করোনার টিকা নিলে বন্ধ্যাত্বের গুজব!

স্বাস্থ্য ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২০ জুন ২০২১, ১২:৪৯ | প্রকাশিত : ২০ জুন ২০২১, ১২:১৩

মানুষের চেয়ে পাঁচ হাজার কোটি গুণ ক্ষুদ্র ভাইরাস নাজেহাল করে দিয়েছে গোটা বিশ্ববাসীকে । করোনা ভাইরাসের অত্যাচারে দীর্ঘদিন লকডাউনের যন্ত্রণা সহ্য করেছে সমগ্র পৃথিবী । তারপরেও মেলেনি নিস্তার । এখনও তার মরণ কামড় চলছেই । ট্রায়ালে কার্যকারিতা প্রমাণের পর মানুষের শরীরে ভ্যাকসিন দেওয়াও শুরু হয়েছে।

ভ্যাকসিনেশন শুরুর ঠিক আগের মুহূর্তে অন্য এক গুজব মাথা চাড়া দিয়ে উঠেছে । অনেকেই বলাবলি করতে শুরু করেছেন, করোনার ভ্যাকসিন নিলে নাকি চিরতরে সন্তান ধারণ ক্ষমতা চলে যাবে । বন্ধ্যাত্ব গ্রাস করে নেবে । ভ্রান্ত এই ধারণার বশবর্তী হচ্ছেন অনেক মানুষ । এই ভুয়া রটনা যদি একবার মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে যায়, তা হলে টিকা নিতে অস্বীকারও করতে পারেন সাধারণ মানুষ।

সম্প্রতি দ্য জার্নাল অব আমেরিকান মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশন বা ‘জামা’য় প্রকাশিত একটি গবেষণাপত্র এই বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য জানিয়েছে। শিকাগোর ‘ইনস্টিটিউট ফর হিউম্যান রিপ্রোডাকশন’-এর চিকিৎসক ডেভিড কোহেন এই গবেষণাপত্রে বলেছেন, এমন কোনও প্রমাণ নেই যে কোভিডের টিকার কারণে শুক্রাণুর পরিমাণ কমে যায়। ‘‘টিকা নেওয়ার পরে শুক্রাণুর পরিমাণ উদ্বেগজনক ভাবে কমে গিয়েছে— এমন কোনও প্রমাণ আমরা পাইনি,’’ বলেছেন তিনি। তিনি একাই নন, একই কথা বলেছেন ইংল্যান্ডে চিকিৎসক অ্যালান পেসি-ও।

বিজ্ঞানীদের মতে, করোনাভাইরাসের বিশেষত্ব যে "স্পাইক প্রোটিন" তার একটি কণা যা ক্ষতিকর নয়, সেটি তৈরি করে এই ভ্যাকসিনের মাধ্যমে মানুষের শরীরে প্রবেশ করানো হয়, যাতে শরীর এই স্পাইককে চিনতে শেখে। টিকার মাধ্যমে ঢোকা নতুন এই স্পাইককে ঠেকাতে তৎপর হয়ে ওঠে শরীরের রোগ প্রতিরোধী প্রক্রিয়া। শরীরে তৈরি হয় অ্যান্টিবডি এবং ভাইরাস ঠেকাতে তৈরি হয় রক্তের শ্বেতকণিকা। বিশেষ এই স্পাইকযুক্ত ভাইরাস ভবিষ্যতে আবার আক্রমণ করলে এভাবে তার সাথে লড়াইয়ের ক্ষমতা শরীরে তৈরি হয়ে থাকে।

এই গবেষণাটি শুধুমাত্র ফাইজার এবং মডার্নার টিকা নিয়েই করা হয়েছে। তবে গবেষকদলের দাবি, অন্য টিকার ক্ষেত্রেও এর ব্যাতিক্রম হওয়ার কোনও কারণ নেই। অর্থাৎ কোনও এমআরএনএ টিকাতেই পুরুষের বন্ধ্যাত্বের ঝুঁকি নেই।

কোভিড সংক্রমণের কারণে শুক্রাণুর পরিমাণ কমতে পারে। পুরুষের বন্ধ্যাত্ব বা ‘ইরেকটাইল ডিসফাংশন’-এর সমস্যা দেখা দিতে পারে— এ কথা আগেই বলেছেন চিকিৎসকেরা। হালে এমনটাও বলা হচ্ছে, জিকা বা ইবোলার ভাইরাস যেমন দীর্ঘ দিন অণ্ডকোষে থেকে যেতে পারে, কোভিড সংক্রমণেও তেমন হওয়ার আশঙ্কা আছে। তবে এর উত্তর পেতে আরও গবেষণার প্রয়োজন আছে, বলছেন চিকিৎসকেরা।

করোনাভাইরাস পুরুষের বন্ধ্যাত্বের কারণ হতে পারে। কিন্তু টিকা কোনও ভাবেই তেমন কোনও ক্ষতি করে না। তা প্রমাণিত হয়েছে গবেষণায়।

(ঢাকাটাইমস/২০জুন/আরজেড/এজেড)

সংবাদটি শেয়ার করুন

স্বাস্থ্য বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :