দুই সন্তানের জীবন কঠিন করে চলে গেলেন ঢাবি শিক্ষার্থী কাউছার

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৪:৫২ | প্রকাশিত : ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৩:২৮

পুরান ঢাকার চকবাজারে আগুনে নিহতদের একজন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী কাউছার আহমেদ। পড়াশোনার পাশাপাশি ব্যবসা করতেন তিনি। চকবাজার শাহী জামে মসজিদ এলাকার আল-মদিনা ফার্মেসীর স্বত্বাধিকারী ছিলেন তিনি। কুমিল্লার হোমনা উপজেলার ছেলে কাউছার দোকানটির আয় দিয়ে নিজের পড়ালেখার খরচ চালাতেন। পাশাপাশি পরিবারের ভরণপোষণের ভারও নিজের কাঁধে নিয়েছিলেন।

বুধবার রাতে চকবাজারে প্রথম যে চারতলা ভবনে আগুন লাগে, তার উল্টোদিকের ভবনে কাওসারের আল মদিনা মেডিকেল। আগুন ওই ভবনেও ছড়িয়েছিল। ভয়াবহ আগুনে পুড়ে মারা গেছেন কাউছার। তার ফার্মেসিও ছাই হয়ে গেছে আগুনের লেলিহান শিখায়। সঙ্গে দোকানের চিকিৎসকও মারা গেছেন। অগ্নিকাণ্ডে নিহত ৬৭ জনের লাশ ঢাকা মেডিকেল কলেজ মর্গে রয়েছে। সেখানে গিয়ে সকালে লাশ শনাক্ত করেন কাউসারের দুই ভাই, মা এবং স্ত্রী।

কাওসার ছিলেন বিবাহিত। তার দুটি সন্তান রয়েছে। এরা জমজ।  এখনো শৈশবের গণ্ডি পার হয়নি। তার আগেই পিতৃহারা হলো তারা। এদের একজনের নাম আবদুল্লাহ বলে তাৎক্ষণিকভাবে জানা গেছে।

কাউসারের ভাই ইলিয়াস জানান, তাদের বাড়ি কুমিল্লা জেলার হোমনা থানায়। তারা সপরিবারে পুরান ঢাকায় থাকতেন। আগুনে কাওসারের মেডিকেল হলে অবস্থানকারী ছয়জন মারা গেছে বলে জানান ইলিয়াস।

ইলিয়াস জানান, তাদের মধ্যে দুই চিকিৎসকের একজনের নামইমতিয়াজ ইমরোজ রাসু এবং অন্যজনের নাম আশরাফুল। তারা দুজনই বাংলাদেশ ডেন্টাল কলেজ থেকে সম্প্রতি পাস করে সেখানে প্রাইভেট প্র্যাকটিস করতেন।

সেখানে চিকিৎসা নিতে গিয়ে সোহরাওয়ার্দী কলেজ থেকে সদ্য একাউন্টিংয়ে মাস্টার্স পাস করা কাজী এনামুল হক নিহত হন।

এনামুল হকের ভাই চকবাজারের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী কাজী ইউসুফ তার পরিচয় নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, গতকাল রাতেও সেখানে ডাক্তার দেখাতে গিয়েছিলেন তিনি।

হাজী বাল্লু রোডের একটি মেসে থাকতেন এনামুল। তাদের বাড়ি পটুয়াখালীতে। কাজী ইউসুফ বলেন, রাতে খোঁজাখুজি করেছি, পাইনি। ভোরে চলে গিয়েছিলাম। সকালে এসে লাশ খুঁজে পেয়েছি।

কাজী ইউসুফ জানান, তারা মরদেহ পাওয়ার জন্য অপেক্ষা করছেন। ময়নাতদন্ত হওয়ার পর মরদেহ পটুয়াখালীতে নিয়ে যাবেন।

ঢাকাটাইমস/২১ফেব্রুয়ারি/টিএ/ডব্লিউবি

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :