ঢাকাসহ পাঁচ জেলায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ৫

ঢাকাটাইমস ডেস্ক
| আপডেট : ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১২:৪৭ | প্রকাশিত : ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১০:৩৫

রাজধানীর যাত্রাবাড়ি, ময়মনসিংহ, টেকনাফ, খুলনা ও কুমিল্লায় কথিত বন্দুকযুদ্ধে পাঁচজন নিহত হয়েছেন। নিহত পাঁচজেনের মধ্যে একজন মাদক সম্রাট, একজন ইয়াবা বিক্রেতা,  এককজন মাদক বিক্রেতা, একজন অস্ত্র ছিনতাই মামলার চিহ্নিত আসামি অপরজন ডাকাত বলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী জানিয়েছে।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ভাষ্য, বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ও শুক্রবার ভোরে পৃথক বন্দুকযুদ্ধে তারা মারা যান। ঢাকাটাইমসের নিজস্ব প্রতিবেদক ও জেলা প্রতিবেদকরা এ তথ্য জানিয়েছেন।  

যাত্রাবাড়ী

রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থানার দয়াগঞ্জ এলাকায় পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে হজরত নামের এক মাদক সম্রাট নিহত হয়েছেন।

যাত্রাবাড়ী থানার উপপরিদর্শক সুব্রত বলেন,  বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত তিনটার  দিকে দয়াগঞ্জের পোড়াবস্তি এলাকায় পুলিশ হজরতকে ধরতে গেলে তার সহযোগীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোঁড়ে।

আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়। এতে হজরত ও দুই পুলিশ সদস্য আহত হন।গুরুতর আহত অবস্থায় হজরতকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নেয়া হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক ভোর চারটার দিকে হজরতকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত হজরতের বাবার নাম আশরাফ। তার বিরুদ্ধে রাজধানীর বিভিন্ন থানায় ৪০ টির মত মামলা রয়েছে। এসব মামলায় তার বিরুদ্ধে আটটি গ্রেপ্তারি পরোয়ানা ছিল।

আহত দুই পুলিশ সদস্যদের রাজারবাগ কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালের চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়েছে।

কুমিল্লা

কুমিল্লার তিতাসে ডিবি ও থানা পুলিশের সঙ্গে  বন্দুকযুদ্ধে মো. আল-আমিন নামে এক ডাকাত নিহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার গভীর রাতে জেলার তিতাস উপজেলার দড়িকান্দি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত আল-আমিন ওই উপজেলার জিয়ারকান্দি ইউনিয়নের নয়াগাঁও গ্রামের মাঈনুদ্দিনের ছেলে।

পুলিশ জানায়, দাউদকান্দির গৌরীপুর বাজারের রিয়াজ ট্রেড এর ৫জন সেলসম্যান সিএনজি অটোরিকশায় করে বৃহস্পতিবার সকালে টাকা নিয়ে হোমনা যাচ্ছিলেন। পথে গৌরীপুর-হোমনা সড়কের তিতাস উপজেলার দড়িকান্দি সেতু অতিক্রম করার সময় আগে থেকে ওঁৎপেতে থাকা একদল ছিনতাইকারী  অটোরিকশার গতিরোধ করে।

এ সময় অস্ত্রের মুখে তাদের কাছ থেকে বিকাশ ডিলারের ৫৮লাখ টাকা লুটে নেয়। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় বিভিন্নস্থানে অভিযান চালিয়ে ওই চক্রের আল আমিন ডাকাতসহ সদস্যকে ১৫ লাখ টাকাসহ আটক করে পুলিশ।

এ ঘটনায় দায়েরকৃত মামলা তদন্তে নামেন ডিবির এসআই সহিহদুল ইসলাম। বৃহস্পতিবার রাতে গ্রেপ্তার আল-আমিনকে সঙ্গে নিয়ে জেলা ডিবি পুলিশ ও তিতাস থানা পুলিশ অবশিষ্ট টাকা এবং অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে অভিযানে নামে। রাত পৌনে ৪টার দিকে কুমিল্লা ডিবির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাছির উদ্দিন মৃধার নেতৃত্বে ডিবির এসআই সহিদুল ইসলামসহ ডিবির একটি দলি এবং থানা পুলিশের একটি দল তিতাসের দড়িকান্দি নামক এলাকায় পৌঁছালে একদল ডাকাত গাড়িতে হামলা

চালিয়ে আটক আল-আমিনকে ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা চালায়। তার পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়। এসময় পুলিশ আত্মরক্ষার্থে থানা ও ডিবি পুলিশ গুলি ছুড়লে ডাকাতদল পালিয়ে যায়।

গুলি বিনিময়ের সময় ডাকাতদের একটি গুলি লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়ে আল-আমিন বুকে লাগে। এতে তিনি গুরুতর আহত হয়। তাকে উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনাস্থল থেকে একটি রিভালবার ও দেশীয় তৈরি একটি এলজি উদ্ধার করা হয়েছে।

তিতাস থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সৈয়দ মোহাম্মদ আহসানুল ইসলাম জানান,  নিহত আল-আমিনের বিরুদ্ধে ডাকাতি, ছিনতাইসহ থানায় একাধিক মামলা রয়েছে। এ ঘটনায় ডিবির পক্ষ থেকে মামলা দায়ের করা হচ্ছে।

কক্সবাজার: 

কক্সবাজারের টেকনাফে র‌্যাবের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নুরুল আলম নামে একজন নিহত হয়েছন। তিনি নয়াপাড়া আনসার ক্যাম্প থেকে অস্ত্র লুট মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি বলে র‌্যাব জানিয়েছে।

শুক্রবার ভোরে টেকনাফের দমদমিয়া এলাকায় এ বন্দুকযুদ্ধে তিনি মারা যান।  এ সময় ঘটনাস্থল থেকে ২টি বিদেশি পিস্তল, ২টি ম্যাগজিন ও ১৩ রাউন্ড তাজা কার্তুজ উদ্ধার করা হয়েছে বলে র‌্যাবের ভাষ্য।

বহুল আলোচিত শীর্ষ রোহিঙ্গা ডাকাত আব্দুল হাকিম প্রকাশ হাকিম ডাকাতের অন্যতম সহযোগী ছিলেন নুরুল আলম। তিনি টেকনাফ নয়াপাড়া মুচনী রোহিঙ্গা ক্যাম্পের এইচ ব্লকের মৃত হোসেন প্রকাল লাল বুইজ্জার ছেলে।

কক্সবাজারে নব গঠিত এহডক ভিত্তিতে পরিচালিত নতুন ব্যাটালিয়ন র‌্যাব-১৫ এর কোম্পানি কমান্ডার মির্জা সাহেদ মাহাতাব  জানান, ভোরে দমদমিয়া চেকপোস্টের কাছাকাছি দায়িত্ব পালনের সময় র‌্যাবের আভিযানিক দলকে লক্ষ্য করে গুলি ছোঁড়ে ডাকাত দল। এসময় আত্মরক্ষার্থে র‌্যাবও পাল্টা গুলি চালায়। দু’ই পক্ষের মধ্যে প্রায় ২০ মিনিট গুলি বিনিময়ের  এক পর্যায়ে ডাকাতরা পিঁছু হটে।

পরে ঘটনাস্থল থেকে কুখ্যাত ডাকাত নুরুল আলমের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। 

মির্জা মাহাতাব বলেন, নুরুল আলম হচ্ছে র্শীষ রোহিঙ্গা ডাকাত এবং টেকনাফ নয়াপাড়া রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে ১১টি অস্ত্র লুট ও আনসার ক্যাম্পের পিসি আলী হোসেনকে হত্যাকারী। তিনি দীর্ঘদিন ধরে ডাকাতিসহ নানা অপরাধ সংঘঠিত করে আসছিল। তার বিরুদ্ধে ডাকাতি হত্যাসহ অর্ধ ডজন মামলা রয়েছে।

ময়মনসিংহ

ময়মনসিংহে ডিবি পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে আব্দুর রশিদ (৫০) নামের একজন নিহত হয়েছেন। পুলিশের দাবি, নিহত রশিদ একজন চিহ্নিত মাদক বিক্রেতা। তার বিরুদ্ধে মাদক, বিস্ফোরকসহ একাধিক মামলা রয়েছে।

গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) ওসি শাহ কামাল আকন্দ জানান, বৃহস্পতিবার দিবাগত  রাত সাড়ে ১২টার দিকে ময়মনসিংহ শহরের ত্রিশাল বাসস্ট্যান্ড এলাকায় কিছু মাদক বিক্রেতা মাদক কেনা বেচা করছে। এমন গোপন সংবাদ পেয়ে সেখানে অভিযান চালালে পুলিশকে লক্ষ্য করে মাদক বিক্রেতারা গুলি ছুড়ে। পুলিশও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি  চালালে মাদক বিক্রেতারা পালিয়ে যায়।

এসময় গুলিবিদ্ধ অবস্থায় রশিদ নামের একজনকে পাওয়া যায়। তাকে উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করে।

খুলনা:  
খুলনায় পুলিশের সঙ্গে কথিত ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মাসুদ রানা ওরফে মাসুদ (৩৫) নামে এক মাদক বিক্রেতা নিহত হয়েছেন। এসময় ঘটনাস্থল থেকে একটি দেশি পাইপগান, একটি চাপাতি, একটি বড় ছোরা ও ১০০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত সাড়ে ৩টার দিকে নগরীর নিরালা কবরস্থান সংলগ্ন দীঘিরপাড় এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।
নিহত মাসুদ খুলনা নগরীর সোনাডাঙ্গা থানার বসুপাড়া এলাকার মৃত আব্দুল হকের ছেলে।
শুক্রবার খুলনা মহানগরের পুলিশের (কেএমপি) অতিরিক্ত উপ-কমিশনার শেখ মনিরুজ্জামান মিঠু  এ ঘটনা নিশ্চিত করেন।
 
তিনি বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রাতে নিরালা দীঘিরপাড় কবরস্থান এলাকায় মাদক উদ্ধারে অভিযান চালায় সদর খানা পুলিশ। এসময় পুলিশের সঙ্গে গোলাগুলিতে মাদকবিক্রেতা মাসুদ রানা নিহত হন।
তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানার একাধিক মামলা রয়েছে বলেও জানান পুলিশে এ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা।

ঢাকাটাইমস/২২ফেব্রুয়ারি/ওআর

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :