার করেন। তাদের দাবি, অভিযোগ ভিত্তিহীন। বিষয়টি নিয়ে তারা আইনের পথ অনুসরণ করবেন।

একই প্রসঙ্গে অভিযুক্ত জাহাঙ্গীর আলম হাওলাদার ঢাকা টাইমসকে বলেন, ‘আমার নামে দুদকে মামলা হয়েছে, এ বিষয়টি আমি জানি না। কে বা কারা মামলা করেছে, তা-ও জানি না।’

এই মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মতলব উত্তর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) জসিম উদ্দিন ঢাকা টাইমসকে বলেন, মামলার তদন্ত চলছে। তা যথাযথভাবে চলছে বলে তিনি দাবি করেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত