পাটকল আধুনিকায়নে চীনের কাছে প্রস্তাব

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১৩ জুন ২০১৯, ১৪:২৭ | প্রকাশিত : ১২ জুন ২০১৯, ২০:৪২

দেশের পাটকলগুলোর আধুনিকায়নে চীন সরকারের কাছে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী। বুধবার জাতীয় সংসদে এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা বলেন।

সুনামগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের অপর এক প্রশ্নের জবাবে গোলাম দস্তগীর গাজী বলেন, দেশে পাটজাত পণ্যের ব্যবহার নিশ্চিত করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। পণ্যে পাটজাত মোড়কের বাধ্যতামূলক ব্যবহার আইন-২০১০ প্রণয়ন করা হয়েছে। এই আইনের আওতায় ১৯টি পণ্যের মোড়কিকরণে পাটের ব্যবহার বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। এ আইন বাস্তবায়নে প্রচার-প্রচারণাসহ নিয়মিত বাজার পরিদর্শন ও ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হচ্ছে।

রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলগুলোতে গ্র্যাচুইটি ও প্রভিডেন্ট ফান্ড বাবদ মোট বকেয়ার পরিমাণ ৬২৭ দশমিক ৯৫ কোটি টাকা এ টাকা পরিশোধে বাজেটে বরাদ্দ থাকবে কি না সংসদ সদস্য শেখ ফজলে নূর তাপসের এমন প্রশ্নে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী বলেন,  আমরা ইতিমধ্যেই অর্থমন্ত্রণায়লে কাছে টাকা চেয়ে এ ব্যাপারে চিঠি পাঠিয়েছি। আমাদের এ ফান্ড জোগার করতে কষ্ট হচ্ছে । আগামীকাল বাজেট পাস হবে। এরপর এই বাজেট আলোচনায় যদি আপনারা আলোচনা করেন এই অর্থ পাওয়ার জন্য।  আপনারা যাদি সমর্থন করেন । অর্থমন্ত্রণালয় থেকে যদি আমরা টাকা পাই অবশ্যই আমরা এই মানবেতর জীবন শোধরানোর  জন্য আমরা  তাদের গ্র্যাচুয়িটি ফান্ড ও প্রফিডেন্ট ফান্ড দেওয়ার ব্যবস্থা করবো।

সংসদ সদস্য বেগম লুৎফুন্নেসা খানের তারকাচিহ্নিত প্রশ্ন ৬২‘র জবাবে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী সংসদকে জানান, রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলগুলোতে গ্রাচুইটি ও প্রভিডেন্ট ফান্ড বাবদ মোট বকেয়ার পরিমাণ ৬২৭ দশমিক ৯৫ কোটি টাকা। পর্যাপ্ত অর্থ না থাকায় এসব বকেয়া পরিশাধ করা সম্ভব হচ্ছে না। অর্থের সংস্থান হওয়া সাপেক্ষে এসব শ্রমিকদের গ্রাচুইটি এবং প্রভিডেন্ট ফান্ড পরিশোধ করা হবে।

সুদানে রপ্তানি করা পাটের দাম এখনও পুরোপুরি পাওয়া যায়নি জানিয়ে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী বলেন, ‘সুদানে ৬৫০ কোটি টাকা আটকে আছে, এই টাকাটা পাওয়া গেলে শ্রমিকদের বকেয়া পাওনা পরিশোধ করতে পারবো।’

(ঢাকাটাইমস/১২জুন/জেআর/জেবি)

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

অর্থনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :