ফেসবুক লাইভে যা বললেন সোহেল তাজ

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২০ জুন ২০১৯, ১১:১২ | প্রকাশিত : ২০ জুন ২০১৯, ১১:০৬

নিখোঁজ ভাগ্নে সৈয়দ ইফতেখার আলম সৌরভকে সন্ধান পাওয়ায় সবার কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী তানজিম আহমেদ সোহেল তাজ। এজন্য পুলিশ ও প্রশাসনসহ সবাইকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

বৃহস্পতিবার সকালে নিজের ফেসবুকের ভেরিফাইড পেজে লাইভে এসে ভাগ্নের উদ্ধারের বিষয়টি জানানোর পাশাপাশি সবার কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন তিনি। সুখবর দেওয়ার জন্য তিনি সকালে ফেসবুক লাইভে এসেছেন বলে শুরুতেই জানান। এ সময় তাকে খুব হাস্যোজ্জ্বল দেখাচ্ছিল।

গত ৯ জুন সন্ধ্যায় চট্টগ্রাম নগরীর পাঁচলাইশ থানাধীন আফমি প্লাজার সামনে থেকে সোহেল তাজের ভাগ্নে সৌরভকে অপহরণ করে দুর্বৃত্তরা। ঘটনায় পরদিন পাঁচলাইশ থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন সৌরভের বাবা।

ভাগ্নে অপহরণ হওয়ার বিষয়টি নিয়ে ফেসবুক লাইভের পাশাপাশি সংবাদ সম্মেলনও কথা বলেন তিনি। এরপর আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সৌরভকে উদ্ধারে অভিযান চালায়।

নিখোঁজের ১১ দিন পর বৃহস্পতিবার ভোর সাড়ে পাঁচটার দিকে ময়মনসিংহ শেরপুর রুটের তারাকান্দার উপজেলার মধুপুরের বটতলা বাজার এলাকার জামিল অটোরাইস মিলের সামনে থেকে সৌরভকে উদ্ধার করা হয়। আর ভাগ্নে উদ্ধার হওয়ার পরপরই বিষয়টি সবাইকে জানাতে ফেসবুকে লাইভে আসেন সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী সোহেল তাজ।

সোহেল তাজ বলেন, ‘বিপদের প্রতিটি মুহূর্তে আপনাদের সঙ্গে থেকেছি। আপনাদের সঙ্গে এই সুখবর শেয়ার করতেই হবে। তিনি বলেন, ভোর ৫টা ২৭ মিনিটে তার মামাতো বোন তাকে ফোন করেন। মামাতো বোন জানান, কিছু মানুষ একটা লোকেশন থেকে তাকে (মামাতো বোন) ফোন করেন। ওই লোকেশনের নাম বলবেন না বলে জানান সোহেল তাজ। এরপর সোহেল তাজ বলেন, ওই কলে বোনকে জানানো হয়, একটা ছেলেকে ছন্নছাড়া অবস্থায় কিছু মানুষ গাড়ি থেকে ফেলে দিয়েছে। পরে ওই লোকেরা ছেলেটিকে তাদের কর্মস্থলে নিয়ে গেছেন।

সোহেল তাজ বলেন, এরপর তার পরিবারের সদস্যরা পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের ডিসির সঙ্গে যোগাযোগ করেন। পুলিশের কাউন্টার টেররিজমের ডিসি ওই এলাকার পুলিশ সুপারের (এসপি) সঙ্গে যোগাযোগ করেন। এসপি নিজে গিয়ে ইফতেখার আলম সৌরভকে ওই লোকেশন থেকে পুলিশ কাস্টডিতে নিয়ে যান। সৌরভকে পুলিশ কাস্টডি থেকে ঢাকায় আনা হচ্ছে।

ভাগ্নেকে উদ্ধারের ঘটনায় পুলিশ ও প্রশাসনসহ সবাইকে ধন্যবাদ জানান সাবেক এই প্রতিমন্ত্রী। বলেন, ‘সৌরভকে পাওয়া গেছে। ও আমাদের কাছে ফিরে আসছে। সবাইকে নিয়ে একসঙ্গে আমরা অন্তত একটা মানুষের জীবন বাঁচিয়েছি। আমরা আশা করব, এমন ঘটনা আর যেন না ঘটে। আমি আশা করব, যারা মা বাবার কাছে নেই, তারা যেন ফিরে আসে।’ শেষে তিনি সবাইকে ভালোবাসা ও শুভেচ্ছা জানান।

ঢাকাটাইমস/২০জুন/এমআর  

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :