শেকৃবিতে র‍্যাগিংয়ের নামে নির্যাতন

শেকৃবি প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১৯ মার্চ ২০১৯, ২২:৩৮ | প্রকাশিত : ১৯ মার্চ ২০১৯, ২২:১৭

রাজধানীর শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শেকৃবি) নবাব সিরাজউদ্দৌলা হলে কথিত মিটিংয়ের নামে রাতভর র‍্যাগিং ও শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের কুমিল্লা আঞ্চলিক গ্রুপের ১৯ ব্যাচের শিক্ষার্থীরা এ নির্যাতনের শিকার হয়েছেন।

অভিযোগ ওঠেছে, গত সোমবার রাত ১১টা থেকে শুরু হয়ে সোয়া দুইটা পর্যন্ত ওই হলে কথিত মিটিং হয়। এতে ১৮ ব্যাচের কিছু শিক্ষার্থী ১৯ ব্যাচের শিক্ষার্থীদের অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ, শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করেন। পরে রাতেই ভুক্তভোগী এ শিক্ষার্থীরা তাদের প্রয়োজনীয় আসবাবসহ মসজিদ, সংশ্লিষ্ট হল প্রভোস্ট ও উপাচার্য বাসভবনের সামনে অবস্থান নেন।

এ বিষয়ে ভুক্তভোগী কয়েকজন শিক্ষার্থী নাম প্রকাশ না করার শর্তে ঢাকাটাইমসকে বলেন, "রাতে ১৮ ব্যাচের ভাইদের রুমে গিয়ে দেখা না করার অপরাধে আমাদের ভাইদের রুমে ডেকে নিয়ে প্রথমে সাথে থাকা মোবাইল নিয়ে নেয়। পরে রুমের লাইট অফ করে অশ্রাব্য ভাষায় বকাবকির এক পর্যায়ে আমাদের গায়ে হাত তোলা হয় এবং লাথি মারা হয়। এছাড়াও ৫ মিনিটের মধ্যে শেখ কামাল অনুষদ ভবনের ছাদে উঠে সেলফি তুলে আনাসহ বিভিন্ন অশ্লীল অঙ্গভঙ্গির নির্দেশ দিয়ে মানসিকভাবেও নির্যাতন করা হয়।’

ভুক্তভোগী এ শিক্ষার্থী আরো বলেন, পরে আমরা আমাদের লাগেজসহ হল থেকে বের হয়ে মসজিদ ও ভিসি বাংলোর সামনে অবস্থান নেই। পরে সকাল ৮ টায় আমাদের আঞ্চলিক নেতা রুদ্রনাথ টোটন বিভিন্নভাবে বুঝিয়ে হলে ফিরিয়ে আনেন।"

বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর মো. রুহুল আমীন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, প্রক্টরিয়াল বডি অবগত এবং আমার ওপর এ তদন্তভার দেওয়া হয়েছে। তদন্তে এ পর্যন্ত অপরাধে নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য ১৮ ব্যাচের মুয়িদ ও সজীবের নাম উঠে এসেছে। এছাড়াও জড়িতদের মধ্যে মোর্শেদ, সাফায়েত, তিষাণ, মাসুদ, শাহাদাত, ইমামুল, সাঈদ, মিনহাজ, আসাদ ও তোফায়েলের নামও আমরা পেয়েছি।'

ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর অধ্যাপক ড. মো. মিজানুর রহমান ঢাকা টাইমসকে বলেন, তদন্ত প্রতিবেদন হাতে পেলেই জড়িতদের বিরুদ্ধে প্রক্টরিয়াল বডি খুব দ্রুত দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করবে।

সংশ্লিষ্ট হল প্রভোস্ট ড. মো. ইছাক বলেন, আমার হলে রাতে ঘটে যাওয়া ঘটনাটি অত্যন্ত দুঃখজনক। এর বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নিতে প্রভোস্ট হিসেবে প্রশাসনকে যাবতীয় সহযোগিতা করা হবে।

ঢাকাটাইমস/১৯মার্চ/ ইএস

সংবাদটি শেয়ার করুন

শিক্ষা বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :