স্থপতি বশিরুল হক আর নেই

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ০৪ এপ্রিল ২০২০, ২০:৪৯ | প্রকাশিত : ০৪ এপ্রিল ২০২০, ২০:৩৬

দেশের কীর্তিমান স্থপতি বশিরুল হক আর নেই। শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় গণস্বাস্থ্যকেন্দ্র হাসপাতালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইয়ালাহি রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৭ বছর।

বশিরুল হকের বড় ছেলে তারেক ওমর আলীর বরাতে সাংবাদিক শোয়েব সর্বনাম ঢাকাটাইমসকে এ তথ্য জানান।

ছায়ানট ভবন ও আশা প্রধান অফিস ভবনসহ শতাধিক ভবনের স্থপতি বশিরুল হক গত বছর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের নকশার প্রধান রূপকার ‘হামিদুর রাহমান পুরস্কার’ পান। এর আগে আগা খান অ্যাওয়ার্ড ফর আর্কিটেকচারের জন্য ১৯৮০, ১৯৯২ ও ২০০১ সালে মনোনীত হন তিনি।

তার স্ত্রী অধ্যাপক ফেরদৌস আজিম ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের চেয়ারপারসন।

বশিরুল হকের বড় ছেলে তারেক ওমর আলী আমেরিকার একটা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক। আর ছোট ছেলে যাইন আলি পার্থ জীববিজ্ঞানী হিসেবে সুইডেনে কর্মরত।

বশিরুল হক ১৯৪২ সালের ২৪ জুন তৎকালীন ব্রিটিশ ভারতের বেঙ্গল প্রেসিডেন্সির ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় জন্মগ্রহণ করনে। তার পিতা ছিলেন সিলেট জেলার ডেপুটি কালেক্টর। পিতার চাকরির কারণে তার শৈশব কাটে সিলেটে। তিনি পাকিস্তানের লাহোরের ন্যাশনাল কলেজ অফ আর্টস থেকে ব্যাচেলর অফ আর্কিটেকচার ডিগ্রি লাভ করেন। তিনি ১৯৭১ সালে যুক্তরাষ্ট্রের নিউ মেক্সিকো বিশ্ববিদ্যালয় থেকে "জন হাইম্‌রিখ টিউশন বৃত্তি" লাভ করেন। এই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৭৫ সালে তিনি মাস্টার্স ডিগ্রি অর্জন করেন। তার কর্মজীবনে তিনি তিন শতাধিক ভবনের নকশা করেছেন।

বশিরুল হকের স্থাপত্যশৈলীতে সাংস্কৃতিক উপাদান, স্থানীয় বিষয়বস্তু, শহুরে টেকসই নির্মাণ এবং প্রাকৃতিক আলো ও বাতাসের ব্যবহার লক্ষণীয়। তার নকশাকৃত ভবনে হস্তনির্মিত ইট, কংক্রিট, ও প্রাকৃতিক কাঠের মত উপাদানের ব্যবহার দেখা যায়।

বশিরুল হকের করা স্থাপনার মধ্যে রয়েছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ভাতশালা হাউজ, মগবাজারের রমনা অ্যাপার্টমেন্ট কমপ্লেক্স, সেঞ্চুরি অ্যাপার্টমেন্ট কমপ্লেক্স, সেঞ্চুরি টাওয়ার, ধানমন্ডির লেক ভিউ অ্যাপার্টমেন্ট কমপ্লেক্স, সেগুনবাগিচা অ্যাপার্টমেন্ট কমপ্লেক্স, ইন্দিরা রোডে কালিন্দি অ্যাপার্টমেন্ট কমপ্লেক্স, ধানমন্ডির ধানসিঁড়ি অ্যাপার্টমেন্ট কমপ্লেক্স, অশ্র অ্যাপার্টমেন্ট ও গুলশান প্রাইড।

এছাড়াও তার নকশায় করা অফিস ভবনের মধ্যে রয়েছে মহেশখালীর কমিউনিটি ডেভলপমেন্ট সেন্টার, কক্সবাজার জার্মান রেড ক্রস কমিউনিটি বেসড মাল্টিপারপাস সাইক্লোন শেল্টারস, সাইক্লোন রেসিস্ট্যান্ট হাউজিং কক্সবাজার ও ধানমন্ডির মিডাস সেন্টার।

ঢাকাটাইমস/০৪এপ্রিল/ইএস

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :