পশ্চিমবঙ্গে রক্তাক্ত কাশ্মিরী যুবক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৫:০৮ | প্রকাশিত : ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৪:৫৯

আলোআঁধারে মোবাইল ফোনে তোলা অস্পষ্ট ভিডিও। কলাপসিবল গেটের ওপারে থাকা যুবকের নাকমুখ থেকে রক্ত ধরছে। ভারতের উগ্র হিন্দুরা ‘দেশভক্তি’র জিগির তোলা তাকে গালি দিতে দিতে বলছিল, ‘বল বন্দেমাতরম, বল ভারতমাতা কি জয়।’

পশ্চিমবঙ্গের নদিয়ার তাহেরপুরে গত ১০ বছর ধরে শাল বিক্রির সূত্রে যাতায়াত কাশ্মীরের বদগামের বাসিন্দা জাভেদ আহমেদ খানের। এলাকার বহু মানুষের সঙ্গে চেনাশোনা, বন্ধুত্ব। একটি দোকানঘর রয়েছে তাদের, আছে ভাড়াবাড়িও। কোনও দিন নিরাপত্তার অভাব বোধ করেননি।

সোমবার রাত ৯টার দিকে মারমুখী কিছু লোক ১৭ নম্বর রাস্তার ধারে তাদের ওই ভাড়াবাড়িতে হামলা চালায়। মেরে নাক-মুখ ফাটিয়ে দেওয়া সেই আক্রমণের ভিডিও ভাইরাল হয়ে ছড়িয়ে পড়ে মঙ্গলবার। তার পরেও বুধবার জাভেদ কিন্তু আনন্দবাজারকে বললেন, ‘জানি মুষ্টিমেয় কিছু লোক বিদ্বেষ ছড়াতে এসব করছে। এতে ভয় পাব না। পশ্চিমবঙ্গের মানুষের ওপরে পূর্ণ আস্থা রয়েছে আমাদের।’

মঙ্গলবার রাতে জাভেদের ওপরে যখন হামলা হয়, তখন এলাকারই কিছু লোক পুলিশকে জানিয়েছিলেন। ঘণ্টাখেনক পরে পুলিশ এসে উদ্ধার করে জাভেদ আর তার খালাতো ভাই মেহরাজউদ্দিনকে। তাদের আপাতত একটি নিরাপদ জায়গায় রাখা হয়েছে। ইতোমধ্যে গ্রেপ্তারও করা হয়েছে একজনকে, যদিও পুলিশ তার পরিচয় জানাতে চায়নি। বাকিদের সন্ধান চলছে বলে জানিয়েছেন নদিয়ার পুলিশ সুপার রূপেশ কুমার।

গোপন আবাস থেকে মানুষের শুভবুদ্ধির ওপরেই আস্থা রেখেছেন জাভেদ। ভাঙা ভাঙা হিন্দিতে তিনি বলেন, ‘এত দিন এখানে ব্যবসা করছি আমরা। এখানকার মানুষের এত ভালোবাসা পেয়েছি। যারা এসেছিল তারা আমার পরিচিত নয়। ভয় পেয়ে চলে যাওয়ার প্রশ্নই নেই।’

এই আস্থাই দেশপ্রেমিকের ভেকধারীদের রুখে দেওয়ার অন্যতম অস্ত্র বলে মনে করছেন শান্তিকামী নাগরিকেরা। পুলওয়ামায় জঙ্গি হামলার পর থেকে দেশের বিভিন্ন অংশের সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন প্রান্তে কাশ্মীরিদের ওপরে হামলা চালাচ্ছে কিছু মানুষ।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই বিদ্বেষ রুখতে কড়া বার্তা দিয়েছেন।

কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লাহ মমতার প্রশংসা করে বলেছেন, ‘পশ্চিমবঙ্গে কাশ্মীরি যুবকের ওপর হামলার ঘটনায় দিদির সরকার দ্রুত ব্যবস্থা নিয়েছে। আমি তার প্রতি কৃতজ্ঞ।’

(ঢাকাটাইমস/২১ফেব্রুয়ারি/এসআই)

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :