ইবিতে তিন দিনব্যাপী একুশে বই মেলা

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৯:১০

অমর একুশে ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস-২০১৯ উপলক্ষে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে শুরু হয়েছে তিন দিনব্যাপী বইমেলা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা মঞ্চ সংলগ্ন আমবাগানে মঙ্গলবার সকাল ১১টায় ফিতা কেটে মেলার উদ্বোধন করেন উপাচার্য ড. মো: হারুন-অর-রশিদ আসকারী। 

অনুষ্ঠান শেষে বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান মিলনায়তনে দুপুর ১২টায় 'ভাষা ভাবনায় রবীন্দ্র-নজরুল' শীর্ষক প্রথম দিনের আলোচনা সভা  হয়। উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. শাহীনুর রহমানের সভাপতিত্বে ও ভূমিআইন ও ব্যবস্থাপনা বিভাগের প্রভাষক সাহিদা আক্তার আশার সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. হারুন-অর-রশিদ আসকারী।

প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট কথাসাহিত্যিক ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের অধ্যাপক হাসান আজিজুল হক। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইবি ট্রেজারার প্রফেসর ড. মো. সেলিম তোহা, ইবির বঙ্গবন্ধু চেয়ার প্রফেসর ও বাংলা একাডেমির সাবেক মহাপরিচালক অধ্যাপক শামসুজ্জামান খান।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ড. রাশিদ আসকারী বলেন, বাঙালির হৃদয়ে রবীন্দ্রনাথ, চেতনায় নজরুল। পৃথিবীর বিখ্যাত ভাষাবিদদের মতে ফরাসি ভাষার পরে বাংলা হচ্ছে সবচেয়ে শ্রুতিমধুর ভাষা। বাংলা আমাদের মায়ের ভাষা, প্রেমের ভাষা, কবিতার ভাষা। এই ভাষায় সামাজিক, রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক প্রয়োজনে দ্রোহের অস্ত্র হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছিল। ১৯১৩ সালে রবি ঠাকুরের নোবেল প্রাপ্তির মাধ্যমে বাংলা ভাষা প্রথম বিশ্বে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছিল। পৃথিবীর প্রায় ৩০০ মিলিয়ন মানুষ বর্তমানে বাংলা ভাষায় কথা বলে। তাই অত্যন্ত যৌক্তিক কারণে বাংলা জাতিসংঘের দাপ্তরিক ভাষা হওয়ার যোগ্যতা রাখে।

প্রধান বক্তার বক্তব্যে হাসান আজিজুল হক বলেন রবীন্দ্রনাথ এবং নজরুল সর্বমানবের। আমাদের বাঙালিদের নিঃশ্বাস প্রশ্বাসে তারা মিশে আছেন। বিচিত্র পৃথিবী, মানুষ জীবনের বৈচিত্রতা এসবই রাবিন্দ্রিক চিন্তার অংশ। আর আমাদের বাঙালিত্বের শ্রেষ্ঠ প্রকাশ হচ্ছে নজরুল।

 

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক ড. মিয়া মো. রাশেদুজ্জামান, ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক ড. মো. মাহাবুবুল আরেফিন। অন্যান্যদের মধ্য উপস্থিত ছিলেন সিন্ডিকেট সদস্য অধ্যাপক ড. মাহাবুবুর রহমান, অধ্যাপক ড. তপন কুমার জোয়ার্দ্দার, ছাত্র উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. পরেশ চন্দ্র বর্মণ, ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর ড. আনিসুর রহমান, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. নাসিম বানু, আইন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. রেবা মন্ডলসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমের সাংবাদিক ও শিক্ষার্থীবৃন্দ। আলোচনা শেষে বাংলা মঞ্চে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

বইমেলা আগামী ২১ তারিখ সমাপ্ত হবে। প্রতিদিনই থাকছে আলোচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

ঢাকাটাইমস/১৯ফেব্রুয়ারি/ইএস

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :