পুঁজিবাজারে সূচকের উল্লম্ফন

ডিএসইতে ১০৪, সিএসইেিত ৩১১

অনলাইন ডেস্ক
 | প্রকাশিত : ১৯ মে ২০১৯, ২১:১৪

গত সপ্তাহের শেষ দিনটি ছাড়া সব কটি লেনদেন দিবস কেবল পতন দেখেছে। সেই ধারা থেকে বেরিয়ে গতকাল উল্লম্ফন ঘটেছে দেশের দুই পুঁজিবাজারের সূচকে। একই সঙ্গে বেড়েছে লেনদেনের পরিমাণ এবং শেয়ারদর।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

পুঁজিবাজার বিশ্লেষকরা বলছেন, এর পেছনে কাজ করেছে ব্যাংকগুলোর বিনিয়োগ-সক্ষমতা বাড়ানো সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন। পুঁজিবাজারে  চলমান তারল্য সংকট কাটিয়ে তুলতে এই সিদ্ধান্ত কেন্দ্রীয় ব্যাংকের।  এখন ব্যাংকের বিনিয়োগসীমা থেকে অতালিকাভুক্ত সিকিউরিটিজে (Equity Share, Non-convertible Cumulative Preference Share, Non-Convertible Bond, Debenture, Open-end Mutual Fund) হিসাবায়নে অন্তর্ভুক্ত করা হবে না। শেযার বাজারসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন অংশীজন দীর্ঘদিন ধরে এই দাবিটি জানিয়ে আসছিল।

মূলত এই প্রজ্ঞাপন জারির পর থেকে ধারণা করা হচ্ছিল নতুন সপ্তাহে শেয়ারবাজারে এর একটা ইতিবাচক ধারা দেখা যাবে। 

আজ বাজার বিশ্লেষণে দেখা যায়, সূচক ও শেযারদরের ইতিবাচক ধারা দিয়ে দিনের লেনদেন শুরু হয়। এবং তা অব্যাহত ছিল লেনদেন শেষ হওয়া পর্যন্ত। ডিএসই প্রধান বা ডিএসইএক্স সূচক ১০৪ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ৫ হাজার ৩৩৫ পয়েন্টে। অন্য সূচকগুলোর মধ্যে ডিএসইএস বা শরিয়াহ সূচক ১৭ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ১ হাজার ২১৫ পয়েন্টে এবং ডিএস৩০ সূচক ৩১ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৮৪৯ পয়েন্টে।

এদিন লেনদেন হয়েছে ৪৪৩ কোটি ৫৫ লাখ ৯৭ হাজার টাকার শেযার, যা গত কার্যদিবসের চেয়ে ১৫৩ কোটি টাকা বেশি। বৃহস্পতিবার লেনদেনের পরিমাণ ছিল ২৯০ কোটি ৬৮ লাখ ২০ হাজার টাকা।

আজ ডিএসইতে লেনদেন হওয়া ৩৪৪টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৭৯ শতাংশ বা ২৭১টির, কমেছে ১৩ শতাংশ বা ৪৫টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৮ শতাংশ বা ২৮টির শেযার দর।

অপরদিকে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ৩১১ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ১৬ হাজার ৩১৩ পয়েন্টে। এখানে লেনদেনে অংশ নেওয়া ২৩৫টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১৭৬টির, কমেছে ৩১টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২৮টির শেযারদর।

সংবাদটি শেয়ার করুন

পুঁজিবাজার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :