বিএনপির ভাঙন ঠেকাতে হাছান মাহমুদের পরামর্শ

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ০৮ মে ২০১৯, ১৯:৩৯ | প্রকাশিত : ০৮ মে ২০১৯, ১৮:০২

বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট থেকে আন্দালিব রহমান পার্থের পর নতুন করে আরও দল বের হয়ে যাবে বলে মনে করছেন তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ। তাই তিনি বিএনপির এই ভাঙন ঠেকাতে দলটিকে সন্ত্রাসী দলের তকমা থেকে বের হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন।

বুধবার জাতীয় প্রেসক্লাবে ‘অগ্নিকন্যা প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদারের ১০৯তম জন্মবার্ষিকী' শীর্ষক আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখছিলেন আওয়ামী লীগের এই নেতা।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপি থেকে অনেকে বেরিয়ে যাচ্ছেন। ২০ দলীয় জোটের শরিক আন্দালিব রহমান পার্থ ঘোষণা দিয়েছেন, তিনি আর জোটে থাকবেন না। ভবিষ্যতে আমরা দেখতে পাব ২০ দলীয় জোট থেকে আরও অনেকেই বেরিয়ে যাচ্ছে।’

বিএনপি দল হিসেবে টিকে থাকতে হলে সন্ত্রাসের তকমা থেকে বের হয়ে আসার পরামর্শ দিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপির জন্মটা সঠিক না হলেও রাজনৈতিক দল হিসেবে তারা টিকে থাকুক, এটা আমরাও চাই। বিএনপিকে রাজনৈতিক দল হিসেবে টিকে থাকতে হলে, বিএনপিকে সন্ত্রাসী দলের তকমা থেকে বের হতে হলে, নেতৃত্বের পরিবর্তন আনতে হবে বলে আমি মনে করি।’

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘বিএনপি এখন রাজনৈতিক দল নয়, সন্ত্রাসী দল। এটা আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত। কানাডার আদালত বিএনপিকে সন্ত্রাসী দল হিসেবে রায় দিয়েছে। ক্রমাগতভাবে ভুল সিদ্ধান্তের কারণে বিএনপি আজকে জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন। জনবিচ্ছিন্নতার আরেকটি বড় কারণ হচ্ছে, এদের দলে কোনো আদর্শ নেই। এ দলের নেতাদের মধ্যেও কোনো আদর্শ নেই। তারা ক্ষমতার জন্য রাজনীতি করে।’

এ সময় বিএনপির সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে আনার বিষয়ে কথা বলেন তথ্যমন্ত্রী। বলেন, ‘জিয়াউর রহমান যুদ্ধক্ষেত্র থেকে অনেক দূরে বসে যেমন নেতৃত্ব দিতেন, তেমনি তারেক জিয়া লন্ডনে বসে দেশের বিরুদ্ধে নানা ষড়যন্ত্র করেন এবং বিএনপির নেতৃত্ব দেন। তিনি সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি। তাকে দেশে ফিরিয়ে আনা হবে। তার বিরুদ্ধে যে রায় রয়েছে, সেটা কার্যকরে সরকারের প্রচেষ্টা সফল হবে।’

তথ্যমন্ত্রী বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের সমালোচনা করে বলেন, ‘রাজনীতিবিদদের কেনবেচা শুরু করেছিলেন জিয়াউর রহমান। বিএনপি নেতাদের অতীত দেখলেই বোঝা যায়। তারা বিভিন্ন দলে ছিলেন। তারা বিএনপিতে যোগ দিয়েছেন ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য। ক্ষমতাকে ব্যবহার করে নিজেদের প্রতিষ্ঠার জন্য। বিএনপি এবং তার নেতাদেরও কোনো আদর্শ নেই। বর্তমান বিএনপির জনবিচ্ছিন্নতার এটি একটি অন্যতম কারণ।’

আয়োজক সংগঠনের উপদেষ্টা ব্যারিস্টার জাকিরের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শামসুল হক টুকু, আওয়ামী লীগ নেতা বলরাম পোদ্দার, স্বাধীনতা পরিষদের সভাপতি জিন্নাত আলী জিন্নাহ প্রমুখ।

(ঢাকাটাইমস/০৮মে/এনআই/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :