সুদের বোঝা কমাতে সরকারের ২ হাজার কোটি টাকা ভর্তুকি

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ৩১ মে ২০২০, ১৪:৫৮ | প্রকাশিত : ৩১ মে ২০২০, ১৪:৫৪

বাণিজ্যিক ব্যাংক থেকে গ্রাহকদের নেওয়া ঋণের সুদের বোঝা কমাতে সরকার দুই হাজার কোটি টাকা ভর্তুকি দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে। এটি প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত ১৯ তম বিশেষ প্রণোদনা প্যাকেজ।

রবিবার সকালে গণভবন থেকে এক ভিডিও কনফারেন্সে বক্তৃতাকারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘যেহেতু দুই মাসে সুদ স্থগিত করা ছিল। এখানে সুদের পরিমাণ ১৬ হাজার ৫৪৯ কোটি টাকা। এই সুদের মধ্যে দুই হাজার কোটি টাকা সরকার বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে ভর্তুকি দিবে। যা আনুমানিকহারে ঋণগ্রহীতাদের আর পরিশোধ করতে হবে না।’

এবারের এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশকালে এই বক্তৃতা করছিলেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যেহেতু দীর্ঘদিন সবই বন্ধ ছিলো। এখন আমরা আস্তে আস্তে সবকিছু উন্মুক্ত করে দিচ্ছি। অনেকই ব্যাংক থেকে লোন নিয়েছেন। যেহেতু তাদের ব্যবসা চালাতে পারেনি সেখানে ঋণভারে যাতে জর্জরিত না হয়। তার জন্য আমরা বিভিন্ন ব্যবস্থা নিয়েছি। ইতিমধ্যে আমরা এক লাখ কোটি (এক লাখ এক হাজার ১১৭ কোটি টাকা) টাকার ওপরে বিশেষ প্রণোদনা দিয়েছি যেটা আমাদের জিডিপির ৩ দশমিক ৬ ভাগ। এত প্রণোদনা পৃথিবীর অন্যকোনো দেশ দিয়েছে কি না আমরা জানি না।’

ইতিপূর্বে সরকার ১৮টি প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এখন অর্থমন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্ট সকলের সঙ্গে বসে আমরা আরেকটা প্যাকেজ ঘোষণা করছি। সেটা হলো যেহেতু দুই মাসে সুদ স্থগিত করা ছিল। এখানে সুদের পরিমাণ ১৬ হাজার ৫৪৯ কোটি টাকা। এই সুদের মধ্যে দুই হাজার কোটি টাকা সরকার বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে ভর্তুকি দিবে। যা আনুমানিকহারে ঋণগ্রহীতাদের আর পরিশোধ করতে হবে না। তাদেরকে এইটুকু আমরা মুক্ত করে দিচ্ছি। আর সুদের যে অবশিষ্ট অর্থ সেটা ১২ মাসের কিস্তিতে ঋণগৃহীতারা বাণিজ্যিক ব্যাংকে পরিশোধ করবে। অর্থ্যাৎ যেটা প্রতি মাসে দিতে হতো, এটা এই দুইমাসে যেহেতু দিতে পারেনি, তাই আমরা ১২ মাসের একটা সময় দিয়ে দিচ্ছি। এতে ধীরে ধীরে তারা বাকিটা শোধ করতে পারবে সেই ব্যবস্থা নিচ্ছি।’

সরকার এই দুইহাজার কোটি টাকা ভর্তুকি দেওয়ায় আনুমানিক এক কোটি ৩৮ লাখ ঋণগ্রহীতা উপকৃত হবেন উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘তারা উপকার পাবেন, কারণ এই কোভিড ১৯ কারণে তাদের ব্যবসা-বাণিজ্য সব বন্ধ ছিল। কাজেই সেই কারণে এই সুযোগটা আমরা তাদের দিয়ে দিচ্ছি। যাতে তারা তাদের ব্যবসা-বাণিজ্য চালাতে পারে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘এই ২ হাজার কোটি টাকাসহ সরকার ঘোষিত ১৯টি প্রণোদনা প্যাকেজের মোট পরিমাণ দাঁড়ালো এক লাখ তিন হাজার ১১৭ কোটি টাকা। যা জিডিপির ৩ দশমিক ৭ শতাংশ। আমি জানি না পৃথিবীর অন্যকোনো দেশ এভাবে দিয়েছে কি না। কিন্তু আমরা সেভাবে এই সুযোগটা দিচ্ছি। এর বাইরে আমরা কওমি মাদরাসা ও মসজিদে ভিন্নভাবে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল থেকে আর্থিক সহায়তা দিয়েছি।’

এসময় গণভবন অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব মো. তোফাজ্জল হোসেন মিয়া।

(ঢাকাটাইমস/৩১মে/টিএ/এইচএফ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :