‘বাবার নিষ্ঠা, একাগ্রতা, পরিশ্রম সবসময় আমাকে ভাবায়’

আরিফুর রহমান দোলন
 | প্রকাশিত : ২০ জুন ২০২১, ১১:৫৮

ছোটবেলায় দেখেছি সাপ্তাহিক ছুটির দিন শুক্রবারে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই বাবা অফিস করতেন। লোন প্রপোজাল (ঋণ প্রস্তাব) তৈরি করে দিতেন, যেসব ব্যবসায়ী ব্যাংক থেকে ঋণ নিতে আগ্রহী। শুক্রবার কখনো সখনো সকালের পড়া শেষ করে (স্কুলে থাকা অবস্থায়) রূপালী ব্যাংকের পাশ দিয়ে খেলাধুলার জন্য স্কুল মাঠে যেতাম। দেখতাম নিবিষ্ঠ মনে আব্বা বড় বড় বাঁধাই করা কাগজে লিখে চলেছেন। ওটাই ছিল তার একান্ত মূহুর্ত। আমরা যখন ব্যস্ত আনন্দ, উল্লাস আর বিশ্রামে তখন তিনি কাজের মাধ্যমে ছুটি ভোগ করেছেন। তাঁর ওই নিষ্ঠা, একাগ্রতা, পরিশ্রম সব সময় আমাকে ভাবায়।

আব্বার অবর্তমানে অনেক অনেক বেশি ভাবায় তাঁর কিছু উপলব্ধি। আব্বা ছিলেন অনেক বেশি বাস্তববাদী অকপটে নিজের উপলব্ধি প্রকাশ করতে পারতেন। সুসময় আর অসময়টিতে মানুষকে খুব ভালো চেনা যায়, একথা বারবার বলতেন। অতিমাত্রায় স্বার্থপর এবং উপকারীর উপকার স্বীকার করে না শ্রেণিকে সবসময় এড়িয়ে চলার নীতি ছিল তাঁর।

আব্বার অবর্তমানে তাঁর উপলব্ধিগুলো যে কতটা সত্য, সঠিক ও আগামীর পথ চলার সহায়ক তা হাঁড়ে হাঁড়ে বুঝি। ২০১৯ সালের ৩০ ডিসেম্বর প্রয়ান হয়েছে আব্বার। অবর্তমানে তাঁকে খুব বেশি বুঝতে চেষ্টা করি। তাঁর বাস্তববোধকে কুর্ণিশ করি। বাবা দিবসে স্রষ্টার কাছে এই প্রার্থনা, পরলোকে যেন অনেক অনেক ভালো থাকেন আমার আব্বা।

লেখক: আরিফুর রহমান দোলন, সম্পাদক ঢাকাটাইমস টোয়েন্টিফোর ডটকম ও দৈনিক ঢাকাটাইমস

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজপাট বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত