রিফাতের ‘খুনি’ ফরাজীর ‘ভয়ঙ্কর অতীত’

নাঈমুল হাসান রাসেল, বরগুনা প্রতিনিধি
| আপডেট : ২৭ জুন ২০১৯, ১৬:২৫ | প্রকাশিত : ২৭ জুন ২০১৯, ১৫:৫৭

বরগুনায় প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় নাম আসা রিফাত ফরাজীর বিরুদ্ধে এলাকায় সন্ত্রাসে জড়িত থাকার অসংখ্য অভিযোগ রয়েছে। এর আগেও একজনকে কোপানোর অভিযোগ আছে তার বিরুদ্ধে। এ জন্য যেতে হয়েছে জেলেও। পুলিশ কর্মকর্তার বাড়িতেও তিনি দা নিয়ে হানা দিয়েছেন।

ফরাজীর বিরুদ্ধে অভিযোগের শেষ নেই। একাধিকবার হয়েছেন গ্রেপ্তার। মানুষের ওপর হামলা, মারধোর তার বিরুদ্ধে নিয়মিত অভিযোগ। আছে মাদক সম্পৃক্ততার তথ্যও।

বুধবার স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নিকে নিয়ে কলেজে যাওয়ার পথে তাদেরকে আটকে প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যা করা হয় রিফাত শরীফ নামে একজনকে। মিন্নি তার স্বামীকে বাঁচাতে আপ্রাণ চেষ্টা করেন। কিন্তু হামলাকারীদের সঙ্গে পেরে উঠেননি।

এই ঘটনার একটি ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে ফেসবুকে। যারা কুপিয়েছেন তাদের মধ্যে নয়ন বন্ড নামে স্থানীয় একজনের সঙ্গে দেখা গেছে রিফাত ফরাজীকেও। এই ঘটনায় চন্দন নামে একজন আটক হলেও পালিয়ে গেছেন নয়ন এবং ফরাজী। যদিও পুলিশ সুপার মারুফ হোসেন জানিয়েছেন, খুনিদেরকে যে কোনো মূল্যে তারা গ্রেপ্তার করবেন।

স্থানীয়রা জানান, ফরাজীর হাতে লাঞ্ছিত হয়েছেন, এমন মানুষের সংখ্যা কম নয়। তবে যতবার তিনি গ্রেপ্তার হয়েছেন, ছাড়া পেয়েছেন অল্প কয়েকদিনে। আর বিচার শেষ না হওয়ায় তিনি হয়ে উঠের বেপরোয়া। ২০১৭ সালের ১৫ জুলাই সন্ধ্যায় তরিকুল ইসলাম নামে এক প্রতিবেশীকে কুপিয়ে যখম করার অভিযোগও ছিল তার বিরুদ্ধে।

তরিকুল জানান, একদিন কথা কাটাকাটির পর ফরাজী তাকে কুপিয়ে যখম করার হুমকি দেন। মাস দেড়েক পর পর সত্যি সত্যি তাকে কোপানো হয়।

ভয়ে আমি দেড় মাস রিফাত ফরাজীর বাসার সামনে দিয়ে যেতেন না তরিকুল। আধা কিলোমিটার পথ ঘুরে বাসায় যাওয়া আসা করতেন। তবে মাস দেড়েক পর কিছু হবে না ভেবে তার বাসার সামনে দিয়ে যাচ্ছিলেন। এ সময় ধারালো অস্ত্র দিয়ে মাথায় কোপান ফরাজী-অভিযোগ তরিকুলের। এ ঘটনায় তরিকুলের বাবা বাদী হয়ে মামলাও করেন। 

একই বছর বরগুনার হোমিও চিকিৎসক আলাউদ্দিন আহমেদের ডিকেপি রোডের বাসার ছাত্র মেসে হানা দেয়ার অভিযোগ উঠে ফরাজীর বিরুদ্ধে। সেদিন ধারালো অস্ত্রের মুখে ছাত্রদের জিম্মি করে ১৪টি মোবাইল ছিনিয়ে নেওয়ার ঘটনা ঘটে। থানায় অভিযোগ করা হলে পুলিশ রিফাত ফরাজীর বাবা দুলাল ফরাজীকে আটক করে। তাৎক্ষণিকভাবে ১১টি মোবাইল ফোন ফেরত দিয়ে এবং পরে আরো তিনটি কিনে দিয়ে থানা থেকে মুক্তি পান দুলাল।

বর্তমানে ঝালকাঠি সদর থানা পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) দেলোয়ার হোসেন বলেন, ‘আমার বাসায়ও চাপাতি নিয়ে হামলা চালিয়েছিল রিফাত ফরাজী। ওই সময় আমার ঘরের আসবাবপত্র কুপিয়ে তছনছ করে হুমকি দিয়ে যায়। পরে তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। কিন্তু কিছুদিন পরই ছাড়া পেয়ে যায় সে।’

ঢাকাটাইমস/২৭জুন/প্রতিনিধি/ডব্লিউবি

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :