সামর্থ্যবানদের জাকাত দেয়ার আহ্বান অর্থমন্ত্রীর

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২৫ মে ২০১৯, ২৩:০৬

দেশে সামর্থ্যবান সবাইকে জাকাত দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। তিনি বলেন, আমাদের যাকাতের ওপরে আমাদের প্রতিবেশি, আত্মীয়-স্বজন ও গরিবদের হক আছে। এটা ইচ্ছে হলে দিলাম না হলে দিলাম না সেরকম নয়। যাকাতটি আমাদের দেশে আন্দোলনে রূপ নেবে যদি সবাই একটু একটু করে এগিয়ে আসে।

শনিবার রাজধানির পুলিশ কনভেনশন হলে  এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন অর্থমন্ত্রী।

হজ এজেন্সিজ অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ-(হাব) বার্ষিক ইফতার ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে। 

অর্থমন্ত্রী বলেন, সামর্থ্যবানদের হজ যেমন আবশ্যক জাকাতও তেমন আবশ্যক। এ সময় হাব  সদস্যদের অর্থমন্ত্রী  আহবান জানানা তারা যেন হাজিদের শিখিয়ে দেন জাকাত কিভাবে দেয়া উচিত। বলেন, ‘যারা হজে  যায় তাদের বলে দিবেন যে আপনারা যাকাত দিয়ে আসছেন কি না।‘

অর্থমন্ত্রী বলেন, যাকাত দিলে সম্পদটা সঠিক থাকবে। আল্লাহ বরকত দেন। আল্লহ তায়ালা বলেছেন, ধনীদের সম্পদের উপর গরিবের হক আছে। এই কাজটি যেন আমরা করতে পারি। আমরা বিশ্বাস করি জাকাত আমাদের দেশে আন্দোলনে রূপ নেবে যদি আমরা সবাই একটু একটু করে এগিয়ে আসি।

অর্থমন্ত্রী বলেন, মুসলিমদের প্রত্যেকের জীবনে ইচ্ছে থাকে এক বার হলেও হজে যাওয়া। এই দেশের ধর্মপ্রাণ মানুষ সবাই সুন্দরমত হজ করুক। সেখানে সরকারের পক্ষ থেকে যা করার তা করা হবে।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ আব্দুল্লাহ, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর‌্যটন মন্ত্রী মাহাবুব আলী।

হাব মহাসচিব ফারুক আহমেদ সরদারের সঞ্চালনায় আরও বক্তব্য রাখেন , ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সচিব আনিছুর রহমান, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর‌্যটন মন্ত্রনালয়ের সচিব মহিবুল হক।  

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ বলেন, এবার  বাংলাদেশ বিমানবন্দরে হজ যাত্রীদের ইমিগ্রেশন করা হবে যেটা আগে সৌদি আরবের জেদ্দায় হতো।

সভাপতির বক্তব্যে হাব সভাপতি শাহদাত হোসাইন বলেন, বেসকারি ব্যবস্থায় প্রতি বছর এক লাখ ২০ হাজার হজে পাঠানো হয়। সোনালী ব্যাংকে হজের জন্য ৭৫০  থেকে ৮০০ কোটি ঢাকা চালান হয়। আর ওমরার জন্য সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকা। এ টাকা বেসরকারি ও সরকারি ৩৪ ব্যাংকে মাধ্যমে সোনালী ব্যাংকে আসে।  প্রতি বছরই রুলিং আকারে এমন অর্থ অনেকদিন  জমা থাকে ব্যাংকে। এ টাকার ‍ওপর কোন লাভ নেওয়া হয় না।

হাব সভাপতি অর্থমন্ত্রীর কাছে জমা থাকা এ টাকার জন্য আলাদা আর্থিক প্রতিষ্ঠান তৈরি প্রস্তাব দিয়ে বলেন, ইন্দোনেশিয়া ও মালয়েশিয়ায় এমন ব্যবস্থা আছে। তারা হজ্জ ফাইন্যান্সিংয়ের অর্থ দিয়ে পিপিপির আওতায় বিভিন্ন সামাজিক উন্নয়নমূলক কাজ করে। এটা করা গেলে জনগণ উপকৃত হবে।   

(ঢাকাটাইমস/২৫মে/জেআর/ইএস)

সংবাদটি শেয়ার করুন

অর্থনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :