জঙ্গিদের জন্য বাংলা ভাষায় আচরণবিধি প্রকাশ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১২ জুলাই ২০১৯, ২১:৪২

জঙ্গি সংগঠন আল কায়েদা ভারতীয় উপমহাদেশে তাদের অনুসারীদের জন্য বাংলা ভাষায় আদর্শ আচরণবিধি প্রকাশ করেছে। একটি অডিও বার্তার মাধ্যমে আচরণবিধিটি প্রকাশ করা হয়।

ভারতের আনন্দবাজার পত্রিকা জানায়, আল-কায়েদার অন্যতম শীর্ষনেতা আনওয়ার আল আওলাকির বিভিন্ন বক্তব্যের অডিওর পাশাপাশি বাংলায় ‘দ্য বুক অব জিহাদ’ নামে একটি বইয়ে ওই আচরণবিধি প্রকাশ করা হয়। আওলাকির ভাষণের বাংলা অনুবাদ করে তারা একটি সিডিও তৈরি করেছে।

ভারতের স্বরাষ্ট্র দফতর সূত্রের খবর, সম্প্রতি ইসরায়েল ও যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থাগুলি ভারতে আল কায়েদার পরিকল্পনার বিষয়ে তাদেরকে সতর্ক করেছে। সতর্কবার্তায় বলা হয়েছে, ভারতে আল কায়েদার মূল লক্ষ্য কাশ্মীর ও পশ্চিমবঙ্গের সাথে ভারতের বাংলাভাষী এলাকা। এ দুটি এলাকায় আক্রমণের লক্ষ্যেই জঙ্গি সংগঠন আইএসের আদলে আল-কায়েদাও তাদের প্রচার মাধ্যমকে সাজিয়েছে।

আইএসকে পাল্লা দিতেই আল কায়েদা তাদের অনলাইন প্রচার মাধ্যমকে ব্যবহার করছে। ভারতের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা প্রায় দুই ডজন ওয়েবসাইট চিহ্নিত করেছেন। ওয়েবসাইটগুলোতে প্রকাশ্যে আল কায়েদার পক্ষ থেকে প্রচার চালানো হচ্ছে। এর মাঝে এক ডজনের বেশি ওয়েবসাইট বাংলায়।     

বাংলা ওয়েবসাইটগুলোতে আল-কায়েদার মতাদর্শ থেকে শুরু করে সংগঠনের শীর্ষ জিহাদি নেতাদের আরবি বক্তব্যকে বাংলায় ভাষায় প্রচার করছে। পাশাপাশি, ওয়েবসাইট ব্যবহারকারীদের অনলাইনে প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে। মোবাইল ফোনের ওপর থেকে নজরদারি এড়ানোর পাশাপাশি তাদের কোন নির্দিষ্ট ফাইল গোপনে রাখার প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে।

ইসলামিক জঙ্গি কার্যকলাপের উপরে নজর রাখা ভারতীয় একটি গোয়েন্দা সংস্থার কর্মকর্তা বলেন, ইসলামিক স্টেটের (আইএস) আধিপত্য ধ্বংস হওয়ার কারণে পশ্চিম এশিয়ার একাধিক দেশের বিভিন্ন প্রকাশ্য সংগঠনের মাধ্যমে আল-কায়েদার তহবিলে বিপুল অঙ্কের টাকা ঢালা হচ্ছে। জোরদার করা হয়েছে অনলাইন প্রচারণা।

 ‘মূলত ওয়ার্ডপ্রেসে সাইটগুলি তৈরি করা হয়েছে। সাইটগুলোকে ব্লক করার সাথে সাথে নতুন সাইট খোলা হচ্ছে।’

আরেক শীর্ষ গোয়েন্দা কর্মকর্তা বলেন, ‘বেশিরভাগ ওয়েবসাইট পশ্চিম এশিয়ার দেশ থেকে নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে। তাদের সাবেক প্রধান ওসামা বিন লাদেন জীবিত থাকা অবস্থায়ও তারা এ প্রক্রিয়ায় প্রচারণা চালাত না। বর্তমানে তারা প্রচারের জন্য নতুন কৌশল গ্রহণ করেছে।’

গোয়েন্দা সংস্থাগুলো বলছে, এতদিন আইএস ও আল কায়েদার মতো জঙ্গি সংগঠনে বাঙালিদের আলাদা করে গুরুত্ব দেয়া হয়নি। যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা প্রতিবেদনেও বলা হয়েছিল, আইএস শিবিরের মূল বাহিনীতে ভারতীয় ও বাঙালিদের যোদ্ধা হিসেবে কোনো সম্মান ছিল না। তাদের কাছে পশ্চিম এশিয়া, পাকিস্তান, আফগানিস্তান ও আফ্রিকার মুজাহিদরাই বেশি গুরুত্ব পেত।

কিন্তু আল কায়েদার সাম্প্রতিক কর্মকাণ্ড থেকে গোয়েন্দারা নিশ্চিত হয়েছে, বর্তমানে আল কায়েদার শীর্ষ নেতৃবৃন্দ বাঙালি মুজাহিদদেরই বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে। ২০১৫ সালে আফগানিস্তানে আল কায়েদার হয়ে যুদ্ধ করতে গিয়ে এক বাংলাদেশি মারা যান। আল কায়েদা তার নামে গজল প্রচার করছে। এ ধরনের প্রচারণার মাধ্যমে দুই বাংলাতেই জঙ্গি রিক্রুট করছে তারা। জামাতুন মুজাহিদিনের মতো সংগঠন আল কায়েদাকে এ নিয়োগ প্রক্রিয়ায় সাহায্য করছে বলে তারা জানতে পেরেছেন।

ঢাকাটাইমস/১২জুলাই/আরআর/ইএস

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :