ঘুষের পাঁচ লাখ টাকাসহ গ্রেপ্তার

নৌ প্রকৌশলী নাজমুলের বিচার শুরু

আদালত প্রতিবেদক, ঢাকা টাইমস
 | প্রকাশিত : ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ২০:১৮

নৌপরিবহন অধিদপ্তরের সেই প্রধান প্রকৌশলী ড. এস এম নাজমুল হকের বিরুদ্ধে ঘুষের পাঁচ লাখ টাকাসহ হাতেনাতে গ্রেপ্তার হওয়ার মামলায় অভিযোগ (চার্জ) গঠনের মাধ্যমে বিচার শুরু করেছেন আদালত। আগামী ৭ এপ্রিল মামলাটির সাক্ষ্যগ্রহণ শুরুর দিন ধার্য করা হয়েছে।

মঙ্গলবার ঢাকার ৬ নম্বর বিশেষ জজ ড. শেখ গোলাম মাহবুবের আদালত এ আদেশ দেন।
শুনানিকালে এস এম নাজমুল হককে কারাগার থেকে আদালতে হাজির করা হয়। তার পক্ষে আইনজীবী মোহাম্মদ মশিউর রহমান ও শাহিন আহম্মেদ আসামির অব্যাহতি চেয়ে শুনানি করেন। অন্যদিকে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) পক্ষে প্রসিকিউটর মাহমুদ হোসেন জাহাঙ্গীর চার্জগঠনের পক্ষে শুনানি করেন।
 
উভয়পক্ষের শুনানি শেষে অভিযোগ গঠন করে আদালত নাজমুল হকের কাছে তিনি দোষী না নির্দোষ জানতে চান। তিনি নিজেকে নির্দোষ দাবির করার পর আদালত সাক্ষ্যগ্রহণের দিন ধার্য ঠিক করেন।

গত বছরের ১২ এপ্রিল রাজধানীর সেগুনবাগিচায় সেগুন রেস্তোরাঁ থেকে এস এম নাজমুল হককে ঘুষের ৫ লাখ টাকাসহ হাতেনাতে গ্রেপ্তার করে দুদকের পরিচালক নাসিম আনোয়ারের নেতৃত্বাধীন একটি দল। ১৯ এপ্রিল আদালতের অনুমোদনে আসামিকে একদিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ।

গত বছরের ১৩ আগস্ট আদালত জামিন মঞ্জুর করলে তিনি কারামুক্ত হন। পরে দুদকের আবেদনে গত ১৫ জানুয়ারি হাইকোর্ট বাতিল করে এক সপ্তাহের মধ্যে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারিকারী বিচারিক আদালতে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দেন।  গত ২৮ জানুয়ারি তিনি আত্মসমর্পণ করলে একই আদালত তাকে কারাগারে পাঠান।

গত বছরের ১৮ অক্টোবর দুদকের সহকারী পরিচালক মো. আবদুল ওয়াদুদ আসামির বিরুদ্ধে মামলাটির চার্জশিট দাখিল করেন।

মামলায় আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগে বলা হয়, মেসার্স সৈয়দ শিপিং লাইনসের যাত্রীবাহী নৌযান এমভি প্রিন্স অব সোহাগের রিসিভ নকশা অনুমোদন এবং নতুন নৌযানের নামকরণের অনাপত্তিপত্রের জন্য নাজমুল হক ১৫ লাখ টাকা ঘুষ দাবি করেন। বিষয়টি দুর্নীতি দমন কমিশনকে অবহিত করা হলে দুদক সকল বিধি-বিধান অনুসরণ করে কমিশনের ঢাকা বিভাগীয় কার্যালয়ের পরিচালক নাসিম আনোয়ারে নেতৃত্বে ফাঁদ মামলা পরিচালনার অনুমতি দেয়। ১২ এপ্রিল বিকাল পৌনে ৬টায় ঘুষের টাকার কিস্তি বাবদ ৫ লাখ টাকা রাজধানীর সেগুন হোটেলে বসে যখন নাজমুল হক গ্রহণ করছিলেন, ঠিক তখনই ওঁত পেতে থাকা দুদকের বিশেষ দলের সদস্যরা ঘুষের টাকাসহ তাকে হাতেনাতে গ্রেপ্তার করেন। এরপর রাজধানীর রমনা মডেল থানায় দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয় ঢাকা-১ এর সহকারী পরিচালক আবদুল ওয়াদুদ বাদী হয়ে মামলাটি করেন।

(ঢাকাটাইমস/১৯ ফেব্রুয়ারি/জেডআর/এআর)

সংবাদটি শেয়ার করুন

আদালত বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :