বাড়ি বাড়ি গিয়ে করোনা পরীক্ষার উদ্যোগ সাংসদ তন্ময়ের

বাগেরহাট প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৫ জুন ২০২১, ১৮:০৫

বাগেরহাটে করোনা সংক্রমণ উদ্বেগজনক হারে বাড়তে থাকায় বেশি বেশি নমুনা পরীক্ষার উদ্যোগ নিয়েছেন স্থানীয় সাংসদ শেখ সারহান নাসের তন্ময়। বাগেরহাট স্বাস্থ্য বিভাগের সহযোগিতায় শেখ তন্ময়ের ব্যক্তিগত উদ্যোগে এই কার্যক্রম চালু হল।

মঙ্গলবার সকালে ‘হটলাইনে ফোন করি, নমুনা সংগ্রহকারী যাবে আপনার বাড়ি’ এই স্লোগানে বাগেরহাট সদর হাসপাতালে এই কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আজিজুর রহমান।

০১৯২০-৯২২২২৯ এই হললাইন নম্বরে কল করলে করোনা পরীক্ষার জন্য গাড়ি নিয়ে প্রস্তুত থাকা ভ্রাম্যমাণ ল্যাব টেকনিশিয়ানরা উপসর্গ থাকা রোগীর বাড়িতে যেয়ে নমুনা সংগ্রহ করবে। সঙ্গে সঙ্গে মিলবে পরীক্ষার ফলাফলও। এছাড়াও নমুনা পরীক্ষায় কারও পজেটিভ হলে তাকে চিকিৎসার আওতায় নেবে স্বাস্থ্য বিভাগ।

প্রথমে বাগেরহাটে সংক্রমণের ঝুঁকিতে থাকা চার উপজেলায় এই কার্যক্রম শুরু হচ্ছে। মোংলা রামপাল উপজেলায় এবং শরণখোলা মোরেলগঞ্জ উপজেলায় পৃথক দুটি ভ্রাম্যমাণ নমুনা সংগ্রহকারী দল উপসর্গ থাকা রোগীদের নমুনা সংগ্রহ করে তা পরীক্ষা করবে।

করোনা সংক্রমণ না কমা পর্যন্ত এই কার্যক্রম চালু থাকবে বলে জানিয়েছে স্থানীয় স্বাস্থ্যবিভাগ। এ উদ্যোগের মাধ্যমে পর্যাপ্ত পরীক্ষা করা হবে র‌্যাপিড কিটের মাধ্যমে। এতে কিছুটা হলেও বাগেরহাটবাসী উপকৃত হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

এই কর্মসূচির জন্য বাগেরহাটের মোংলা ও রামপাল উপজেলাতে একটি ভ্রাম্যমাণ গাড়ি, শরণখোলা ও মোরেলগঞ্জ উপজেলাতে একটি এবং সদর উপজেলায় ভ্রাম্যমাণ গাড়ি প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

তার এ উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছে চিকিৎসকদের সংগঠন বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন (বিএমএ) ।

বাগেরহাট বিএমএ-এর জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক ড. মোশাররফ হোসেন বলেন, অনেকেই সর্দি জ্বর মনে করে চিকিৎসা নিচ্ছেন না। আবার অনেকে ভুল চিকিৎসা নিচ্ছেন। সাংসদ তন্ময় যে উদ্যোগ নিয়েছেন তা যদি ছড়িয়ে দেয়া যায়, তাহলে প্রত্যন্ত গ্রামে করোনা সংক্রমণের প্রকৃত চিত্র পাওয়া যাবে। এটি করোনা রোধে বড় ভূমিকা রাখবে বলে মনে করেন এই চিকিৎসক নেতা।

এর আগে করোনা সংক্রমণ শুরুর পর সরকারি হাসপাতালে রোগীর চাপ কমাতে ডাক্তারের কাছে রোগী নয়, রোগীর কাছে ডাক্তার, ডাক্তার যাবে রোগীর বাড়িসহ নানা পদক্ষেপ নেন এই সাংসদ। তা স্থানীয়ভাবে ব্যাপক জনপ্রিয়তা পায়।

বাগেরহাট সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সরদার নাসির উদ্দিন বলেন, বাগেরহাট জেলায় প্রথম ঢেউয়ে করোনা রোগী শনাক্ত হওয়ার পর তা রোধে জনসচেতনতামূলক নানা কর্মসূচি হাতে নেন সাংসদ তন্ময়।

এ বিষয়ে বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক আজিজুর রহমান বলেন, বাগেরহাটের দুই সাংসদ শেখ হেলাল উদ্দিন ও শেথ তন্ময় জেলার কোভিড পরিস্থিতি নিয়ে খুব উদ্বিগ্ন।

বাগেরহাটের সিভিল সার্জন ড. কে এম হুমায়ুন কবির বলেন, সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে উপসর্গ থাকা রোগীকে আইসোলেশনে রাখা এবং তাকে শনাক্ত করা। যাতে একজন থেকে অন্যজনে রোগটি না ছড়ায়। বাড়ি বাড়ি গিয়ে রোগীর নমুনা সংগ্রহ করার যে উদ্যোগটি সাংসদ তন্ময় নিযেছেন তা ভালো একটি উদ্যোগ। করোনার সন্দেহভাজন রোগী যদি বাড়ি থেকে হাসপাতালে আসতে যায়, তখন ওই রোগী কিন্তু সংক্রমণ ছড়াবে। এই উদ্যোগের ফলে আমরা বেশি বেশি রোগী শনাক্ত করতে পারব। এবং এই শনাক্ত রোগীদের আইসোলেশনে রাখতে পারলে রোগের বিস্তার অনেকটাই কমবে।

(ঢাকাটাইমস/১৫জুন/পিএল)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :