জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে বিএনপির সাত মনোনয়নপ্রত্যাশীর নালিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৮:৪৮ | প্রকাশিত : ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৮:০৩

ঢাকা-১৮ আসনের উপনির্বাচনকে ঘিরে সংঘর্ষের ঘটনায় মনোনয়নপ্রত্যাশী এসএম জাহাঙ্গীরকে দায়ী করেছে বিএনপির একটি অংশ। সম্প্রতি গুলশান কার্যালয়ের সামনের ঘটনা তদন্ত করে দায়িদের বিচার চেয়ে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের কাছে বিচারও দিয়েছেন এসব নেতারা। অভিযোগকারীরা সবাই মনোনয়নপ্রত্যাশী।

গত ১৪ সেপ্টেম্বর তারেক রহমানের বরাবরে পাঠানো আবেদনে স্বাক্ষর করেছেন ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির সহ-সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান সেগুন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এম কফিল আহমেদ, দক্ষিণখান থানা বিএনপির সাবেক সভাপতি মো. ইসমাইল হোসেন, ঢাকা উত্তরের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. আক্তার হোসেন, সহ-সাধারণ সম্পাদক হাজী মোস্তফা জামান, ঢাকা-১৮র মনোনয়ন প্রত্যাশী মো. বাহাউদ্দিন সাদী ও বাংলাদেশ ট্যাক্স ল’ইয়ার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মো. আব্বাস উদ্দিন।

তারেক রহমানের কাছে বিচার চেয়ে দেয়া আবেদনে বলা হয়, গত ১২ সেপ্টেম্বর উপনির্বাচনে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাতকারের জন্য ডাকা হয় গুলশান কার্যালয়ে। সেখানে সব মনোনয়ন প্রত্যাশীর সমর্থকরা শান্তিপূর্ণভাবে অবস্থান করছিলেন। কিন্তু যুবদল নেতা এস এম জাহাঙ্গীরের লোকজন প্রথম দফায় এস এম কফিল উদ্দিনের সমর্থকদের ওপর হামলা করে। এতে বেশ কয়েকজন আহত হয়।

এতে অভিযোগ করা হয়, হামলায় জাহাঙ্গীরের শ্যালক ছাত্রলীগ নেতা দিপু শিকদার নেতৃত্ব দিয়েছেন। তার আরেক শ্যালক আহম্মেদ আলী সাগর, দক্ষিণখান থানা ছাত্রদলের সহসভাপতি আল আমিন সরকার, ঢাকা উত্তর ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন রুবেল ও শরিয়তপুরের মনিরুল ইসলাম সোহাগ।

অভিযোগপত্রে বলা হয়, দ্বিতীয় দফায় আরেক মনোনয়ন প্রত্যাশী মোস্তাফিজুর রহমান সেগুনকে জাহাঙ্গীরের সমর্থকরা লাঠিসোটা নিয়ে কার‌্যালয়ে ঢুকতে বাধা দেয়। পরে গুলশান কার‌্যালয়ের লোকজনের সহায়তায় তিনি সাক্ষাতকারের জন্য প্রবেশ করেন।

তৃতীয় দফায় হামলার নেতৃত্ব দেন যুবদল নেতা মাসুদ আলম মিঠু, আলমগীর হোসেন, আমিনুল হক, মোস্তফা কামাল রিয়াদ, তুরাগ থাকার যুবদল নেতা আলমাস আলী, উত্তরাপূর্ব থানা বিএনপির এস আই টুটুল একযোগে গুলশান কার্যালয়ে ঢুকে পড়ে। কার‌্যালয়ের নীচ তলায় অপেক্ষমাণ ব্যক্তিদের ওপর হামলা করলে উদ্যত হলে সেখানকার লোকজনের বাধায় তারা বের হয়ে যায়।

এতে আরো অভিযোগ করা হয়, চতুর্থ দফায় উত্তরখান থাকা যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক শাকিল খান সাবেক ছাত্রনেতা মতিউর রহমান মতিকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করেন।

অভিযোগ পত্রে এই সাত মনোনয়নপ্রত্যাশী গত সংসদ ও সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপির মনোনীত কাউন্সিলর প্রার্থীদের পক্ষে এস এম জাহাঙ্গীরের কাজ না করার অভিযোগ করেন। তাই সাক্ষাতকারের দিনের সংঘর্ষ ও অন্যান্য বিষয় তদন্ত করার পর ঢাকা-১৮আসনে প্রার্থী ঘোষণা করতে দলের হাইকমান্ডের প্রতি আহ্বান জানান।

(ঢাকাটাইমস/১৭সেপ্টেম্বর/বিইউ/ইএস)

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :