রাজ্জাক ভবনের বাইরে শুধুই আহাজারি

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১০:১৭ | প্রকাশিত : ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১০:০৯

পুরান ঢাকার চকবাজার এলাকায় রাজ্জাক ভবনে লাগা ভয়াবহ আগুনে এখনও পর্যন্ত ৭০ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। ভবনের ভেতরে আটকা পড়ে আছে আরও অনেক মানুষ, যাদের বেঁচে থাকার আশা অনেকটা ক্ষীণ। মৃতের এই সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছেন স্থানীয় লোকজন ও দায়িত্বরত ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা।

আগুনে পুড়ে দগ্ধ অর্ধশতাধিক ব্যক্তিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছেন। পুড়ে মারা যাওয়া লাশগুলোর অবস্থা এমন হয়েছে যে কোনো স্বজনই তাদের আপনজনকে শনাক্ত করতে পারছেন না। তাই একবার তারা ঢাকা মেডিকেলে এবং আরেকবার রাজ্জাক ভবনের সামনে এসে জড়ো হচ্ছেন।

গোটা চকবাজার এলাকাজুড়ে এখন শুধু আহাজারি এবং স্বজন হারানোর আর্তনাদ। বাইরে অপেক্ষারত স্বজনদের কেউই জানেন না তাদের পরিচিতজন বেঁচে আছেন নাকি আগুনে পুড়ে কয়লা হয়ে গেছেন। ভবনের ভেতরে যারা আটকা পড়ে আছেন তাদের উদ্ধারে এখনও চেষ্টা চালাচ্ছে ফায়ার সার্ভিস।

দায়িত্বে থাকা ফায়ার সার্ভিসের সদরদপ্তরের ডেপুটি অ্যাসিসটেন্ট ডিরেক্টর তারেক হাসান সাংবাদিকদের জানান, রাত পৌনে ১১টার দিকে তারা আগুন লাগার খবর পান। রাত থেকে ফায়ার সার্ভিসের ৩৭টি ইউনিট সেখানে কাজ করছে। পাশাপাশি হেলিকপ্টার থেকেও আগুনের উপর থেকে পানি দেয়া হয়। সকাল ১০টার এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত আগুন অনেকটা নিয়ন্ত্রণে এসেছে। তবে এখনো ভবনটি থেকে ধোঁয়া বের হতে দেখা যাচ্ছে।

স্থানীয়রা জানান, চুড়িহাট্টা মসজিদের পাশে প্রয়াত ওয়াহিদ চেয়ারম্যানের চার তলা ভবনটিতে প্রথমে আগুন লাগে। তারপর তা পাশের রাজমনি নামে একটি রেস্তোরাঁ এবং সরু রাস্তার উল্টো দিকের তিনটি ভবনে ছড়ায়। এছাড়া সেখানকার দোকানগুলোতে রাসায়নিক ও দাহ্য পদার্থ থাকায় আগুন দ্রুত চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে।

ঘটনার সময় খানিকটা দূরেই দাঁড়িয়ে ছিলেন হায়দার বক্স লেনের বাসিন্দা বাশার। তিনি জানান, হঠাৎই বিকট একটা বিস্ফোরণের শব্দ তার কানে আসে। সে সময় তিনি একটি প্রাইভেটকারকে ছিটকে উপরের দিকে উঠে যেতে দেখেন।

ওই সময় রাজমনি হোটেলের সামনের রাস্তায় কয়েকটি গ্যাস সিলিন্ডার রাখা ছিল। ট্রান্সফর্মার বিস্ফোরণের পর ওই গ্যাস সিলিন্ডারেও আগুন ধরে যায়। পরে ভবনে ও রাস্তায় আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। এসময় দিগ্বিদিক ছোটাছুটি করার ফলে আগুনে দগ্ধ হয়ে বেশ কয়েকজন রাস্তাতেই মারা যায়।

ঢাকাটাইমস/২১ ফেব্রুয়ারি/এএইচ/এমআর

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :