খুলনায় চেয়ারম্যানের গাড়িচালকের হাতে প্রশাসনিক কর্মকর্তা লাঞ্ছিত

খুলনা ব্যুরো, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৮ জুলাই ২০১৯, ১৯:৫৯

ভুয়া বিল ও ভাউচারে স্বাক্ষর না করা এবং সন্দেহজনক প্রকল্পের চেক আটকে দেয়ায় খুলনা জেলা পরিষদের প্রশাসনিক কর্মকর্তার ওপর হামলা ও তাকে লাঞ্ছিত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের গাড়িচালক শহীদুল্লাহ লাঠি ও কোদাল নিয়ে তার ওপর হামলা চালান। পরে ঠিকাদার ও অন্য কর্মচারীরা এসে মাহবুবকে রক্ষা করেন।

জেলা পরিষদের প্রশাসনিক কর্মকর্তা এসএম মাহাবুবুর রহমান বলেন, ‘সম্প্রতি ৪০টির বেশি প্রকল্পে প্রায় কোটি টাকা বরাদ্দ হলেও নানা অনিয়মের কারণে যাচাই-বাছাইয়ের পর তা আটকে দেয়া হয়। প্রকল্পগুলোর অধিকাংশই বাস্তবে অস্তিত্ব নেই। এছাড়া দুঃস্থদের মাঝে বিনামূল্যে বিতরণের জন্য সরবরাহ করা এবারের ভ্যানগুলো খুবই নিম্নমানের। এসব ভ্যান গ্রহণ না করতে চেয়ারম্যানকে অনুরোধ জানান তিনি। এসব কারণে একটি পক্ষ তার বিরুদ্ধে উঠেপড়ে লাগে।’

তিনি বলেন, ‘চেয়ারম্যান গাড়িচালক শহিদুল্লাহ কিছু দিন আগে গাড়ির ক্যামেরা কেনার কথা বলে ২৪ হাজার ৯৭০ টাকার একটি বিল জমা দেন। পরে তিনি খোঁজ নিয়ে দেখেন ওই ক্যামেরার দাম পাঁচ হাজার টাকা। বিলটি আটকে দিয়ে তিনি বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানান। একই ব্যক্তি রূপসার আলাইপুর উত্তর শেখপড়া হযরত আবু বক্কার (রা.) মসজিদ উন্নয়নের নামে ১ লাখ টাকার একটি প্রকল্প দাখিল করেন। এই প্রকল্প নিয়ে সন্দেহ হলে সেটি আটকে দেওয়া হয়। গাড়ি চালক মো. শহিদুল্লাহ ওই প্রকল্পের চুক্তিতে সাক্ষী হিসেবে স্বাক্ষর করেছেন।’

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ‘সকালে বিল ও প্রকল্পের ফাইল ছেড়ে দিতে গাড়িচালক প্রশাসনিক কর্মকর্তাকে চাপ দেন। কিন্তু তিনি অস্বীকার করায় শহিদুল্লাহর নেতৃত্বে দুইজন লাঠি ও কোদাল নিয়ে প্রশাসনিক কর্মকর্তার ওপর হামলা চালান। এ সময় অফিসের কর্মচারী ও কয়েকজন ঠিকাদার তাদের ধরে ফেলেন। পরে তাদের বাইরে বের করে দেয়া হয়।’

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে গাড়িচালক শহিদুল্লাহ বলেন, ‘প্রশাসনিক কর্মকর্তা তার ব্যবহৃত গাড়িতে ১২ হাজার টাকার মালামাল সংযোজন করলেও তার বিল পরিশোধ করেনি। এছাড়া তার গাড়ির জন্য চারটি টায়ার দাবি করেছেন। কিন্তু অবৈধ সুবিধা না দেয়ায় তার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দেয়া হচ্ছে।’
তিনি বলেন, ‘রূপসায় তার নানা বাড়ির কাছে মসজিদ উন্নয়নের একটি প্রকল্পের ব্যাপারে তিনি ফাইল ছেড়ে দিতে অনুরোধ করেন, এ নিয়ে কিছুটা কথা কাটাকাটি হয়েছে। তবে হামলার ঘটনা ঘটেনি।’

(ঢাকাটাইমস/১৮জুলাই/এলএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :