এসএমই মেলায় বর্ণিল বহুমুখী পাটপণ্য

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২৩ মার্চ ২০১৯, ১৯:০৭ | প্রকাশিত : ২৩ মার্চ ২০১৯, ১৮:৪৮

ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তা (এসএমই) পণ্যমেলায় পাটের বহুমুখী পণ্যের সমারোহ দেখা গেছে। জাতীয় এসএমই পণ্যমেলার শেষ দিনে শনিবার ক্রেতা-দর্শণার্থীদের ভিড়ে মুখর।

ঢাকার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বসা এই মেলার আজ শনিবার শেষ দিন। মেলা চলবে রাত আটটা পর‌্যন্ত।

মেলায় পাটের কারুকাজ খচিত পাটের শাড়ি, থ্রি-পিস, কটি, ফুলদানি, ঝাড়বাতি থেকে শুরু করে ব্যাগ, জুতা, বিছানার চাদর, বালিশ, কুশন, ডায়েরি, নোটবই, মানিব্যাগ, হাতব্যাগসহ বেডকভার, কুশনকভার, সোফাকভার, কম্বল, পর্দা, টেবিল রানার, টেবিলম্যাট, কার্পেট, ডোরম্যাট, শতরঞ্জি, ব্লেজার, ফতুয়া, কটি, শো-পিস, গৃহস্থালি কাজে ব্যবহারযোগ্য নানা ধরনের পাটপণ্য প্রদর্শন ও বিক্রি হচ্ছে বিভিন্ন স্টলে।

মেলায় বিভিন্ন উদ্যোক্তার সঙ্গে কথা হয় ঢাকাটাইমসের এই প্রতিনিধির। জারমাটজ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইসমাত জেরিন খান জানান, তারা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের গিফট আইটেমের অর্ডার নিয়ে থাকেন। এ ছাড়া মেলায় তাদের স্টলে পাটের তৈরি কুশনকভার, টেবিল রানার, ফ্লোরকাভার, ওয়াটার ব্যাগ, কম্বো ব্যাগ, করপোরেট ফাইল, লন্ড্রি বাস্কেট, বাস্কেট, শিকেসহ বিভিন্ন পাটজাত পণ্য রয়েছে।

সাম্পান ক্রাফটসের উদ্যোক্তা ম্যাথিউ হালদার নিয়ে এসেছেন পাটজাত পণ্য, হ্যান্ডিক্রাফটস, ইমিটেশন অ্যান্ড জুয়েলারি এবং ডিজাইন ও ফ্যাশনওয়ার।

আফিল জুট উইভিং লিমিটেড এনেছে পাটের তৈরি বিচিত্র পণ্য। মেসার্স আমালী এক্সপোর্ট ইমপোর্টের উদ্যোক্তা আলী জাকির এবং ফাইন ফেয়ার ক্রাফট উদ্যোক্তা শাহানা বেগম এনেছেন নানা কাজের ব্যাগ। ল্যাপটপ ব্যাগ, জিপ ব্যাগ, শপিং ব্যাগ, স্কুলব্যাগ, ব্যাকপ্যাক, সেমিনার ব্যাগ ইত্যাদি।

ট্রিম টেক্স বাংলাদেশের উদ্যোক্তা সাহিদা পারভীনের স্টলে রয়েছে পাট ও পাটজাত পণ্য, চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য, হোম ডেকোরেশন অ্যান্ড ফ্যাশন ডিজাইন সামগ্রী।

তুলিকার উদ্যোক্তা ইসরাত জাহান চৌধুরী নিয়ে এসেছেন পাট ও পাটজাত পণ্য। তার স্টলে রয়েছে পাটের তৈরি নান্দনিক শিকে।

সিনটিলার উদ্যোক্তা মীর আশরাফ আলীর স্টলে রয়েছে জুট ব্যাগ, শপিং ব্যাগ, কটন কসমেটিক ব্যাগ, টেবিল রানার। প্রকৃতির উদ্যোক্তা টমাস ডি কস্তার স্টলে পাওয়া যাবে জুট ব্যাগ, জুট পেপার, ফোটো ফ্রেম, নোটবুক, ফাইল, গহনা, হোম ডেকর।

পানসীর উদ্যোক্তা হোসাইন জনি পাটজাত দ্রব্য দিয়ে সাজিয়েছেন স্টল। জুটমাট অ্যান্ড ক্রাফট ইন বাংলাদেশ স্টলে হস্তশিল্প ও পাটজাত দ্রব্য পাওয়া যায়। জুট ক্রাফটসের উদ্যোক্তা আফজাল হোসেন পাটের বহুমুখী পণ্য, চামড়াজাত পণ্য, পেপার প্রোডাক্ট দিয়ে তার স্টল সাজিয়েছেন।

ব্যাগ বাজারের উদ্যোক্তা মোহাম্মদ আমজাদ হোসেনের স্টলেও পাটজাত পণ্য সাজানো- রয়েছে ব্যাগ, হ্যান্ডিক্রাফট, অফিসিয়াল গিফট আইটেম।

পাটের জুতা, স্যান্ডেল ও ব্যাগ রয়েছে তাহমিদুল ইসলামের বেকি সেন্টারে। ভারটেক্স ক্রাফটের উদ্যোক্তা সাইফুল ইসলাম পাটের শপিং ব্যাগ, ল্যাপটপ ব্যাগ, সেমিনার ব্যাগ, স্কুলব্যাগ, টিস্যু বক্স, ফাইল ফোল্ডার, পেন হোন্ডার দিয়ে সাজিয়েছেন তার স্টল।

এ ছাড়া আরও অনেক উদ্যোক্তা তাদের বহুমুখী পাটপণ্য নিয়ে এসেছেন মেলায়।

পাটের বহুমুখী পণ্য তৈরি করে শাফিয়া শামার প্রতিষ্ঠান এমএস শামা। ঢাকাটাইমসকে শাফিয়া শামা বলেন, ‘দেশে ১৬ কোটি মানুষ। তাদের প্রচুর আগ্রহ আছে পাটপণ্যের প্রতি। মেলায় বেশ সাড়া পেয়েছি আমরা। আমরা রপ্তানিযোগ্য বহুমুখী পাটপণ্য নিয়ে মেলায় এসেছি। ক্রেতারা এসে এখানে যেকোনো পণ্য কিনতে পারছেন।’ তবে ক্রেতারা যাতে সারা বছর এসব পণ্য পেতে পারে তার জন্য প্রতি জেলায় শোরুম খুলতে সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন তিনি।  

 (ঢাকাটাইমস/২৩মার্চ/জেআর/কারই/মোআ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

ফিচার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :