বার্লিনে লিবিয়া সম্মেলন: ক্ষীণ আশার আলো

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকা টাইমস
| আপডেট : ২১ জানুয়ারি ২০২০, ১২:৪১ | প্রকাশিত : ২১ জানুয়ারি ২০২০, ১২:৩৮

রবিবার জার্মানির বার্লিনে অনুষ্ঠিত লিবিয়া সম্মেলনে নেয়া সিদ্ধান্তগুলো বাস্তবায়িত হবে কিনা তা ভবিষ্যৎই বলে দেবে৷ এ নিয়ে জার্মানভিত্তিক সংবাদমাধ্যম ডয়চে ভেলে বিশ্লেষণমূলক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। সেটি ঢাকা টাইমস পাঠকদের জন্য তুলে ধর হলো-

অনেকদিন ধরে জার্মানি বৈশ্বিক বিভিন্ন ইস্যুতে তার ভূমিকা পালনে হিমশিম খাচ্ছিলো৷ বা অন্যভাবে বললে বলা যায় যে, অন্যতম শিল্পোন্নত দেশ ও ইউরোপের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ রাষ্ট্র হওয়া সত্ত্বেও জার্মানি দায়িত্ব পালন করতে পারছিল না৷

এই অবস্থায় রবিবার ফ্রান্স, রাশিয়া, তুরস্ক ও মিশরের প্রেসিডেন্টকে বার্লিনে স্বাগত জানান জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷ ব্রিটেন ও ইটালির প্রধানমন্ত্রীও ছিলেন সেখানে৷ যুক্তরাষ্ট্র তার পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে আর আরব আমিরাত, ইইউ ও আফ্রিকান ইউনিয়ন তাদের প্রতিনিধিদের বার্লিনে পাঠিয়েছিল৷

আর লিবিয়ার দুই পক্ষ - জাতিসংঘ সমর্থিত সরকারের প্রধান ফায়েজ এল-সারাজ ও লিবিয়ার একটি বড় অংশের নিয়ন্ত্রণ নেয়া খলিফা হাফতারও বার্লিনে উপস্থিত ছিলেন৷ তবে তারা একে অপরের সঙ্গে সরাসরি কোনো কথা বলেননি৷ এর মধ্য দিয়েই আসলে লিবিয়ার বর্তমান পরিস্থিতি সম্পর্কে একটা ধারণা পাওয়া যায়৷

২০১১ সালে গাদ্দাফির পতনের পর থেকে লিবিয়ায় গৃহযুদ্ধ চলছে৷ এর সমাধানে বিভিন্ন সময় আন্তর্জাতিক অনেক পক্ষ যুক্তও হয়েছে৷ তবে তারপরও সিরিয়ার গৃহযুদ্ধের তুলনায় লিবিয়ার পরিস্থিতি কমই গুরুত্ব পেয়েছে৷

লিবিয়া নিয়ে আন্তর্জাতিক সম্মেলন আয়োজনে অন্যদের চেয়ে জার্মানি সুবিধাজনক অবস্থানে ছিল৷ কারণ ২০১১ সালে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে লিবিয়া নিয়ে ভোটের সময় জার্মানি অনুপস্থিত ছিল৷ গাদ্দাফির বিরুদ্ধে সামরিক অভিযান চালাতে ভোট দিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন ও ফ্রান্স৷ ওই সময় ভোটদানে বিরত থাকায় জার্মানির অনেক সমালোচনা হলেও সেদিনের সেই সিদ্ধান্ত বর্তমানে সুবিধা হয়ে দেখা দিয়েছে৷ ফলে জার্মানি সফলভাবে লিবিয়া সম্মেলন আয়োজন করতে পেরেছে৷

ইউরোপীয়রা নিজেদের স্বার্থেই চাইবে লিবিয়া পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে থাকুক৷ কেননা, উত্তর আফ্রিকা থেকে ইউরোপে শরণার্থীদের আসার প্রধান পথ এখন লিবিয়া৷ বছর চারেক আগে ইউরোপে আসা শরণার্থীদের ঢল এই অঞ্চলে পপুলিস্ট ও জাতীয়তাবাদী মনোভাবকে উসকে দিয়েছিল৷

বাস্তবায়ন হওয়ার আগ পর্যন্ত বার্লিন সম্মেলনে নেয়া সিদ্ধান্তগুলো শুধু একটি কাগজ মাত্র৷ তবে কিছু না করার চেয়ে এটি ভালো৷

ঢাকা টাইমস/২১জানুয়ারি/একে

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :