ডাকসুর সম্ভাব্য চার প্যানেলে যারা থাকছেন

ঢাবি প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ২৩:৫২

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে মনোনয়ন ফর্ম বিক্রি শেষ হচ্ছে সোমবার। ক্যাম্পাসজুড়ে এখন আলোচনা ছাত্রসংগঠনগুলোর প্যানেল নিয়ে। চারটি প্যানেলের প্রস্তুতির কথা জানা যাচ্ছে। চলতি মাসের মধ্যে সব কটি ছাত্রসংগঠন প্যানেল ঘোষণা দেবে বলে আভাস মিলেছে।

প্রায় তিন দশক পর আগামী ১১ মার্চ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে দেশের সবচেয়ে বড় এই বিদ্যাপীঠের ছাত্র সংসদের নির্বাচন।

ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, ২৬ ফেব্রুয়ারি মনোনয়ন ফরম জমা দেওয়ার শেষ দিন। প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ২৮ ফেব্রুয়ারি। যাচাই-বাছাইয়ের পর ৩ মার্চ প্রাথমিক প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করা হবে।

বহুল প্রত্যাশিত এ নির্বাচনে আলোচনায় রয়েছে চারটি সম্ভাব্য প্যানেল। এর মধ্যে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ছাত্রসংগঠন ছাত্রলীগ সরকার-সমর্থিত জোট সর্বদলীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদভুক্ত সংগঠনগুলো নিয়ে প্যানেল দেওয়ার কথা ভাবছে। পাশাপাশি টিএসসিভিত্তিক সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলোর শীর্ষ নেতাদেরও নিজেদের পক্ষে আনার চেষ্টা চালাচ্ছে ছাত্রলীগ।

অন্যদিকে প্রায় ১১ বছর ক্যাম্পাসে নিষ্ক্রিয় ছাত্রদল দাবি-দাওয়া পূরণ না হওয়ায় মনোনয়নপত্র না নেওয়ার ঘোষণা দিলেও সংগঠনটি একক প্যানেল দেওয়ার পরিকল্পনা করছে। এ লক্ষ্যে তারা কাজ করছে বলেও জানা গেছে।

আলোচনায় রয়েছে আরো দুটি প্যানেল। এর একটি হতে পারে প্রগতিশীল ছাত্র জোট ও সাম্রাজ্যবাদবিরোধী ছাত্র ঐক্যের সমন্বয়ে। আর অপরটি কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের একক প্যানেল।

এ ছাড়া আলোচনায় আসা স্বতন্ত্র জোট শেষ পর্যায়ে বাম সংগঠনগুলোর সঙ্গে প্যানেলে যোগ দিতে পারে।

ছাত্রলীগের প্যানেল

ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় এবং ঢাবি শাখার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকরা আইন বিভাগের শিক্ষার্থী। তাদের বয়স ৩০-এর মধ্যে। ফলে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন, সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস ও সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসাইনকে ভিপি-জিএস পদে ভাবা হচ্ছে।

তাদের বাইরে আলোচনায় রয়েছেন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি আদিত্য নন্দী,  আইন সম্পাদক আল নাহিয়ান খান জয়, সহ-সম্পাদক খাদিমুল বাশার জয়, উপ কর্মসূচি ও পরিকল্পনা সম্পাদক সাদ বিন কাদের চৌধুরী, সাবেক সদস্য ফয়েজউল্লাহ মানিক এবং শামসুন নাহার হলের সভাপতি নিপু তন্বী।

ছাত্রলীগের নেতৃত্বে ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের প্যানেল থেকে আলোচনায় থাকা অন্যরা হলেন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ (জাসদ, শরীফ নুরুল আম্বিয়া) থেকে মাহফুজুর রহমান রাহাত, শাহরিয়ার রহমান বিজয় ।

সম্ভাব্য প্যানেল বিষয়ে জানতে চাইলে ছাত্রলীগের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস ঢাকাটাইমসকে বলেন, ছাত্রলীগ থেকে কারা ডাকসু নির্বাচনে অংশ নেবেন তা প্রধানমন্ত্রী সিদ্ধান্ত দেবেন। ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা পূর্ণ প্যানেলে কেন্দ্রীয় ও হল সংসদে নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত।

 

ছাত্রদলের প্যানেল

ছাত্রদলের শীর্ষ চার নেতার ছাত্রত্ব না থাকায় তারা কেউ নির্বাচনে অংশ নিতে পারছেন না।

সংগঠনটির প্যানেল থেকে আলোচনায় আছে জহুরুল হক হলের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের ২০০৭-০৮ সেশনের শিক্ষার্থী ও ছাত্রদল নেতা হাসান আল আরিফ, সূর্য সেন হল ছাত্রদলের আহ্বায়ক কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক মো. কাইউম উল হাসান, সূর্য সেন হল ছাত্রদলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য মাহফুজ চৌধুরী, ড. মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ হল ছাত্রদলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য সাইদুর রহমান রাফসান, ফজলুল হক মুসলিম হল ছাত্রদলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য নুরে আলম ভূঁইয়া ইমন প্রমুখ। 

ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক আকরামুল আহসান ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘আমাদের দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত প্রশাসনের সঙ্গে আলোচনা চলতে থাকবে। তবে ডাকসু নির্বাচন নিয়ে আমরা সব সময় ইতিবাচক।’

প্যানেলের বিষয়ে আকরামুল হাসান বলেন, ‘ছাত্রদলের প্যানেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে জনপ্রিয় এবং নেতৃত্বের গুণাবলিতে উত্তীর্ণ নেতাকর্মীরা গুরুত্ব পাবেন।’

তবে নির্বাচনের পরিবেশ এখনো তৈরি হয়নি দাবি করে ছাত্রদলের সাত দফা মেনে নিতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

বাম জোট 

বাম জোট থেকে আলোচনায় রয়েছে ছাত্র ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক লিটন নন্দী, ঢাবি সভাপতি ফয়েজ উল্লাহ, সাধারণ সম্পাদক রাজিব দাস, ছাত্রফ্রন্টের বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি সালমান সিদ্দিকী, ছাত্র ইউনিয়ন বিশ্ববিদ্যালয় কমিটির সমাজকল্যাণ ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক ঐশ্বর্য আহমেদ, সদস্য কাজী মালিহা।

এ ছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন প্রেক্ষাপটে আন্দোলন-সংগ্রামে নেতৃত্ব দেয়া সংগঠন, নিপীড়নবিরোধী শিক্ষার্থী ও আদিবাসী শিক্ষার্থীদের অন্তর্ভুক্ত করার পরিকল্পনা রয়েছে এ জোটের।

ঢাবি ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি ফয়েজ উল্লাহ বলেন, ‘আমরা জোটগতভাবে ডাকসু নির্বাচনে অংশ নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। প্রার্থী চূড়ান্ত করতে আমরা সাধারণ শিক্ষার্থীদের সাথে আলোচনা করে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত দিব।’

 

কোটা সংস্কার আন্দোলন 

কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলন করে সফল বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ একক প্যানেল দেবে ডাকসু নির্বাচনে।

সংগঠনটির যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল হক নূর, রাশেদ খান, ফারুক হাসান, বিন ইয়ামিন মোল্লা, সোহরাব হোসেন, মশিউর রহমান নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারেন বলে আভাস মিলেছে। এ লক্ষ্যে তারা প্রচারও চালাচ্ছেন।

সংগঠনের যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল হক নুর ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের যেসব অরাজনৈতিক শিক্ষার্থী বিভিন্ন আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছে তাদের সঙ্গে নিয়ে আমরা প্যানেল ঘোষণা করব।’

‘আমরা আশা করছি সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিল, কোটা সংস্কার, প্রশ্নফাঁসের বিরুদ্ধে যারা জোরালো ভূমিকা রেখেছিল তাদের নিয়ে একটি শক্তিশালী ও গ্রহণযোগ্য প্যানেল দিতে পারব।’

টিএসসিভিত্তিক সংগঠন

এদিকে টিএসসিভিত্তিক বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতাদের দলে টানতে চেষ্টা চালাচ্ছে রাজনৈতিক ছাত্রসংগঠনগুলো। এদের মধ্যে আলোচনায় আছে ডিবেটিং ক্লাবের সভাপতি এস এম রাকিব সিরাজী, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল মুতি আসাদ, স্লোগান ’৭১-এর সাবেক সভাপতি ফয়েজউল্লাহ মানিক, ঢাবি নাট্য সংসদের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম সবুজ তালুকদার, সাইক্লিং সোসাইটির সভাপতি মাহমুদুল হাসান প্রমুখ।

(ঢাকাটাইমস/২২ফেব্রুয়ারি/এনএইচএস/ডিএম/মোআ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

শিক্ষা বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :