নাটাবের মতবিনিময় সভা

‘যক্ষ্মায় রক্ষা মিলে সরকারি খরচেই’

বিশেষ প্রতিনিধি, ফরিদপুর
 | প্রকাশিত : ১৬ জুন ২০১৯, ২১:১৫

এক সময় বলা হতো- ‘যক্ষ্মা হলে রক্ষা নেই’। তবে এখন আর যক্ষ্মা রোগ প্রাণঘাতি রোগ নয়। বরং মাত্র ছয় মাসের চিকিৎসাতেই এই রোগ থেকে মুক্তি মিলে। আর এই চিকিৎসার সব খরচ সরকারের তরফ থেকেই বহন করা হচ্ছে। বর্তমান সরকার স্বাস্থ্যসেবাকে মানুষের দোড় গোড়ায় পৌঁছে দিয়ে এটি সহজতর করে তুলেছে।

বাংলাদেশ জাতীয় যক্ষ্মা নিরোধ সমিতি (নাটাব)-এর উদ্যোগে ফরিদপুরের সাংবাদিকদের সঙ্গে রবিবার অনুষ্ঠিত এক মতিবিনিময় সভায় এ তথ্য জানানো হয়। শহরের গোয়ালচামটে পরিচর্যা হাসপাতালের সভাকক্ষে এ সভা হয়।

সভায় জানানো হয়, ২০১৮ সালে দেশে দুই লাখ ৬৭ হাজার ২৭৬ জন যক্ষ্মা রোগীকে শনাক্ত করা হয়েছে। আর তার আগের বছর যক্ষ্মা রোগে ৫৯ হাজার জন মারা গেছে বলে জানান।

মতবিনিমিয় সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন ফরিদপুরের সিভিল সার্জন ডা. এনামুল হক।
বিশেষ অতিথি ছিলেন বক্ষব্যাধি রোগ বিশেষজ্ঞ ডা. আব্দুল জলিল। নাটাবের জেলা শাখার সভাপতি নাজমুল হক লোচনের সভাপতিত্বে সভায় আরো বক্তব্য দেন- ফরিদপুর প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক হাসানউজ্জামান, সহ-সভাপতি কামরুজ্জামান সোহেল, প্রথম আলোর প্রতিনিধি প্রবীর কান্তি পান্না বালা,  যুগান্তরের ব্যুরো প্রধান জাহিদ রিপন প্রমুখ।

বক্ষব্যাধি রোগে চিকিৎসার জন্য বিশেষায়িত হাসপাতাল ছাড়াও সরকারি হাসপাতালগুলোতে বর্তমানে বিনামূল্যে যক্ষ্মা রোগের চিকিৎসা দেয়া হয় উল্লেখ করে সভায় জানানো হয়, অনেকে সচেতনতা কিংবা অজ্ঞতার কারণে সময়মতো এ রোগের চিকিৎসা নেন না। ফলে তাদের নিকট থেকে জীবাণু নতুন করে সংক্রমনের আশঙ্কা থাকে। আবার অনেকে চিকিৎসা শুরু করলেও নিয়মিত ওষুধ সেবন করেন না। তাদের শরীরের যক্ষ্মার জীবাণু আরো শক্তিশালী হয়ে ওঠে। এজন্য সচেতনতা তৈরি জরুরি। সেই সাথে যক্ষ্মা রোগী যাতে নিয়মিত ওষুধ সেবন করেন সেজন্য তার এলাকার ইমাম, কাউন্সিলর বা সতেচন নাগরিকের মাধ্যমে তার সামনে ওষুধ নিয়মিত সেবনের ব্যবস্থা করেছে সরকার।

(ঢাকাটাইমস/১৬জুন/এলএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :