পরিকল্পিতভাবে চামড়া শিল্প ধ্বংসে সরকার: ফখরুল

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৬ আগস্ট ২০১৯, ১৬:৩৫

কোরবানির পশুর চামড়ার মূল্য পতনের জন্য সরকারকে দায়ী করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তার অভিযোগ, এটা করা হয়েছে পরিকল্পনা করে, যেন বাংলাদেশ বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করতে না পারে।

দলীয় চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার ৭৫ তম জন্মদিন উপলক্ষে শুক্রবার নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ে দোয়া-মাহফিলে এ কথা বলেন বিএনপি নেতা। ৯০ দশক থেকে বিএনপি বঙ্গবন্ধু হত্যার দিন ১৫ আগস্ট ঘটা করে এই জন্মদিন পালন করলেও এবার ১৬ আগস্ট আনুষ্ঠানিকতা পালন করছে।

দীর্ঘ বক্তব্যে বিএনপি নেতা কথা বলেন চামড়ার সাম্প্রতিক দরপতন নিয়ে। বলেন, ‘কোরবানির পরে যে চামড়া দিয়ে আমরা বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করতে পারি, অত্যন্ত পরিকল্পিতভাবে সেটিকে ধ্বংস করে দিয়েছে এই সরকার।’

‘এক সময় পাটশিল্প ধ্বংস করে ফেলা হয়েছে। আর আজ ধ্বংস করা হচ্ছে চামড়াশিল্পকে। বাংলাদেশকে পরনির্ভরশীল করার সুদূর প্রসারি যে ষড়যন্ত্র-চক্রান্ত, সেই কাজ বহুদূর এগিয়ে নিয়েছে এই সরকার।’

২০০১ সালে বিএনপি সরকার ক্ষমতায় আসার পর লোকসানের কথা বলে বন্ধ করে দেওয়া হয় এশিয়ার বৃহত্তর পাটকল আদমজী জুট মিল। এ জন্য বিএনপিকে এখনও আক্রমণ করে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ।

দুর্নীতির দুই মামলায় দণ্ডিত বেগম খালেদা জিয়াকে বন্দী রাখার পেছনেও ‘ষড়যন্ত্র’ দেখছেন ফখরুল। বলেন, ‘তিনি (খালেদা জিয়া) যদি বাইরে থাকতেন, তাহলে বাংলাদেশকে যে পরনির্ভরশীল করে ফেলা হচ্ছে, অর্থনীতিকে যে ফোঁকলা করে ফেলা হচ্ছে, এটা সম্ভব হতো না।’

‘বাংলাদেশকে অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে নেওয়ার জন্য খালেদা জিয়া একটি একটি করে পদক্ষেপ গ্রহণ করেছিলেন। ২০০৫-০৬ এর দিকে খালেদা জিয়া যখন ক্ষমতায় তখন বাংলাদেশকে বলা হয়েছিল উদীয়মান ব্যাঘ্র । বলা হয়েছিল যে, আগামী ১০ বছরে যে ১১টি দেশ মধ্যমআয়ের দেশে পরিণত হবে, তার মধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম।’

‘আজকে আওয়ামী লীগের নেতারা অনেক কথা বলেন। কিন্তু প্রতিটি উন্নয়নের ভিত্তি স্থাপন প্রথমে করেছেন জিয়াউর রহমান, তারপর সেটাকে এগিয়ে নিয়ে গেছেন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া।’

আইন-আদালতের মাধ্যমে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা যাবে না বলেও মনে করেন বিএনপি নেতা। এ জন্য আন্দোলন করতে হবে বলে মনে করেন তিনি। ফখরুল বলেন, ‘আমাদেরকে সুসংগঠিত হতে হবে, আন্দোলনের মধ্য দিয়েই দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে হবে— এর কোনো বিকল্প নেই।’

‘আজকের এই দিনে তার দীর্ঘায়ু কামনা করব, নিজেদেরকে সংগঠিত করে তার মুক্তির আন্দোলন করব, এই শপথ আমরা নিই। এটাই হোকে বেগম খালেদা জিয়ার ৭৫তম জন্মদিনে আমাদের শপথ।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ, নজরুল ইসলাম খান, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, সেলিমা রহমান, ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, শওকত মাহমুদ, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী প্রমুখ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

ঢাকাটাইমস/১৬আগস্ট/বিইউ/ডব্লিউবি

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :