ওয়ালটন ফ্রিজ কিনে মিলিয়নিয়ার হলেন আরো দুজন

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২৩ জুন ২০২১, ২২:২৯

দেশের ইলেকট্রনিক্স বাজারে ক্রেতাদের জন্য সবচেয়ে বড় সুযোগ দিচ্ছে ওয়ালটন। ওয়ালটন ফ্রিজ কিনে মিলিয়নিয়ার হচ্ছেন একের পর এক ক্রেতা। সম্প্রতি বাংলাদেশি সুপারব্র্যান্ড ওয়ালটনের ফ্রিজ কিনে ১০ লাখ টাকা করে পেয়েছেন নীলফামারীর মুদি দোকানদার মাজেদুল ইসলাম এবং রাজবাড়ির দর্জি হানিফ সরদার। ওয়ালটন ফ্রিজ কিনে ঘুরে গেছে তাদের জীবনের চাকা।

এর আগে ওয়ালটন ফ্রিজ কিনে ডিজিটাল ক্যাম্পেইনের আওতায় মিলিয়নিয়ার হন নারায়ণগঞ্জের পোশাক শ্রমিক সেলিম মিয়া।

উল্লেখ্য, ঈদুল আজহা বা কোরবানির ঈদ উপলক্ষ্যে চলছে ওয়ালটনের ‘মেগা ঈদ ফেস্টিভ্যাল’। প্রতিষ্ঠানটির ডিজিটাল ক্যাম্পেইন সিজন ১১ এর আওতায় মেগা ঈদ ফেস্টিভ্যালে ওয়ালটন ফ্রিজ, টিভি, এসি, ওয়াশিং মেশিন, ফ্যান, গ্যাস স্টোভ ও রাইস কুকার ক্রেতাদের জন্য রয়েছে আকর্ষণীয় সব সুযোগ। যার মধ্যে সবচেয়ে আকর্ষণীয় হলো ওয়ালটন ফ্রিজ কিনে মিলিয়নিয়ার হওয়ার সুযোগ। এছাড়াও পণ্যভেদে আছে ফ্রি ফ্রিজ, এসি, ওয়াশিং মেশিন, কোটি কোটি টাকার নিশ্চিত ক্যাশ ভাউচারসহ অসংখ্য সুবিধা।

চলতি মাসের ১৯ জুন নীলফামারীর জলঢাকা ওয়ালটন প্লাজায় মাজেদুল ইসলামের হাতে ১০ লাখ টাকার চেক তুলে দেয়া হয়। এর আগে ১২ জুন রাজবাড়ির গোয়ালন্দ মোড়ের মেসার্স আরাফ ট্রেডার্সে হানিফ সরদারের হাতে আনুষ্ঠানিকভাবে ১০ লাখ টাকার চেক হস্তান্তর করে ওয়ালটন কর্তৃপক্ষ। ওয়ালটনের পক্ষে তাদের হাতে ওই চেক তুলে দেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত অভিনেতা সাইমন সাদিক।

নীলফামারীর অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- জলঢাকা থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান, উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) ইসতিয়াক ভুঁইয়া এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আনছার আলী মিন্টু। রাজবাড়ীর অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন গোয়ালন্দের স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা আমির আলি মোল্লা এবং আরাফ ট্রেডার্সের স্বত্ত্বাধিকারী আব্দুর রব শেখ।

ভাগ্যবান ক্রেতা মাজেদুল ইসলাম জানান, তার বাড়ি উত্তর চেরেংগায়। মুদি দোকানের সামান্য আয়ে চলছিল ৫ সদস্যের সংসার। পরিবারের জন্য ৩১ হাজার ৫০০ টাকা দিয়ে ওয়ালটন ফ্রিজ কিনে ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন করলে ১০ লাখ টাকা পাওয়ার মেসেজ পান তিনি। ওয়ালটন থেকে পাওয়া ওই টাকায় ইলেকট্রনিক্স পণ্যের ব্যবসা করবেন তিনি।

অন্যদিকে ক্রেতা হানিফ সরদার জানান, তার বাড়ি বালিয়াকান্দার একরজনা গ্রামে। ১০ বছর ধরে দর্জির কাজ করছেন তিনি। সাত সদস্যের পরিবারের জন্য মাত্র ২৮ হাজার ৭৫০ টাকা দিয়ে ওয়ালটন ফ্রিজটি কেনেন। এরপর ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন করলে তার মোবাইলে ১০ লাখ টাকা পাওয়ার মেসেজ গেলেও প্রথমে বিশ্বাস করেননি। কয়েকজনকে সেই মেসেজ দেখানোর পরে নিশ্চিত হন। এতো টাকা পাওয়ায় আনন্দ যেন ধরে না তার পরিবারে। গ্রামের মানুষ তাকে ডাকছেন ‘লাকি হানিফ’ নামে। ওই টাকায় জমি কিনবেন হানিফ। দেবেন একটি গরুর খামার।

কর্তৃপক্ষ জানায়, বর্তমানে বাজারে রয়েছে ওয়ালটনের প্রায় দুইশত মডেলের রেফ্রিজারেটর, ফ্রিজার ও বেভারেজ কুলার। ঈদুল আজহা বা কোরবানির ঈদ উপলক্ষ্যে সম্প্রতি ২৭টি নতুন মডেলের ফ্রিজ উন্মোচন করেছে ওয়ালটন। একইসঙ্গে ডিজাইন ও ফিচার আপডেট করা আরো অর্ধশতাধিক মডেলের ফ্রিজ আনুষ্ঠানিকভাবে বাজারে ছেড়েছে তারা।

এখন যেকোনো ব্র্যান্ডের পুরনো ফ্রিজ বদলে ওয়ালটনের নতুন ডিপ ফ্রিজ কেনার সুবিধা পাচ্ছেন গ্রাহক। ফ্রিজে ১ বছরের রিপ্লেসমেন্টসহ কম্প্রেসরে ১২ বছরের ওয়ারেন্টি দিচ্ছে ওয়ালটন। দ্রুত ও সর্বোত্তম বিক্রয়োত্তর সেবা দিতে আইএসও সনদপ্রাপ্ত সার্ভিস ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের আওতায় সারাদেশে ওয়ালটনের রয়েছে ৭৬টি সার্ভিস সেন্টার।

(ঢাকাটাইমস/২৩জুন/এলএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

অর্থনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :