শেষ সময়ে জমজমাট বই মেলা

আল আমিন রাজু, ঢাকা টাইমস
 | প্রকাশিত : ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ২১:২৪

দেখতে দেখতে শেষ সময়ে চলে এসেছে অমর একুশে গ্রন্থ মেলা। প্রথম দিন থেকে দর্শনার্থীদের ভিড় থাকলেও বেচা-বিক্রি ছিলো না তেমন। সময়ের সাথে সাথে বেড়েছে বিক্রি। বৃহস্পতিবার থেকে শনিবার পর্যন্ত টানা তিন দিন ছুটির শেষে একটুও ব্যস্ততা কমেনি বই মেলার বিভিন্ন প্রকাশনির স্টল গুলোতে। সমান তালে ব্যস্ততা চলছে শেষ সময়ের বইমেলায়। আর শেষ সময়ে এসেও প্রতিদিনই নতুন নতুন বই প্রকাশিত হচ্ছে।

মেলা আসা বেশির ভাগ দর্শনার্থীদের হাতে দেখা যাচ্ছে নতুন কেনা বইয়ের ব্যাগ। কারো দুহাতে আবার কারো পরিবারের সকলের হাতে বইয়ের ব্যাগ। মেলা ঘুরে ঘুরে পছন্দের লেখকের বই কিনছেন। আগে থেকেই পছন্দ করে রাখা বইয়ের পাশাপাশি মেলায় দেখে পছন্দের বইটিও কিনছেন অনেকে।

এছাড়াও মেলায় চলছে নতুন নতুন বইয়ের মোড়ক উন্মোচন।

অনেক গুলো বই কিনেছেন রাজধানী ঢাকার সরকারি শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজের শিক্ষার্থী জুমা মাহমুদ। তিনি ঢাকা টাইমসকে বলেন, শেষ সময়ে এসে পাঠকরা বেশি বেশি বই কিনছে, কারণ বিভিন্ন প্রকাশনি থেকে বেশি ছাড় দিচ্ছে। আমি প্রায় ৩০ টি বই কিনেছি। প্রিয় লেখকের বই কিনেছি। মেলায় দেখে পছন্দ হওয়া কয়েকটি বইও কিনেছি।

তবে বই মেলায় প্রকাশিত বইয়ের মান নিয়েও প্রশ্ন তুলছেন অনেক দর্শনার্থী। অসাম্পাদিত বইয়ের পাশাপাশি মানহীন গল্প এবং রচনার বই ছেয়ে গেছে বই মেলা। ফলে ভালো বইগুলো জনপ্রিয়তা পায় না বলে অভিযোগ অনেকের।   

ঢাকার বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সদ্য পাশ করা যুবক রিয়াদ আরিফ ঢাকা টাইমসকে বলেন, মেলায় মান সম্পন্ন বইয়ের বড় অভাব। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোর প্রচারণার ফলে এই সব বই বিক্রি হচ্ছে। এছাড়াও অসম্পাদিত এবং অতি উৎসাহী নামমাত্র কিছু শৌখিন প্রকাশকরা বই প্রকাশ করছেন।

তাছাড়ও ভালো বইয়ের প্রচারের ক্ষেত্রে রয়েছে নানা জটিলতা। আক্ষেপের সাথে এই যুবক আরও বলেন, আমাদের দেশের পত্রিকা গুলোতে দিনদিন সাহিত্য পাতা পরিসর কমে যাচ্ছে। সেখানে যায়গা পাচ্ছে বিজ্ঞাপন। ফলে বিভিন্ন কারণে মানহীন বইয়ের দাপট চলছে বই মেলায়। এ নিয়ে দায়িত্বশীল সকলের আরও সচেতন হওয়া উচিত বলে মত দেন মেলায় আগতরা।

ঢাকাটাইমস/২৪ফেব্রুয়ারি/ ইএস

সংবাদটি শেয়ার করুন

সাহিত্য বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :