সংসদে গিয়ে খালেদা জিয়ার মুক্তি চাইব: জাহিদ

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২৫ এপ্রিল ২০১৯, ১৫:১৮ | প্রকাশিত : ২৫ এপ্রিল ২০১৯, ১৪:২৮

দল তাকে বহিষ্কার করতে পারে জেনেও জনগণের কথা বলতে শপথ নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন ঠাকুরগাঁও-৩ আসনে বিএনপির নির্বাচিত সংসদ সদস্য জাহিদুর রহমান। সংসদে গিয়ে দুর্নীতির দুই মামলায় সাজা নিয়ে কারাবন্দি দলীয় প্রধান বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি চাইবেন বলেও জানিয়েছেন এ সাংসদ।

বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদ ভবনে শপথগ্রহণ শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে একথা বলেন জাহিদ।

এর আগে অতি গোপনে ঠাকুরগাঁও-৩ (পীরগঞ্জ-রানীশংকৈল) আসনে বিএনপির সংসদ সদস্য জাহিদুর রহমান সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ নেন। বেলা বারোটার দিকে স্পিকার শিরিন শারমিন চৌধুরী তাকে শপথ বাক্য পাঠ করান।

শপথের কারণে দল তাকে বহিষ্কার করতে পারে মন্তব্য করে এ সাংসদ বলেন, ‘দল থেকে বহিষ্কার করা হলেও বিএনপির সঙ্গে আছি এবং থাকব।’‘সংসদে যোগ দিয়ে এক বছরেরও বেশি সময় ধরে কারাবন্দি দলীয় প্রধান বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি চাইব।’

এর আগে বিএনপিকে নিয়ে ঐক্যফ্রন্টের দুই বিজয়ী প্রার্থী গণফোরামের সুলতান মুহাম্মদ মনসুর ও মোকাব্বির খান দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে শপথ নেন। একারণে গণফোরাম থেকে বহিষ্কার করা হয় তাদের।

বিএনপির শীর্ষ পর্যায়ের নেতা গয়েশ্বর চন্দ্র রায় সম্প্রতি দলের নির্বাচিতদের উদ্দেশে বলেছেন, ‘শপথ তো দূরে থাক, সংসদের আশপাশ দিয়ে হাঁটলেও জনগণ তাদের ক্ষমা করবে না।’

শপথ গ্রহণ শেষে জাহিদুর রহমান বলেন, ‘দল আমাকে এর জন্য বহিষ্কার করলেও করতে পারে। এটি জেনেই শপথ নিয়েছি।’

তার নির্বাচনী এলাকার সাধারণ মানুষ শপথের বিষয়ে সাধুবাদ জানিয়েছেন এবং এলাকার উন্নয়নে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছেন বলেও দাবি করেন ঠাকুরগাঁও-৩ আসনে বিজয়ী হয়ে চমকে দেওয়া জাহিদুর।

জাহিদুর রহমান বলেন, ‘এই শপথ দলের সিদ্ধান্তের বাইরেই। আমি দীর্ঘদিন তো অপেক্ষা করলাম। যেহেতু সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছি, এলাকার মানুষের প্রচণ্ড চাপ। গত ১৫ দিন ধরে ঢাকায় আছি। এলাকার মানুষের একটাই বক্তব্য, শপথ নিয়ে ফিরে আসেন।’

শপথ গ্রহণের আগে দলের কোনো পর্যায়ে কথা হয়েছে কী না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘না, আগে বলেছি। দেখাও করেছি। কোনো প্রকারে কোনো সন্মতি দেয়নি। দলীয় সিদ্ধান্ত শপথ নেবে না। এখনো পর্যন্ত সেই সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত।’

দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে শপথ নেওয়াতে বহিষ্কার হবেন কী না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমার বিষয়ে দল যেন কোনো সিদ্ধান্ত নিতেই পারে। সেটা তো জেনেশুনেই শপথ গ্রহণ করেছি। দল যদি মনে করে বহিষ্কার করবে, করতেই পরে। বহিষ্কার করলেও কিন্তু আমি দলে আছি। আমি এই দলের একজন নিবেদিত প্রাণ। সেই ছাত্র জীবন থেকে দীর্ঘ ৩৮ বছর এই দলের সঙ্গে সম্পৃক্ত। কাজেই বিএনপি আমাকে বহিষ্কার করলেও আমি তো বিএনপি থেকে বহিষ্কার হবো না। আমি আছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘জনগণ আমাকে নির্বাচিত করেছেন। তাদের প্রত্যাশা আমি যেন শপথ গ্রহণ করে এলাকা ও দেশের সম্পর্কে ভূমিকা পালন করতে পারি।’

অপর এক প্রশ্নের জবাবে জাহিদ বলেন, ‘দীর্ঘ ৩০ বছর ধরে মাঠে লড়াই করেছি। আমি এবার দিয়ে চতুর্থবার নির্বাচন করলাম। এই আসনটি আমাদের বিএনপির ছিল না। স্বাধীনতার পর থেকে এ আসনটি আওয়ামী লীগের। এই প্রথম বিএনপি বিজয় হতে সক্ষম হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘আমার নেত্রী একজন বয়স্ক নারী, ৭৩ বছর বয়স। উনাকে যেন গণতন্ত্রের স্বার্থে মুক্ত করে দেওয়া হয়, সংসদে এই আহ্বান জানাব। এটাই আমার সংসদ সদস্য হিসেবে প্রথম অঙ্গীকার। আর এলাকার হাজার হাজার নিরপরাধ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে আহ্বান জানাব। বলব, আপনি এগুলো দেখেন। এগুলোর বাদী পুলিশ। পুলিশ যা করেছে সব মিথ্যা মামলা করেছে। আপনার লোক কোন মামলা করেনি। এটা দেখা উচিত। গণতন্ত্রের স্বার্থে সেইসব মামলা প্রত্যাহারের দাবি রাখব।’

ঢাকাটাইমস/২৫এপ্রিল/বিইউ/ডিএম

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :