পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির মুসলিম বিদ্বেষী প্রচারণা ব্যর্থ হয়েছে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ০৬ মে ২০২১, ২১:৩৯

বিজেপি ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে মুসলিম বিদ্বেষী প্রচারণা চালিয়ে হিন্দুদের মধ্যে যতটা সমর্থন পেয়েছিল, পশ্চিমবঙ্গে এবারের বিধানসভা নির্বাচনে সেটা ধরে রাখতে ব্যর্থ হয়েছে।

পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচন নিয়ে ভারতের দ্য হিন্দু এক বিশ্লেষণী প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) ২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনের তুলনায় এ বছর পশ্চিমবঙ্গে অনেক ভোট বেশি পেয়েছে, তুলনামূলকভাবে বেশি আসনেও জিতেছে। কিন্তু সেসময় হিন্দু জনগোষ্ঠীদের মধ্যে দলটির যে সমর্থন ছিল এবার তা কমে গেছে।

বিজেপির মুসলিম বিদ্বেষী প্রচারণায় এবার উল্টো তৃণমূলেরই লাভ হয়েছে। ২০১৯ সালে এই রাজ্যে হিন্দুদের মধ্যে তৃণমূলের সমর্থন ছিল ৩২ শতাংশ, যা এবার বেড়ে ৩৯ শতাংশ হয়েছে। বিজেপির হিন্দুত্ববাদী প্রচারণার পরও হিন্দুরা বেশি করে তৃণমূলকেই ভোট দিয়েছে।

এবারের নির্বাচনী প্রচারণায় ‘জয় শ্রী রাম’ এর মতো বিতর্কিত স্লোগান, অবৈধ অনুপ্রবেশ নিয়ে আলোচনা, তৃণমূলের বিরুদ্ধে মুসলিম তোষণের অভিযোগ তুলে নিজেদের ‘মুসলিমবিরোধী’ হিসেবে উপস্থাপন করেছে বিজেপি। বিজেপির নেতারা সরাসরি বলেছেন ‘পশ্চিমবঙ্গ মিনি-পাকিস্তান হয়ে উঠছে’। তারা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ‘বেগম’ কখনও বা ‘খালা’ বলেও সম্বোধন করেছেন।

দ্য হিন্দুর প্রতিবেদনে বলা হয়, লোকনীতি-সিএসডিএস পরিচালিত নির্বাচন পরবর্তী সমীক্ষা থেকে ‘হিন্দুদের একত্রীকরণে’ বিজেপির ব্যর্থতার ইঙ্গিত পাওয়া যায়। এই মুহূর্তে পশ্চিমবঙ্গে হিন্দুদের মনস্তত্ব কীভাবে কাজ করছে সেই চিত্রও সমীক্ষায় উঠে এসেছে।

গত লোকসভা নির্বাচন পরবর্তী সমীক্ষায় পশ্চিমবঙ্গ ও ভারতের অন্যান্য অংশে উত্তরদাতারা ধর্মনিরপেক্ষতা, মন্দির-মসজিদ বিরোধ ও সংখ্যালঘু অধিকার সম্পর্কে তাদের মতামত জানিয়ে একগুচ্ছ প্রশ্নের উত্তর দিয়েছিল। আশ্চর্যের বিষয় হলো, রাজনৈতিক মেরুকরণ সত্ত্বেও, পশ্চিমবঙ্গে তখন কিংবা এখনও সাম্প্রদায়িকতা মাথাচাড়া দেয়নি।

ওই সমীক্ষায় দেখা যায়, পশ্চিমবঙ্গে বিজেপিকে যারা ভোট দিয়েছেন তারাসহ অধিকাংশ হিন্দুই বেশিরভাগ প্রশ্নের উত্তরে ধর্মনিরপেক্ষতা ও বহুত্ববাদের পক্ষে মতামত দিয়েছেন, যা ভারতের অন্যান্য রাজ্যের চেয়ে অনেক বেশি। উদাহরণস্বরূপ, ১৯৯২ সালে বাবরি মসজিদ ধ্বংস নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে পশ্চিমবঙ্গের বাইরে অন্য সব রাজ্য মিলিয়ে পাঁচ ভাগের দুই ভাগ মানুষ মসজিদ ভাঙার বিরুদ্ধে বলেছেন। অন্যদিকে, পশ্চিমবঙ্গে প্রতি পাঁচ জন হিন্দুর মধ্যে মাত্র একজন বলেছিলেন যে, এটি কোনো অন্যায় ছিল না।

একইভাবে, বাংলায় হিন্দুদের মধ্যে সংখ্যাগরিষ্ঠ অংশ (৮১ শতাংশ) মনে করে যে, ভারত কেবল হিন্দুদের নয়, এটি সকল ধর্মের একটি দেশ। দেশের অন্যান্য অঞ্চলে হিন্দুদের মধ্যে ৭৪ শতাংশ এই উত্তর দিয়েছিল।

সংখ্যালঘু অধিকার রক্ষার ইস্যুতে পশ্চিমবঙ্গের ৩৮ শতাংশ হিন্দু এই প্রস্তাবের সঙ্গে একমত হয়েছিলেন যে, সংখ্যাগরিষ্ঠ সম্প্রদায়ের পছন্দ না হলেও সরকারকে সংখ্যালঘুদের স্বার্থ রক্ষা করতে হবে। সমীক্ষায় এই প্রশ্নটি দুবার রাখা হয়েছিল। দ্বিতীয়বারে ৫৮ শতাংশ হিন্দু এ প্রস্তাবে একমত হয়।

(ঢাকাটাইমস/০৬মে/কেআই

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :