জেনেভায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন

প্রকাশ | ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৬:৩৫

ইউরোপ ব্যুরো, ঢাকাটাইমস

যথাযোগ্য মর্যাদায় বৃহস্পতিবার সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস  উদযাপন করা হয়েছে।

দিনের শুরুতেই দূতাবাস প্রাঙ্গণে জেনেভাস্থ জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি এবং সুইজারল্যান্ডে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো. শামীম আহসান জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে কর্মসূচির সূচনা করেন।  

সন্ধ্যায় দূতাবাস প্রাঙ্গণে দিবসটি উপলক্ষে এক আলোচন সভার আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানের শুরুতেই জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং ভাষা শহিদদের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করে এক মিনিট নীরবতা পালনের পর রাষ্ট্রপতি কর্তৃক প্রদত্ত বাণী পাঠ করেন ইকনোমিক মিনিস্টার সুপ্রিয় কুমার কুন্ড, প্রধানমন্ত্রীর বাণী পাঠ করেন কাউন্সিলর তৌফিক ইসলাম শাতিল, পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বাণী পাঠ করেন কাউন্সিলর হেড অফ চেনচেলরি এমদাদুল ইসলাম চৌধুরী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বাণী পাঠ করেন কাউন্সিলর দেবপ্রিয় চক্রবর্তী।

উন্মুক্ত আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন জেনেভা বাংলাদেশ ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি সুইজারল্যান্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শ্যামল খান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাসুম খান দুলাল, বাংলাদেশ ক্লাবের সাবেক সভাপতি নজরুল জমাদার, মোহাম্মদ কামাল প্রমুখ। 
রাষ্ট্রদূত শামীম আহসান তার বক্তব্যে মহান ভাষা আন্দোলন ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরেন এবং নতুন প্রজন্মের মাঝে একুশের সুদূর প্রসারী চেতনাকে ছড়িয়ে দেবার আহবান জানান।

শ্যামল খান তার বক্তব্যে প্রবাসের নুতন প্রজন্মকে বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতি ধরে রাখতে সকল মাতা পিতার ভূমিকার উপর গুরুত্ব দেন।

গত কয়েক বছর যাবত বাংলাদেশ মিশনকর্তৃক শিশু কিশোরদের জন্য বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতির উপর বিভিন্ন প্রতিযোগিতার আয়োজনকে অভিনন্দন জানান এবং এজন্য ধন্যবাদ জানান রাষ্ট্রদূতকে।
দিবসটি উপলক্ষে ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’ বিষয়ে শিশু-কিশোরদের জন্য বিভিন্ন  প্রতিযোগিতার আযোজন করা হয়। রাষ্ট্রদূত  প্রতিযোগীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন সুইজারল্যান্ড আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অরুণ বরুয়া, হারুন অর রশিদ, মশিউর রহমান সুমন, সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ আকবর আলী, প্রচার সম্পাদক নিজাম উদ্দীন, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক গৌরীচরণ সসীম।

এছাড়াও ছিলেন বাংলাদেশ ক্লাবের সভাপতি আমজাদ চৌধুরী ও ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি খলিলুর রহমান। ।
পরিশেষে ভাষা শহীদদের পাশাপাশি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারসহ বাংলার স্বাধীনতা ও স্বাধিকার আন্দোলনের সকল শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়।

(ঢাকাটাইমস/২২ফেব্রুয়ারি/এলএ)