বিদ্যুৎ না পেলেও বকেয়া বিলের দায়ে কারাগারে দিনমজুর মতিন

কুমিল্লা প্রতিবেদক, ঢাকা টাইমস
 | প্রকাশিত : ১৭ এপ্রিল ২০১৯, ২১:৪০

দিনমজুর আব্দুল মতিন মিয়া। জীবনে কখনও বিদ্যুৎ ব্যবহার করতে পারেননি। তার বাড়িতে বিদ্যুতের কোনো সংযোগই নেই। অথচ বকেয়া বিলের মামলায় চার বছর আগে বিদ্যুতের জন্য আবেদন করা মতিনকে যেতে হয়েছে কারাগারে।

ঘটনাটি কুমিল্লা জেলার মুরাদনগর উপজেলার যাত্রাপুর ইউনিয়নের মোচাগড়া গ্রামের।

বিদ্যুৎ ব্যবহার না করেও বকেয়া বিল না দেওয়ার `অপরাধে‘ মতিনকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে কুমিল্লা কারাগারে পাঠিয়েছে মুরাদনগর থানা পুলিশ। মঙ্গলবার রাতে থানার এসআই কবির হোসেনের নেতৃত্বে একদল পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে। বুধবার দুপুরে হাজির করা হলে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন কুমিল্লার আদালত।

ভুক্তভোগী পরিবার ও এলাকাবাসী জানান, মোচাগড়া গ্রামের দক্ষিণ পাড়ার ২৫৬টি পরিবার বিদ্যুৎ সংযোগের জন্য চার বছর আগে কুমিল্লা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এ আবেদন করে। আবেদনের পর স্থানীয় বিদ্যুৎ দালাল আবুল কালাম আজাদ ও আবুল বাসার প্রত্যেক গ্রাহকের কাছ থেকে মিটারপ্রতি ১৫ হাজার টাকা আদায় করেন। ওই সময় মৃত অহিদ আলীর ছেলে আব্দুল মতিন মিয়াও আবেদন জানালে কর্তৃপক্ষ সংযোগের অনুমোদন দেয়। কিন্তু মতিন চার হাজার টাকা দিলেও বাকি টাকা দিতে না পারায় তার আবেদনে একই এলাকার মৃত আব্দুস ছামাদের ছেলে সফিকুল ইসলামের ছবি লাগিয়ে দেয় দালালচক্র। পরে মতিন মিয়ার মিটারটি ২০১৫ সালের ২২ মার্চ  সফিকুল ইসলামকে সংযোগ দেয় পল্লীবিদ্যুৎ সমিতি। প্রায় ১৭ মাস সে বিদ্যুৎ বিল বকেয়া রাখেন সফিকুল।

কুমিল্লা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর চান্দিনা অফিসের এজিএম লক্ষন চন্দ্র পাল বকেয়া বিল চার হাজার সাত টাকা অনাদায়ের অভিযোগে মামলাটি করেন।

মুরাদনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একেএম মনজুর আলম বলেন, একটি মামলায় মতিন মিয়ার নামে গ্রেফতারি পরোয়ানা থাকায় তাকে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠানো হয়।

কুমিল্লা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর কোম্পানীগঞ্জ জোনাল অফিসের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার হাবিবুর রহমান আবেদন ফাইলে ছবি পরিবর্তনের বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, `আব্দুল মতিনের নামের মিটার সফিকুল ইসলামের ব্যবহারের বিষয়টি আমাদের জানা নেই। মামলা হওয়ার আগে মতিন মিয়া নোটিশ পেয়ে আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করলে এ ঘটনাটি ঘটতো না।`

(ঢাকাটাইমস/১৭এপ্রিল/প্রতিবেদক/এআর)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :