বেক্সিমকোর সুকুক আইপিও আবেদন ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ০৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:১০

দেশের পুঁজিবাজারে বিবিধ খাতে তালিকাভুক্ত কোম্পানি বেক্সিমকোর প্রস্তাবিত সুকুক বন্ডের মাধ্যমে অর্থ উত্তোলনের জন্য প্রাথমকি গণপ্রস্তাবের (আইপিও) আবেদনের সময় তৃতীয় দফা বাড়িয়েছে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত কোম্পানির বন্ডের আইপিও আবেদন করা যাবে।

এর আগে দুইবার কোম্পানির সুকুক বন্ডের মাধ্যমে অর্থ উত্তোলনের জন্য আইপিও আবেদনের সময় বাড়ানো হয়েছিল। তবে এরপরেও যদি বর্ধিত সময়ের মধ্যে বন্ডটিতে ডেবট আইন অনুযায়ী প্রয়োজনীয় পরিমাণ আবেদন জমা না পড়ে, তাহলে পাবলিক অফারটি বাতিল করা হবে বলে জানিয়েছে বিএসইসি।

গতকাল সোমবার কমিশন থেকে বেক্সিমকোর ব্যবস্থাপনা পরিচালক বরাবর চিঠি দেওয়া হয়েছে বলে বিএসইসি সূত্রে জানা গেছে। চিঠিতে বলা হয়েছে, আগামী ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ডেবট সিকিউরিটিজ রুলসের ১২(২) অনুযায়ী প্রয়োজনীয় আবেদন জমা না পড়লে, পাবলিক অফারটি বাতিল করা হবে।

ডেবট সিকিউরিটিজ রুলসের ১২(২) ধারায় বলা হয়েছে, পাবলিক অফারের যেকোনো সিকিউরিটিজে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কমপক্ষে ৩০ শতাংশ আবেদন জমা পড়তে হবে। এছাড়া আন্ডাররাইটারের ২০ শতাংশ আবেদন পড়েও যদি ৫০ শতাংশের কম হয়, তাহলে ইস্যুটি বাতিল হবে।

এর আগে কোম্পানিটি গত ১৬ আগস্ট থেকে ২৩ আগস্ট পরযন্ত বন্ডে আবেদন গ্রহণের তারিখ নির্ধারণ করেছিল। কিন্তু এই সময়ে বন্ডের চাহিদার তুলনায় কম আবেদন পড়ায় আবেদনের সময় ৬ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছিল।

জানা যায়, বেক্সিমকোর তিন হাজার কোটি টাকার সুকুক বন্ডের মধ্যে পাবলিক অফারে ৭৫০ কোটি টাকা সংগ্রহের জন্য গত ১৬ আগস্ট চাঁদা সংগ্রহ শুরু করে। যার জন্য নির্ধারিত সর্বশেষ সময় ছিল ২৩ আগস্টের বিকাল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত। এই সময়ে বন্ডটির চাহিদার ৭৫০ কোটি টাকার বিপরীতে বিনিয়োগকারীরা মাত্র ৫৫ কোটি ৬১ লাখ ৫৫ হাজার টাকার বা ৭.৪১৫ শতাংশ আবেদন করেন। এতে ৭১ জন বিনিয়োগকারী আবেদন করেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে কোম্পানি সময় বাড়ানোর জন্য আবেদন করে, যা ৬ সেপ্টেম্বর বিকাল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত বাড়ায় বিএসইসি। এই সময়ে তেমন সাড়া না পাওয়া আবারও সময় বাড়ানোর জন্য আবেদন করে কোম্পানি। ফলে বিএসইসি আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সময় বাড়িয়েছে।

বেক্সিমকোর প্রস্তাবিত তিন হাজার কোটি টাকার গ্রিন সুকুকের মধ্যে ৭৫০ কোটি টাকা আইপিওতে উত্তোলনের জন্য বরাদ্দ রাখা হয়েছে। বাকি দুই হাজার ২৫০ কোটি টাকার প্রাইভেট প্লেসমেন্টের মাধ্যমে সংগ্রহ করা হবে। এর মধ্যে বিদ্যমান শেয়ারহোল্ডারদের থেকে ৭৫০ কোটি টাকা এবং অন্যান্য বিনিয়োগকারীদের থেকে ১৫০০ কোটি টাকা উত্তোলনের জন্য বরাদ্দ দেওয়া হবে।

গত ২৩ জুন কতিপয় শর্তসাপেক্ষে বিএসইসি বেক্সিমকোর তিন হাজার কোটি টাকার পাঁচ বছর মেয়াদী সিকিউরড কনভার্টেবল অথবা রিডেম্বল অ্যাসেট ব্যাকড গ্রিন সুকুক এর প্রস্তাব প্রদানের সিদ্ধান্ত নেয়।

(ঢাকাটাইমস/০৭সেপ্টেম্বর/এসকেএস/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

অর্থনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :