ধানমন্ডির জোড়া খুনে তিন আসামি ফের রিমান্ডে

আদালত প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১১ নভেম্বর ২০১৯, ১৮:৫৭
ফাইল ছবি

রাজধানীর ধানমন্ডিতে গৃহকর্ত্রী আফরোজা বেগম এবং গৃহকর্মী দিতির জোড়া খুনের মামলায় পাঁচ দিনের রিমান্ড শেষে তিন আসামির আবার একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত। 

ফের সাত দিনের রিমান্ড আবেদনের শুনানি শেষে সোমবার ঢাকা মহানগর হাকিম আবু সাঈদ এই রিমান্ডের আদেশ দেন।

রিমান্ডে যাওয়া তিন আসামি হলেন- ইলেকট্রিশিয়ান বেলায়েত, বাড়ির ব্যবস্থাপক গাউসুল আজম প্রিন্স ও আতিকুল হক বাচ্চু।

এদিকে একই সঙ্গে রিমান্ডে যাওয়া আরেক আসামি নুরুজ্জামানের ফের রিমান্ড আবেদন না থাকায় কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছে একই আদালত।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) পরিদর্শক (নিরস্ত্র) মো. রবিউল আলম চার আসামিকে আদালতে হাজির করেন। তিন আসামির ফের সাত দিনের রিমান্ড এবং আর আসামি নুরুজ্জামানকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন।

বাদীপক্ষের আইনজীবীরা রিমান্ড মঞ্জুরের পক্ষে শুনানি করেন। তারা বলেন, মামলার বাদী ঢাকা বারের একজন আইনজীবী। তার মা ও কাজের মেয়েকে ছুরি দিয়ে নৃশংসভাবে হত্যা করেছে। এ মামলার আরেক আসামি সুরভীর পক্ষে দুজন মানুষকে একার পক্ষে একই সময়ে হত্যা করা সম্ভব নয়। কারা সুরভীকে সাহায্য করেছে এবং তাকে বাসায় এনেছে তা জানার জন্য রিমান্ড মঞ্জুরের প্রার্থনা করছি।

শুনানিতে আসামি বেলায়েতের আইনজীবী বলেন, এটি একটি নির্মম, দুঃখজনক ঘটনা। বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় দেখেছি সুরভীকে বাইরে বের হতে না দেয়ায় সে এই হত্যাকাণ্ড ঘটায়। ঘটনার সময় বেলায়েত নামাজ পড়তে গিয়েছিলেন। এসে দেখে এই ঘটনা ঘটে গেছে। তাছাড়া তাকে আগে পাঁচ দিনের রিমান্ডে নেয়া হয়েছে। রিমান্ডে নিয়ে তেমন কিছু পায়নি। আর এখন রিমান্ড দেয়া মানে টর্চার করা। প্রয়োজনে তাকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদ করা হোক।

বাচ্চুর আইনজীবী বলেন, সুরভী এ ঘটনা ঘটিয়ে ভেগে যায়। বাচ্চু বাইরে ছিলেন। হয়রানি করার জন্য তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। প্রয়োজনে তাকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদ করা হোক।

প্রিন্সের আইনজীবী বলেন, এই আসামি ঘটনাস্থলে ছিল না। তাকে আগে পাঁচ দিনের রিমান্ডে নেয়া হয়েছে। তেমন কিছু পায়নি। এখন রিমান্ডের প্রয়োজন নেই। উভয় পক্ষের শুনানি শেষে বিচারক একদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে গত ৫ নভেম্বর রিমান্ডে ও কারাগারে যাওয়ার আসামি এবং বর্তমানে কারাগারে থাকা আসামির গৃহকর্মী মোছা. সুরভী আক্তার নাহিদার পাঁচ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। রিমান্ডের একদিন পরই গত ৭ নভেম্বর সুরভী আদালতে দোষ স্বীকার করে জবানবন্দি দেন।

গত ১ নভেম্বর সন্ধ্যায় ধানমন্ডির ২৮ নম্বর রোডে ওই বাসায় এই জোড়া খুনের ঘটনা ঘটে।  ৩ নভেম্বর আফরোজা বেগমের মেয়ে অ্যাডভোকেট দিলরুবা সুলতানা রুবি বাদাী হয়ে ধানমন্ডি থানায় মামলা করেন।

(ঢাকাটাইমস/১১নভেম্বর/আরজেড/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

আদালত বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :