লিভারপুলকে রুখে দিল বায়ার্ন

ক্রীড়া ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০৫:২৬

ইউরোপিয়ান প্রতিযোগিতায় ঘরের মাঠে জার্মান ক্লাবের বিপক্ষে অপরাজিত থাকার রেকর্ডটা অক্ষুণ্ন থাকল লিভারপুলের। এরপরও হতাশ দলটি। মঙ্গলবার রাতে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ষোলোর প্রথম লেগে বায়ার্ন মিউনিখের সঙ্গে যে গোলশূন্য ড্র করেছে তারা। প্রতিপক্ষের মাঠে একটা গোল পেলে দারুণ কাজে দিত বায়ার্নের। সেটি না পাওয়ায় কিছুটা আফসোস থাকবে তাদেরও। কোয়ার্টার ফাইনালের টিকিটের জন্য দুদলই এখন তাকিয়ে থাকবে ১৩ মার্চের ফিরতি লেগের দিকে।

চলতি মৌসুমে আনফিল্ডে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের গ্রুপ পর্বের প্রতিটি ম্যাচেই জিতেছে লিভারপুল। বায়ার্নের বিপক্ষেও জয়ের আশা নিয়েই খেলতে নামে ইয়ুর্গেন ক্লপের দল। কিন্তু বাভারিয়ানদের শক্তিশালি রক্ষণভাগে চির ধরাতে পারেননি সাদিও মানে-মোহাম্মদ সালাহরা।

প্রথমার্ধে ডি-বক্সের ভেতরে সুবিধাজনক অবস্থানে বল পেয়ে গোল করতে পারেননি মানে। বল মেরে দেন গোলপোস্টের বাইরে দিয়ে। এরপর রবার্তো ফিরমিনোর ক্রস ছয় গজ দূর থেকে জালে জড়াতে ব্যর্থ হন জোয়েল মাটিপ। উল্টো বায়ার্নকে প্রায় আত্মঘাতি গোল উপহার দিয়ে বসেছিলেন তিনি। গোলরক্ষক অ্যালিসনের কল্যাণে সে যাত্রায় রক্ষা পায় লিভারপুল।

দ্বিতীয়ার্ধে রক্ষণভাগ আরও শক্তিশালি করে বায়ার্ন। এই অর্ধেও লিভারপুলকে গোলবঞ্চিত রাখতে সক্ষম হয় তারা। ম্যাচের ৮৫তম মিনিটে মানে হেড দারুণ ক্ষীপ্রতায় রুখে দিয়ে অতিথিদের পরাজয়ের হাত থেকে বাঁচান জার্মান গোলরক্ষক ম্যানুয়েল ন্যায়ার।

আনফিল্ডের ড্র যেন ১৯৮১ সালের ইউরোপিয়ান কাপের সেমিফাইনালকে মনে করিয়ে দিল। সেবার ঘরের মাঠে প্রথম লেগে বায়ার্নের সঙ্গে গোলশূন্য ড্র করেছিল লিভারপুল। ফিরতি লেগটাও ১-১ গোলে ড্র হয়। তবে অ্যাওয়ে গোলের সুবিধা নিয়ে ফাইনালে ওঠে যায় ইংলিশ ক্লাবটি। দেখা যাক, এবার কি হয়।

(ঢাকাটাইমস/২০ ফেব্রুয়ারি/ এবিএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

খেলাধুলা বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :