পরিত্যক্ত-ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে প্রাথমিকের পাঠদান

সৈয়দ মাহফুজ রহমান, পিরোজপুর
| আপডেট : ১৬ এপ্রিল ২০১৯, ০৮:৫৪ | প্রকাশিত : ১৬ এপ্রিল ২০১৯, ০৮:১৩

পিরোজপুরের কাউখালী উপজেলায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পরিত্যক্ত ও ঝুঁকিপূর্ণ ভবনগুলোতে চলছে প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের পাঠদান কার্যক্রম। যেকোনো সময় বড় কোনো দুর্ঘটনা বা তালতলী বিদ্যালয়ের পুনরাবৃত্তি ঘটার আতঙ্কে রয়েছেন শিক্ষক, অভিভাবক, শিক্ষার্থীরা। ফলে কমে আসছে শিক্ষার্থীর সংখ্যা-উপস্থিতি। 

উপজেলার ৬৭টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিপূর্ণ ভবন রয়েছে পাঁচটিতে। সেগুলো হচ্ছে- পূর্ব শিয়ালকাঠী হাজীবাড়ি, শিয়ালকাঠী মোল্লারহাট, দত্তেরহাট, শীর্ষা আব্দুর রহমান ও চিরাপাড়া কেএম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।

স্থানীয় লোকজনের অভিযোগ, এক-দেড় যুগ আগে নিম্নমানের নির্মাণসামগ্রীতে এসব বিদ্যালয় ভবন নির্মিত হয়। সে সময় কর্তৃপক্ষ কোনো তদারকি করেনি বা উদাসীনতা ছিল। ফলে ভবনগুলোর এখন বেহালদশা। 

পূর্ব শিয়ালকাঠী  হাজীবাড়ি ও শিয়ালকাঠী মোল্লারহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা গেছে, এ দুটি বিদ্যালয়ের ভবনগুলো বহু আগে থেকেই জরাজীর্ণ ও পাঠদানের অনুপোযোগী। ভবনগুলোর পলেস্তারা ও ভিমগুলোয় ফাটল ধরে বড় আকারের কংক্রিট খসে পড়ছে শ্রেণিকক্ষগুলোয়। পরিত্যক্ত ওই সব শ্রেণিকক্ষেই ঝুঁকি নিয়ে চলছে পাঠদান কার্যক্রম।

অনেক অভিভাবক বলছেন, ভবন ধসে অনাকাঙ্খিত দুর্ঘটনা এড়াতে আদরের ছেলে-মেয়েদের বিদ্যালয়ে পাঠাচ্ছেন না তারা। কেউ কেউ সন্তানদের ঝুঁকি নিয়েই পাঠালেও বিদ্যালয় চলাকালে আতঙ্কে থাকছেন।

এসব কারণ-আতঙ্কে ছাত্র-ছাত্রীদের উপস্থিতি ক্রমেই কমে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন পূর্ব শিয়ালকাঠী হাজীবাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মো. সোহেল তালুকদার। তিনি জানান, বিদ্যালয়ের বর্তমান শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৩৮ জনে এসে দাঁড়িয়েছে। ভবন পুনর্নির্মাণ বা সংস্কার করা না হলে শিগগিরই একজন শিক্ষার্থীকেও পাঠদানে পাওয়া যাবে না বলে আশঙ্কা করছেন তিনি।

মোল্লার হাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবনটিও ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় শিক্ষার্থীর সংখ্যা একেবারেই নগন্য।

কাউখালী উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা খোন্দকার জসিম আহামদ বলেন, উপজেলার বেশি ঝুঁকিপূর্ণ বিদ্যালয় ভবনগুলো নির্মাণে পদক্ষেপ নেওয়া এবং কাঠ ও টিনশেড ভবনগুলোকে পূর্ণাঙ্গ ভবনে রূপান্তরিত করতে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে অনুরোধ জানানো হয়েছে।

(ঢাকাটাইমস/১৬এপ্রিল/প্রতিবেদক/এআর)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :