ইসির পদত্যাগ চাইলেন সালাউদ্দিন, সিইসিকে হুঁশিয়ারি সোহেলের

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৮ অক্টোবর ২০২০, ১৮:৫১

উপনির্বাচনে পরাজিত হওয়ার একদিন পর পূর্বঘোষিত মানববন্ধন কর্মসূচি থেকে নির্বাচন কমিশনের পদত্যাগ চাইলেন ঢাকা-৫ আসনের বিএনপির প্রার্থী সালাহউদ্দিন আহমেদ। একইসঙ্গে সরকারেরও পদত্যাগ চেয়েছেন বিএনপির কেন্দ্রীয় বাণিজ্য সম্পাদক সালাউদ্দিন। অন্যথায় পদত্যাগের দাবিতে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তিনি।

রবিবার বিকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে একই অনুষ্ঠানে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের (সিইসি) প্রতি ইঙ্গিত করে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব হাবিব-উন-নবী খান সোহেল বলেছেন, ‘জনগণের ভোটের অধিকার হরণ করে দিনের ভোট রাতে করার কারণে আজ হোক কাল হোক এই প্রধান নির্বাচন কমিশনারের ফাঁসি বাংলাদেশের মাটিতে হবেই।’

মানববন্ধন থেকে সোমবার বেলা ১১টায় প্রেসক্লাবে বিক্ষোভ কর্মসূচির ঘোষণা দেয় ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপি।

সালাহউদ্দিন আহমেদ বলেন, আজকে স্পষ্টভাবে বলতে চাই, দেশের মানুষ এখন আর ঘরে বসে থাকবে না। যেভাবে সন্ত্রাস, নারী নির্যাতন হচ্ছে সেটা মেনে নেয়া যায় না। কাজেই এই সরকারের পতন ছাড়া বিকল্প কোনো পথ নাই।

ঢাকা-৫ এর উপনির্বাচনের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, এই নির্বাচন ছিল একটি প্রহসনের নির্বাচন। ভোটাররা কেউ যায়নি। বিএনপির কোনো পোলিং এজেন্ট ছিল না। সবাইকে মারধর করে বুথ থেকে বের করে দেয়া হয়েছে। তাহলে এই অবৈধ সরকার এবং নির্বাচন কমিশন কোথায় থেকে এই ভোট দিল? তাই আমি আবারও এই অবৈধ সরকার এবং নির্বাচন কমিশনের পদত্যাগ দাবি করছি।

বিএনপি নেতা সোহেল বলেন, ‘আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে কখনও ভোটারদের কাছে যেতে দেখি নাই। সে শুধু এসপি ও প্রশাসনের কার্যালয়ে দৌড়াদৌড়ি করেছে। কিভাবে ভোট ডাকাতি করা যায় সেই ব্যবস্থা করেছে। বিএনপির প্রার্থী সালাউদ্দিন আহমেদ যখন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন তখন আওয়ামী লীগের প্রার্থী তার সমস্ত মেধা-বুদ্ধি দিয়ে প্রশাসনের সহযোগিতায় এবং তার গুন্ডা বাহিনীর সহযোগিতায় ভোটের ফল তার দিকে নিয়ে গেছে।’

তিনি বলেন, ‘নির্বাচনের দিন আমি নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করার জন্য সেই এলাকায় (ঢাকা ৫) গিয়েছিলাম। গিয়ে দেখি সেই এলাকায় গুন্ডাপান্ডা দিয়ে ভর্তি। শুধু ভোটাররাই নয়, সাধারণ জনগণও সেদিন বাসা থেকে বের হতে পারেন নাই। বাসা থেকে বের হলেই ভোটাররা দেখতে পেয়েছে বাসার সামনে এলাকার সবচেয়ে বড় গুন্ডা এবং ঢাকার আশেপাশের সব গুন্ডা দাঁড়িয়ে আছে। যার কারণে ভোটাররা ভোটকেন্দ্রেও যেতে পারেনি।’

ঢাকা মহানগর বিএনপির দক্ষিণের সভাপতি সোহেল বলেন, দেশে নাকি আইন হয়েছে ধর্ষণ করলে ‘মৃত্যুদণ্ড’। কিন্তু যারা দিনের ভোট রাত্রে করে অবৈধভাবে একটি দলকে ক্ষমতায় বসিয়েছে, যার কারণে দেশে আজ খুন-রাহাজানি, আমাদের মা-বোনরা ধর্ষিত হচ্ছে তাদের বিচার কি হবে না? তাদেরও ফাঁসি হতে হবে। রাত ১২টা ১ মিনিটে নয়, দুপুর ১২টা ১ মিনিটে প্রকাশ্যে দিবালোকে আজ হোক কাল হোক এই প্রধান নির্বাচন কমিশনারের ফাঁসি এই বাংলাদেশের মাটিতেই হবে। যাতে পরবর্তীকালে আর কোনো প্রধান নির্বাচন কমিশনার জনগণের ভোটাধিকার কেড়ে নিতে সাহস না পায়।’

এ সময় তিনি ঢাকা-৫ আসনের নির্বাচন বাতিল করে পুননির্বাচন দেয়ার জোর দাবি জানান।

মানববন্ধনে আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক তানভীর আহমেদ রবিন, স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক আবদুল কাদের ভূঁইয়া জুয়েল, ছাত্রদল সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল ও মহানগর দক্ষিণ যুবদলের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মওলা শাহিন প্রমুখ।

(ঢাকাটাইমস/১৮অক্টোবর/বিইউ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :