ছেলেধরা সন্দেহে চার এনজিওকর্মীকে গণপিটুনি

ব্যুরো প্রধান, রাজশাহী
 | প্রকাশিত : ২২ জুলাই ২০১৯, ১৬:১৮
ফাইল ছবি

রাজশাহীতে ‘ছেলেধরা’ সন্দেহে একটি বেসরকারি সংস্থার (এনজিও) চার কর্মীকে গণপিটুনি দিয়েছেন গ্রামবাসী। সোমবার দুপুর পৌনে ১টার দিকে জেলার চারঘাট উপজেলার রাওথা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

গণপিটুনির শিকার চারজন হলেন- হাফিজুর রহমান (৪২), আবুল হোসেন (৪০), রেজাউল করিম (৪০) এবং আবুল কালাম (৩৯)। তারা ‘আদ-দ্বীন ওয়েলফেরা সেন্টার’ নামে একটি এনজিও’র মাঠকর্মী বলে পরিচয় দিয়েছেন।

চারঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নজরুল ইসলাম বলেন, দুপুরে রাওথা গ্রামের বাড়ি বাড়ি গিয়ে বাসিন্দাদের তাদের এনজিও’র সদস্য হওয়ার জন্য উদ্বুদ্ধ করছিলেন এই চার ব্যক্তি। তখন স্থানীয়রা তাদের ছেলেধরা সন্দেহ করে গণপিটুনি দেয়া শুরু করে। খবর পেয়ে তাদের উদ্ধার করে থানায় আনা হয়।

ওসি আরও জানান, এনজিও’র কার্যক্রম চালাতে হলে উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে লিখিতভাবে জানাতে হয়। কিন্তু এই চারজন তা করেননি। তাই তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এর আগে রবিবার রাজশাহী মহানগরীর মির্জাপুর এলাকায় শিশুদের মাঝে নিজেদের কোম্পানির চিপসের প্রচারণা চালাতে গিয়ে ছেলেধরা সন্দেহে গণপিটুনির শিকার হন তিনজন। পরে পুলিশ তাদের উদ্ধার করে।

রাজশাহীর পুলিশ সুপার মো. শহিদুল্লাহ বলেন, পদ্মা সেতুতে মাথা লাগবে এমন গুজব ছড়িয়ে দেশকে অস্থিতিশীল করার চেষ্টা চলছে। ছেলেধরার বিষয়টি একেবারেই গুজব। গুজব সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে। তবে কোনো বিষয়ে কাউকে সন্দেহভাজন মনে হলে তাকে মারধর না করে আটকে রেখে দ্রুত পুলিশকে অবহিত করার আহ্বান জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা।

ঢাকাটাইমস/২২জুলাই/আরআর/এমআর

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত